Digital classroom
ডিজিটাল ক্লাসরুম উপহার। নিজস্ব চিত্র।
ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া: আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসে অভিনব ডিজিটাল ক্লাসরুম উপহার দিলেন স্কুলের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক। বাঁকুড়ার সিমলাপালের হেত্যাগোড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দীর্ঘ ৩৭ বছর শিক্ষকতা করেন সনৎ কুমার দাস। দু’মাস আগেই তিনি অবসর গ্রহণ করেন। অবসরকালীন প্রাপ্য টাকা থেকেই প্রিয় ছাত্রছাত্রীদের এই উপহার দিলেন স্কুলের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক।

উল্লেখ্য, বাঁকুড়ার সিমলাপালের হেত্যাগোড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় জঙ্গলমহলের মধ্যে প্রথম প্রাথমিক বিদ্যালয় যেখানে ই-লার্নিং পদ্ধতির মাধ্যমে পাঠদানের সূচনা হল। শনিবার একটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে জঙ্গলমহলে অভিনব এই শিক্ষা পদ্ধতির উদ্বোধন করেন সিমলাপালের বিডিও রথীন্দ্রনাথ অধিকারী।

ex head master
প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক সনৎ কুমার দাস। নিজস্ব চিত্র।

সনৎবাবু  বলেন, দিন পালটাচ্ছে আর শিক্ষাপদ্ধতিরও পরিবর্তন ঘটছে। মনের মধ্যে আধুনিক পদ্ধতিতে শিক্ষাদান পদ্ধতির ইচ্ছে থাকলেও তা আর হয়ে ওঠেনি। তাই অবসর গ্রহণের পর নিজের স্বপ্ন পূরণ করার জন্যই অবসরকালীন প্রাপ্য টাকা দিয়ে স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের প্রোজেক্টর দিয়েছি, যাতে প্রত্যন্ত জঙ্গলমহলের এই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা সময়োপযোগী আধুনিক শিক্ষাপদ্ধতির মাধ্যমে পড়াশোনার সুযোগ পায়।

সনৎবাবু এবং বিডিও রথীন্দ্রনাথ অধিকারী ছাড়াও এ দিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবী অনুপ পাত্র প্রমুখ। এই স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক অনিমেষ সিংহমহাপাত্র বলেন, আধুনিক এই শিক্ষাপদ্ধতিতে শিক্ষা দিলে ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার প্রতি আরও আগ্রহ বাড়বে। নতুন উপহার পেয়ে খুশি ছাত্রছাত্রীরা।এলাকার মানুষ ও অভিভাবকরা শিক্ষকের এই ধরনের  উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন