alipore central jail

কলকাতা: খাদিম কর্তা অপহরণ সংক্রান্ত দ্বিতীয় পর্যায়ের মামলায় দোষী সাব্যস্ত আট জনেরই যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ঘোষণা করলেন বিচারক। একই সঙ্গে তাদের প্রত্যেককে তিন লক্ষ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অনাদায়ে তাদের আরও দু’ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সোমবার আলিপুরের বিশেষ আদালতে বিচারক অরুণকিরণ বন্দ্যোপাধ্যায় এই সাজা ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য, গত ৮ ডিসেম্বর ওই বিশেষ আদালতে আটজনকে খাদিম কর্তা পার্থ রায়বর্মণকে অপহরণের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে। সাজাপ্রাপ্তরা প্রত্যেকেই তাদের পারিবারিক কারণ দেখিয়ে সাজা মকুবের আবেদন জানিয়েছিলেন। তবে এ দিনের রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আবেদন জানাতে পারবে দোষীরা।

এই মামলা ছিল খাদিমকর্তার অপহরণ সংক্রান্ত দ্বিতীয় মামলা। প্রথম মামলার রায়দান হয়েছিল ২০০৯ সালে। অপরাধীদের মধ্যে ছিল আফতাব আনসারি সহ মোট পাঁচ জন। সকলেরই যাবজ্জীবন হয়েছিল। পরে সিআইডি ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে হানা দিয়ে আরও আট জনকে গ্রেফতার করে। আট জনের মধ্যে তিনজন পাকিস্তানি নাগরিক। এরা হল আরসাদ ওরফে আসলাম, দিলসাদ ওরফে মহম্মদ ঈশা এবং তারিক মেহমুদ ওরফে নইম। তাদের বিরুদ্ধে ফের শুরু হয় মামলার বিচারপ্রক্রিয়া। কিন্তু নানা কারণে এই মামলা বিলম্বিত হওয়ায় সুপ্রিম কোর্ট এই মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ দেয়।

২০০১ সালের ২৫ জুলাই তিলজলার বাড়ি থেকে বেরিয়ে লেদার কমপ্লেক্সে যাওয়ার সময় পার্থবাবুকে অপহরণ করা হয়। ২০ কোটি টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয় রায়বর্মণ পরিবারের কাছে। তবে শেষ পর্যন্ত ৫ কোটি টাকাতে রফা হয়। তার পরেই ছাড়া হয় পার্থবাবুকে।