rasogolla

শ্রীলা প্রামাণিক, নদিয়া: রেকর্ড ভাঙা দৌড়ে ক্রমশ নিম্নগামী হচ্ছে পারদ। সেই শীতের আমেজ গায়ে মেখে এক অন্য উৎসবে মাতল রানাঘাট। ভোজনবিলাসীদের রসনা তৃপ্ত করতে শনিবার থেকে রানাঘাট পুরসভা প্রাঙ্গণে পুরসভার উদ্যোগে শুরু হল রসগোল্লা উৎসব।

উদ্বোধনী দিনে উপস্থিত ছিলেন রানাঘাটের সাংসদ তাপস মণ্ডল, রানাঘাটের মহকুমাশাসক প্রসেনজিৎ চক্রবর্তী, পুরপ্রধান পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায়-সহ অন্যরা। উৎসব চলবে দু’দিন। রয়েছে ১৬টি স্টল। সেখানে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন রকমের রসগোল্লা।

rasogolla

বিভিন্ন স্বাদের, বিভিন্ন রঙের রসগোল্লার এই পসরা বিস্মিত করার মতো। নলেন গুড়ের রসগোল্লা যেমন আছে, তেমনই আছে বেকড রসগোল্লা, সুগার-ফ্রি রসগোল্লাও। কোনো রসগোল্লার স্বাদ ক্যাডবেরি চকোলেটের মতো, আবার কোনোটা কমলালেবুর স্বাদ নিয়ে হাজির। এমনকি তুলসীপাতা, ধনেপাতা, গাজর, আম, কাঁচালঙ্কা ইত্যাদি দিয়ে তৈরি রসগোল্লাও হাজির এই উৎসবে।

rasogolla

রানাঘাটের পুরপ্রধান পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায় বলেন, “রসগোল্লার জিআই নিয়ে লড়াইয়ের সময়ে আমরা যাবতীয় তথ্য প্রমাণ তুলে দিয়ে জানিয়েছিলাম রসগোল্লা প্রথম রানাঘাটে তৈরি হয়। সেই ঐতিহ্যকে তুলে ধরতে রসগোল্লা উৎসবের আয়োজন করেছি আমরা। এলাকার মিষ্টান্ন ব্যবসায়ীরা যোগ দিয়েছেন। মানুষও উৎসাহী।“

rasogolla

যদিও রসগোল্লার জন্য নয়, নদিয়ার এই গুরুত্বপূর্ণ রেল জংশনের খ্যাতি রয়েছে আগাগোড়া অন্য এক মিষ্টির জন্য। রানাঘাটের পানতুয়ার নামডাক আছে ভালোমতোই। তবে রানাঘাটের গর্বের তালিকায় সদ্য যুক্ত হয়েছে রসগোল্লার নামও। সম্প্রতি রসগোল্লার জিআই পেয়েছে বাংলা। সেই লড়াইয়ে জুড়ে ছিলো রানাঘাট। রানাঘাটের পালচৌধুরী জমিদার বাড়ির ময়রা হারাধন মণ্ডল প্রথম রসগোল্লা তৈরি করেন বলেই দাবি করা হয়।

rasogolla

বাংলার রসগোল্লা জিআই স্বীকৃতি পাওয়ার পরই রানাঘাটে রসগোল্লা উৎসব করার কথা ঘোষণা করেছিলেন পুরপ্রধান পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায়। তার প্রস্তুতি চলেছে এই কয়েক দিন। রসগোল্লার সঙ্গে রানাঘাটের নাম জুড়ে যাওয়ার পর শনিবার পানতুয়ার শহর মেতে উঠেছে রসগোল্লা উৎসবে।

শনিবার উৎসব শুরুর পর থেকেই ঢল নামতে শুরু করে মানুষের। শীতের আমেজ গায়ে মেখে নানান স্বাদের রসগোল্লা আস্বাদন করতে সব স্টলে ভিড় জমাতে শুরু করেছেন আট থেকে আশি। রানাঘাটের বাসিন্দা গৃহবধূ নমিতা সরকার, শিক্ষক রজত নন্দীদের কথায়, এ একটা অন্য ধরনের উৎসব। অনেক রকমের রসগোল্লা চেখে দেখার সুযোগ মিলল যেখানে। ভালো বই মন্দ পাওনা নেই তাই উৎসবে যোগ দিয়ে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here