ঝাড়গ্রামের কুঠিয়াপালে তৃণমূল নেতার বাড়িতে আগুন

0
Jhargram House
সমীর মাহাত

ঝাড়গ্রাম: সাঁকরাইলের এক তৃণমূল নেতার বাড়িতে আগুন বুধবার গভীর রাতে। অভিযোগের তির বিজেপির দিকে হলেও, দায় অস্বীকার করেছেন জেলা নেতৃত্ব।

বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরেই ঝাড়গ্রাম জেলায় বিক্ষিপ্ত ভাবে রাজনৈতিক চাপান-উতোর অব্যাহত। এরই মাঝে বুধবার রাত দেড়টা নাগাদ সাঁকরাইল ব্লকের কুঠিয়াপাল গ্রামে তৃণমূলের বুথ সভাপতি দিলীপ মান্নার বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় দুষ্কৃতীরা। আগুনে পরিবারের কেউ আক্রান্ত না হলেও ঘরের কিছু অংশ পুড়ে গিয়েছে।

এলাকার তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি পঞ্চানন দাসের দাবি, “লোকসভা ভোটের পর থেকেই বিজেপি এলাকায় নানা ভাবে সন্ত্রাস চালাচ্ছে। বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা আতঙ্ক ছড়াতে এই সব করছে”।

পাশাপাশি, বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলা সভাপতি সুখময় শতপথী জানান, “সাঁকরাইলে তৃণমূলের আর কোনো স্তরে ক্ষমতা নেই। পঞ্চায়েত থেকে এই লোকসভা নির্বাচনে তারা পরাজিত। বিজেপির কর্মীরা এই ধরনের কাজ করেনি, করবেও না। পুলিশকে দিয়ে মিথ্যা মামলায় বিজেপির কর্মীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। এখন থেকে পুলিশ নিরপেক্ষ কাজ না করলে পরে সামাল দিতে পারবে না”।

Shyamsundar

রাজনৈতিক ওয়াকিবহাল মহলের মতে, আগামী বিধানসভার প্রাক্কালে জঙ্গল মহল এলাকায় রাজনৈতিক উত্তেজনা বাড়তে পারে। এমনিতেই মুখ্যমন্ত্রী-সহ তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব দাবি করে আসছেন যে, সিপিএমের একটি বড়ো অংশ বিজেপিতে মিশেছে। প্রসঙ্গত, মাওবাদী সন্ত্রাসের পর থেকে জঙ্গল মহল এলাকায় সিপিএমের কর্মসূচি সে ভাবে বিস্তার করতে পারেনি।

জঙ্গল মহলের আগাম পরিস্থিতি নিয়ে বর্ষীয়ান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব তথা গোপীবল্লভপুরের প্রাক্তন বিধায়ক সন্তোষ রানা বলেন, “জঙ্গল মহলে আগের মতো সন্ত্রস্ত পরিবেশ তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা কম। যদি হয়, তা কোন দিকে যাবে বলা মুশকিল।”

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন