নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: পিঠেপুলি দিয়ে শুরু। শেষ করতে পারেন ঝালঝাল মাশরুম পাকোড়া দিয়ে। থাকছে হায়দরাবাদি বিরিয়ানি, নবাবি চিকেন।

না, কোনো তারকাখচিত রেস্টুরেন্টের মেনু নয়। এই সবই পাবেন ‘জলপাইগুড়ি ফুড ফেস্টিভ্যাল’-এ। বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া এই ‘উৎসব’ চলবে রবিবার পর্যন্ত। এখানে খাবারের দামও রাখা হয়েছে মধ্যবিত্তের সাধ্যের মধ্যেই।

food-1একটি পাটিসাপটা ১০ টাকা।

food-2কাজু-কিসমিস দিয়ে সাজানো একবাটি পায়েসের দাম ২০ টাকা।

food-4ক্ষীরের পুলিপিঠে ৩০ টাকা। ১০০ টাকায় পাওয়া যাবে হায়দরাবাদি বিরিয়ানি। মাশরুম পাকোড়া ১০ টাকা।

এই মেলার সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য কোনো সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়াই মেলার আয়োজন করেছেন জলপাইগুড়ি পুরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের পৌরমাতা লোপামুদ্রা অধিকারী। ওই ওয়ার্ডের  মহিলা পরিচালিত ১২টি স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে নিয়ে গত বছর এই মেলা শুরু করেন তিনি। সেখানে সফলতা পাওয়ায় এ বার আরও বড়ো আকারে ফুড ফেস্টিভ্যালের আয়োজন করা হয়েছে। এ বার ১৬টি স্বনির্ভর গোষ্ঠী ছাড়াও ১৬টি বেসরকারি সংস্থা যোগ দিয়েছে এই খাদ্যমেলায়। লোপামুদ্রাদেবীর কথায় এই ছোটো ছোটো স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে সত্যিকারের স্বনির্ভর করে তোলাই এই মেলার মুল উদ্দেশ্য।

food-3গত বছর  স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলি প্রায় আড়াই লক্ষ টাকার ব্যবসা করেছিল। এ বার সেই অঙ্কটা অনেক বেশি হবে বলেই ধারণা সোনালি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর ‘লিডার’ মিঠু বোসের। রবিবার মেলার শেষ দিনে রাখা হয়েছে ‘রন্ধন-পটয়সী প্রতিযোগিতা’। মেলার উদ্বোধন করতে এসে মহিলাদের স্বনির্ভর করে তোলার এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন জলপাইগুড়ি পুরসভার উপ-পুরপ্রধান পাপিয়া পাল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here