Connect with us

রাজ্য

চিতাবাঘ মেরে মাংস খেয়ে পুলিশের জালে পাঁচ চোরা শিকারি

জলপাইগুড়ি: চিতাবাঘকে মেরে কষিয়ে মাংস রান্না করা হয়েছিল। এই মাংস দিয়েই চলছিল জমিয়ে বনভোজন। কিন্তু বনভোজন শেষ হওয়ার আগেই পুলিশের জালে ধরা পড়ল পাঁচ চোরা শিকারি। জলপাইগুড়ির ওদলাবাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে এদের।

শুধু মাংস দিয়ে বনভোজনই নয়, মরা চিতাবাঘের চামড়া কেটে ১০ লক্ষ টাকায় বিক্রি করা পরিকল্পনা ছিল চোরা শিকারিদের। সেটা করতে গিয়েই পুলিশের পাতা ফাঁদে পা দিয়ে দেয় এই তারা।

রবিবার গোরুমারা জাতীয় উদ্যান সংলগ্ন এলাকা থেকে এই চিতার চামড়া উদ্ধার হয়। জলপাইগুড়ির বৈকুণ্ঠপুর বনবিভাগের স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের  রেঞ্জার সঞ্জয় দত্তের নেতৃত্বে অভিযান চলে। এরপরেই ফাঁদ পাতে পুলিশ।  চোরাশিকারিদের ফাঁদে ফেলতে একটি হোয়াটসআপ গ্রুপ তৈরি করে পুলিশ। চামড়া বিক্রির করার উদ্দেশে সেই গ্রুপে জয়েন করে চোরাশিকারিরা। চামড়া বিক্রি করার দিন ঠিক হয়। রবিবার মোটর বাইকে চেপে চিতাবাঘের চামড়া বিক্রি করতে এসেই ধরা পড়ে যায় চোরাশিকারিরা।

আরও পড়ুন সপ্তাহান্তে ফের তুষারপাত দার্জিলিং, সিকিমে?

এর পরই ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়।  তার আগেই অবশ্য চিতার মাংস রেঁধে খেয়ে নেয় অভিযুক্তরা। রেঞ্জার জানিয়েছেন,  ১০ ফুট দৈর্ঘ্যের চামড়াটি আনুমানিক ১০ লক্ষ টাকায় বিক্রি করার পরিকল্পনা ছিল চোরাশিকারিদের। পুলিশ সূত্রের খবর ৪-৫ দিন আগেই মারা হয়েছিল চিতাবাঘটিকে।

রাজ্য

করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় কলকাতাকে পেছনে ফেলে দিল হায়দরাবাদ, বেঙ্গালুরু

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কলকাতাবাসী কিছুটা স্বস্তি পেতে পারেন। কারণ করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় ইতিমধ্যেই শহরকে পেছনে ফেলে দিয়েছে এমন দু’টি শহর, যেখানে প্রথম দিকে করোনা-আক্রান্তের কার্যত খোঁজই পাওয়া যাচ্ছিল না। এদের মধ্যে একটি শহর তো আবার গোটা দেশের কাছে মডেলও হয়ে উঠেছিল।

এই দুই শহর হল বেঙ্গালুরু (Bengaluru) আর হায়দরাবাদ (Hyderabad)। গত কয়েক দিন ধরেই আক্রান্তের সংখ্যা বিপুল ভাবে বাড়ছে এই দুই শহরে। কিছু দিন আগেই কলকাতাকে পেছনে ফেলে দিয়েছিল হায়দরাবাদ। এ বার বেঙ্গালুরুরও পেছনে চলে গেল কলকাতা।

শনিবার সকালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী কলকাতায় মোট করোনা-আক্রান্ত রয়েছেন ৬,৬২২ জন। এদের মধ্যে অবশ্য সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪১৪২ জন। অর্থাৎ কলকাতায় এখন সুস্থতার হার ৬২.৫৪ শতাংশ।

বেঙ্গালুরুর পরিস্থিতি

গত ২৪ ঘণ্টায় বেঙ্গালুরুতে নতুন করে ৯৯৪ জনের শরীরে করোনার হদিশ মিলেছে। ফলে এই শহরে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭,১৭৩-এ উঠে এসেছে। এখনও পর্যন্ত বেঙ্গালুরুতে করোনামুক্ত হয়েছেন ৭০০ জন।

উল্লেখ্য, প্রথম দিকে বেঙ্গালুরুতে করোনা-আক্রান্তের খোঁজই পাওয়া যায়নি কার্যত। গোটা দেশের কাছে বেঙ্গালুরু একটা মডেল হয়ে ওঠে। কিছু দিন আগেই শহরে মোট করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা এক হাজারের গণ্ডি অতিক্রম করে।

তার পর থেকে আর কার্যত কোনো লাগামই নেই। প্রায় রোজ ৮০০ থেকে ৯০০ জন করে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন বেঙ্গালুরুতে। অন্য দিকে এখনও পর্যন্ত কলকাতায় দৈনিক করোনা-আক্রান্তের সংখ্যা দু’শোর আশাপাশেই ঘোরাফেরা করছে।

উদ্বেগজনক হায়দরাবাদ

এ বার আসা যাক হায়দরাবাদের কথায়। বেঙ্গালুরুর ভাগ্যই হয়েছে হায়দরবাদের। গত কয়েক দিন ধরে দিনে হায়দরাবাদে গড়ে এক হাজার জন করে করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিলেন। কিন্তু গত ২৪ ঘণ্টায় সেই রেকর্ড ভেঙে খানখান হয়ে যায়। এক দিনে হায়দরাবাদে ১,৬৫৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে এই শহরে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছে গিয়েছে ১৬,১৫৪-এ।

তেলঙ্গানার ক্ষেত্রে চিন্তার বিষয়টি হল এই রাজ্যে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা মারাত্মক কম। শনিবারই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ২০,৪৬২-তে পৌঁছে গিয়েছে। অথচ নমুনা পরীক্ষা হয়েছে মাত্র ১ লক্ষের কিছু বেশি। সেই দিকে পশ্চিমবঙ্গে নমুনা পরীক্ষা ৫ লক্ষ ২০ হাজারের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছে।

কোন শহরে, কত আক্রান্ত?

উল্লেখ্য, শহর হিসেবে করোনা-আক্রান্তের নিরিখে এই মুহূর্তে সবার ওপরে রয়েছে দিল্লি (Delhi)। এর পর রয়েছে মুম্বই (Mumbai) আর চেন্নাই (Chennai)। এর পরেই এ বার হায়দরাবাদ আর বেঙ্গালুরু ঢুকে গিয়েছে। ষষ্ঠ স্থানে এখন রয়েছে ঠানে। ফলে বেঙ্গালুরু আর হায়দরাবাদের দৌলতে কলকাতা এখন সপ্তমে নেমে এসেছে।

তবে হরিয়ানার গুরুগ্রাম (Gurugram) আর ফরিদাবাদে (Faridabad) যে ভাবে দিন দিন আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, তাতে কলকাতা আরও নীচে চলে এলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। আসলে করোনার এই দৌড়টা বড়োই অদ্ভুত। এই প্রতিযোগিতায় কেউ শীর্ষে থাকতে চায় না। যে যত নীচে থাকবে, তার তত বেশি স্বস্তি।

Continue Reading

রাজ্য

রেকর্ড সংখ্যক পরীক্ষার দিন আক্রান্তের সংখ্যাতেও নতুন রেকর্ড, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতার হারও

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এই প্রথম রাজ্যে দৈনিক নমুনা পরীক্ষা ১১ হাজারের গণ্ডি ছাড়িয়ে গেল। স্বাভাবিক ভাবেই রেকর্ড সংখ্যক নমুনা পরীক্ষার দিন, আক্রান্তের সংখ্যাতেও নতুন রেকর্ড তৈরি হল। একই সঙ্গে পাঁচশোর বেশি মানুষ সুস্থ হয়ে ওঠায় সুস্থতার হারে আরও কিছুটা উন্নতি এসেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে ৬৬৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা কুড়ি হাজারের গণ্ডি পেরিয়ে এখন এসে দাঁড়িয়েছে ২০,৪৮৮তে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, রাজ্যে বর্তমানে রোগীর সংখ্যা দ্বিগুণ হওয়ার সময়সীমা এখন বেড়ে হয়েছে ২১ দিন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনামুক্তি ঘটেছে ৫৩৪ জনের। ফলে এখনও পর্যন্ত সম্পূর্ণরূপে করোনাকে জয় করে ফেলেছেন ১৩,৫৭১ জন। ১৮ জনের মৃত্যু হওয়ায় রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭১৭। রাজ্যে সুস্থতার হার বেড়ে হয়েছে ৬৬.২৩ শতাংশ। সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৬,২০০।

কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী চার জেলা

গত কয়েক দিনের তুলনায় কলকাতায় নতুন আক্রান্তের সংখ্যা বেশ কিছুটা কম। এ দিন শহরের ১৮২ জন বাসিন্দা নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে শহরে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬,৬২২। যদিও কলকাতায় সুস্থতার হার বেশ ভালোই। কারণ এখনও পর্যন্ত ৪,১৪২ মানুষ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। কলকাতায় করোনায় মৃতের সংখ্যা ৪০২। ফলে শহরে এখন সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২,০৭৮।

কলকাতার পরেই আক্রান্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় আর তৃতীয় স্থানে রয়েছে যথাক্রমে উত্তর ২৪ পরগনা (১৩৪) আর হাওড়া (১০২)। অন্য দিকে দক্ষিণ ২৪ পরগণা আর হুগলিতে আক্রান্ত হয়েছেন যথাক্রমে ৬২ জন করে। এই চার জেলার মধ্যে শুধুমাত্র দক্ষিণ ২৪ পরগণাতেই সক্রিয় রোগীর সংখ্যা আগের দিনের থেকে কমেছে।

দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলা

পূর্ব মেদিনীপুর বাদে দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলায় নতুন আক্রান্তের সংখ্যা দশের কমেই রয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্তের খোঁজ মেলেনি ঝাড়গ্রাম, আর বীরভূমে। ঝাড়গ্রাম তো এমনিতেই করোনামুক্ত। অন্য দিকে বীরভূমে মোট আক্রান্তের সংখ্যা তিনশো ছাড়ালেও সুস্থ হয়ে গিয়েছেন ২৮৫ জন।

বর্তমানে পুরুলিয়া আর বাঁকুড়ায় সক্রিয় রোগী রয়েছেন যথাক্রমে ৮ আর ৪৯। পূর্ব আর পশ্চিম বর্ধমানে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩১ আর ৩২। পূর্ব আর পশ্চিম মেদিনীপুরে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৯৯ আর ৫২। অন্য দিকে নদিয়া আর মুর্শিদাবাদে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা যথাক্রমে ৭৩ আর ৫২।

উত্তরবঙ্গ

উত্তরবঙ্গে মালদা আর দার্জিলিং নিয়ে চিন্তা রয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের। গত ২৪ ঘণ্টায় দার্জিলিংয়ে ২৬ আর মালদায় ৩৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। দার্জিলিংয়ের সব আক্রান্তই শিলিগুড়ির। এর মধ্যে মালদায় বর্তমানে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ২৯৩ আর দার্জিলিংয়ে ১২৫।

আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার, কালিম্পং আর দক্ষিণ দিনাজপুর থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে কোনো করোনা আক্রান্তের সন্ধান মেলেনি। এর মধ্যে করোনামুক্ত হওয়ার পথে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে কোচবিহার। কারণ, ওই জেলায় এখন সক্রিয় রোগী রয়েছেন মাত্র এক জন। আলিপুরদুয়ারে সক্রিয় রোগী ৯ জন।

কালিম্পং এখন সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৪ জন। উত্তর আর দক্ষিণ দিনাজপুরে যথাক্রমে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৫৮ আর ৩৫ জন।

নমুনা পরীক্ষার তথ্য

গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে ১১,০৫৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, যা এখনও পর্যন্ত দৈনিক সর্বোচ্চ। এর ফলে এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট ৫ লক্ষ ১৮ হাজার ৫৪টি নমুনা পরীক্ষা হয়ে গেল। রাজ্যে নমুনা পজিটিভ হওয়ার হার বর্তমানে রয়েছে ৩.৯৪ শতাংশ।

Continue Reading

রাজ্য

এ বার মাস্ক না পরলে শাস্তি‍! নতুন নির্দেশিকা রাজ্যের

মাস্ক না পরলে কী হতে পারে?

কলকাতা: এ বার মাস্ক না পরে রাস্তায় বের হলে যেতে হতে পারে আদালতেও!

রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় শুক্রবার নতুন নির্দেশিকা জারি করে বাইরে বেরনোর সময় মাস্ক (Mask) পরার অনুরোধের পাশাপাশি আইনত শাস্তির কথাও জানিয়েছেন।

করোনাভাইরাস (Coronavirus) সংক্রমণ মোকাবিলায় মুখে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হয়েছে আগেই। তবে কেউ কেউ সেই নিয়ম না মেনে উদাসীন ভাবেই চলাফেরা করছেন। যা করোনা সংক্রমণের আশঙ্কাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। এমন পরিস্থিতিতে নির্দেশিকা জারি করে সাধারণ মানুষকে মাস্ক-সচেতন করে তোলার উদ্যোগ নিল রাজ্য।

জানা গিয়েছে, ইতিমধ্য়েই জেলা প্রশাসন, পুরসভা এবং পুলিশের কাছে নতুন নির্দেশ পৌঁছে গিয়েছে। ফলে শুক্রবার থেকেই এই নিয়ম চালু হয়ে যাবে।

কী হতে পারে?

মাস্ক না পরে বাইরে বেরোতে দেখলেই পুলিশ ধরবে। এর আগেই বেশ কয়েকজনকে আটক করা হলেও কিছু মানুষের আচরণ বদলায়নি।

মাস্ক না পরার কারণ জানাতে হবে পুলিশকে। মাস্ক পরতে রাজি না হলে রাস্তা থেকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

মাস্ক না পরলে তা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ হিসাবে গণ্য হবে।

ক্ষেত্র বিশেষে আদালতে পর্যন্ত যেতে হতে পারে। সেখানে গিয়েই মাস্ক না পরার ব্যাখ্য়া দিতে হবে।

আগে কী বলেছিল রাজ্য?

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরুতেই রাজ্য় মাস্ক বাধ্য়তামূলক করে। মাস তিনেক আগে মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা একটি নির্দেশিকায় জানান, রের বাইরে বেরোতে হলে মুখাবরণ থাকতেই হবে। সেই মুখাবরণ মাস্ক হতে পারে, হতে পারে দোপাট্টা বা গামছাও। এমনকি কাপড়ের টুকরো বা রুমালও চলতে পারে, তবে তা যেন নাকমুখ ঢাকার মতো হয়।

মুখ্যসচিব বলেছিলেন, মুখাবরণ থাকলে কোভিড-১৯-এর সংক্রমণ অনেকটাই রোধ করা যায়। তাই সকলেরই মুখাবরণ ব্যবহার করা উচিত।

কেন মাস্ক পরতে হবে?

চিকিৎসকরা জানান, যে হেতু কোভিড ১৯ (COVID 19) মুখের ড্রপলেট থেকে ছড়ায়, সে হেতু মুখাবরণ ব্যবহার করলে এর সংক্রমণ অনেকটাই ঠেকানো যেতে পারে।

মাস্ক ব্যবহারের সঠিক পদ্ধতি:

এ ভাবে মাস্ক না পরাই ভালো

১. মাস্ক পরার আগে ভালো করে সঠিক নিয়ম মেনে হাত ধুতে হবে।

২. মুখ এবং মাস্কের মধ্যে কোনো শূন্যস্থান থাকলে চলবে না।

৩. মাস্ক স্পর্শ করা যাবে না। ছুঁতে হলে ফের সঠিক নিয়মে হাত ধুতে হবে।

৪. একক ব্যবহারযোগ্য মাস্ক পুনরায় ব্যবহার করা যায় না।

৫. মাস্ক খোলার সময় পিছনের দিক থেকে খুলতে হবে। সামনের দিকে মোটেই হাত দেওয়া যাবে না। তা করতে হলে সঠিক নিয়মে হাত ধুতে হবে।

পড়তে পারেন: ১০টি ওয়াশেবল মাস্ক দেখে নিন

Continue Reading
Advertisement
দেশ38 mins ago

৩ লক্ষ টাকায় সোনার মাস্ক, করোনা থেকে মুক্তি মিলবে কি না জানেন না

দেশ1 hour ago

পাঁচ রাজ্যে নতুন করে করোনা-আক্রান্ত ১৬,৭৯৯ বাকি দেশে ৫,৯৭২

শিল্প-বাণিজ্য2 hours ago

ভারত অ্যাপ নিষিদ্ধ করতেই চিনের সঙ্গে দূরত্ব বাড়াচ্ছে টিকটক

রাজ্য2 hours ago

করোনা-আক্রান্তের সংখ্যায় কলকাতাকে পেছনে ফেলে দিল হায়দরাবাদ, বেঙ্গালুরু

দেশ2 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২২,৭৭১, সুস্থ ২৪,৩৩৫

দেশ3 hours ago

“১৫ আগস্টেই বাজারে আসবে, তবে ২০২১-এ,” কোভ্যাক্সিন নিয়ে সরকারি সময়সীমার তীব্র নিন্দা বিশেষজ্ঞদের

বিনোদন14 hours ago

‘সড়ক ২’ পোস্টার: ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের অভিযোগে মহেশ ভাট, আলিয়া ভাটের বিরুদ্ধে মামলা

রাজ্য15 hours ago

রেকর্ড সংখ্যক পরীক্ষার দিন আক্রান্তের সংখ্যাতেও নতুন রেকর্ড, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতার হারও

দেশ2 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২২,৭৭১, সুস্থ ২৪,৩৩৫

ক্রিকেট3 days ago

আইসিসির চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন শশাঙ্ক মনোহর, এ বার কি সৌরভ?

বিজ্ঞান3 days ago

কোভাক্সিন কী? জেনে নিন বিস্তারিত

দেশ3 days ago

করোনিল বিক্রিতে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই, সারা দেশেই পাওয়া যাবে: রামদেব

ক্রিকেট3 days ago

২০১১ বিশ্বকাপ কাণ্ড: ফাইনালে খেলা ক্রিকেটারকে জিজ্ঞাসাবাদ শ্রীলঙ্কা পুলিশের

দেশ1 day ago

দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড, সুস্থতাতেও রেকর্ড

ক্রিকেট2 days ago

চলে গেলেন ‘থ্রি ডব্লু’-এর শেষ জন স্যার এভার্টন উইকস, শেষ হল একটা অধ্যায়

শিল্প-বাণিজ্য3 days ago

পিপিএফ, এনএসসি-সহ অন্যান্য ক্ষুদ্র সঞ্চয় প্রকল্পে সুদের হার অপরিবর্তিত

নজরে