বারাসাত: দীর্ঘ টালবাহানার পর অবশেষে সমাবর্তন হতে চলেছে পশ্চিমবঙ্গ রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করা পড়ুয়াদের স্থায়ী শংসাপত্র দেওয়ার আশ্বাসেই সমাবর্তনের অনুমতি দিয়েছেন আচার্য তথা রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী। সমাবর্তন হলে প্রায় ১ লক্ষ  ৮০ হাজার পড়ুয়া শংসাপত্র পাবেন।  

২০০৮-এ জন্মলগ্ন থেকে বিতর্কের শেষ নেই বিশ্ববিদ্যালয়ে। কখনও ফল প্রকাশে বিলম্ব তো কখনও পড়ুয়াদের থেকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ, মাঝেমধ্যেই শিরোনামে থেকেছে এই বিশ্ববিদ্যালয়। পাশ করা পড়ুয়াদের যে স্থায়ী শংসাপত্রের বদলে অস্থায়ী শংসাপত্র (প্রভিশিনাল সার্টিফিকেট) দেওয়া হত, সেটাও ছিল বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নির্দেশিকা বহির্ভূত। হিসেব মতো ফল প্রকাশের ১৮০ দিনের মধ্যে স্থায়ী শংসাপত্র দিতে হয়।

সমাবর্তনের ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আচার্য তথা রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গে দেখা করতে গেলে তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দেন পড়ুয়াদের আসল শংসাপত্র দেওয়ার ব্যবস্থা না করলে সমাবর্তনের অনুমতি তিনি দেবেন না। আচার্যের সেই দাবি মেনে নেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আগামী ২৫ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেই সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বাসব রায়চৌধুরী জানিয়েছেন,  শংসাপত্র যাতে জাল না করা যায় সে জন্য সব শংসাপত্রেই তিনি নিজে সই করবেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here