উত্তরবঙ্গ বাঘবিহীন হয় কী ভাবে! ক্ষুব্ধ বনকর্তাদের প্রশ্ন

0

ওয়েবডেস্ক: বছর খানেক আগেই নেওড়া ভ্যালিতে বাঘের দেখা মিলেছিল, বাঘ দেখতে পাওয়া গিয়েছিল বক্সাতেও। এর পরেও উত্তরবঙ্গ ‘বাঘবিহীন’ কী ভাবে হয়? এই নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যের বনকর্তারা।

সোমবার বাঘশুমারির রিপোর্ট প্রকাশ করেছে ন্যাশনাল টাইগার কনজার্ভেশন অথরিটি বা এনটিসিএ। সেই রিপোর্টে উত্তরবঙ্গকে ‘‌বাঘবিহীন’‌ ঘোষণা করা হয়েছে। যদিও তা মানতে রাজি নয় রাজ্য বন দফতর। বন দফতরের প্রধান মুখ্য বনপাল (বন্যপ্রাণ)‌ রবিকান্ত সিনহা বলেন, “রিপোর্ট দেখেছি। তবে উত্তরবঙ্গ নিয়ে একমত নই। নেওড়া ভ্যালি ও বক্সার জঙ্গলে বাঘ রয়েছে। গণনা খুব অল্প সময়ের জন্য হয়। অল্প তথ্য নিয়ে কাজ হয়। নেওড়ার জঙ্গলে শুমারির কাজ ভালো করে করা যায়নি। বক্সাতেও যে সময় গণনা হয়েছে, তার আগে–‌পরে বাঘ থাকার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ প্রমাণ আমরা পেয়েছি।”

সুন্দরবনের ক্ষেত্রেও গণনার রিপোর্ট ভুল তথ্য দিচ্ছে বলে দাবি করেন সিনহা। রিপোর্ট বলছে, সেখানে ৮৮টি বাঘের অস্তিত্ব রয়েছে। কিন্তু তাঁর দাবি, সুন্দরবনে একশোর বেশি বাঘ রয়েছে। গণনায় সুন্দরবনে ১২–১৪টি বাঘের অস্তিত্ব ধরা পড়েনি বলে দাবি তাঁর।

আরও পড়ুন দীর্ঘ সাত দশক বন্ধ থাকার পর হিন্দু মন্দিরের দরজা খুলে গেল এই দেশে

উল্লেখ্য, ২০১৭-এর জানুয়ারিতে কালিম্পংয়ের নেওড়া ভ্যালি জাতীয় উদ্যানে বাঘ দেখা গিয়েছিল। তার পরেও কী ভাবে এই শুমারিতে বাঘের অস্তিত্ব ধরা পড়ল না, সেটা ভাবিয়ে তুলছে। রাজ্য ওয়াইল্ড লাইফ বোর্ডের সদস্য অনিমেষ বসু বলেন, “আমরা হতাশ। গোটা দেশ দেখেছে নেওড়াভ্যালিতে পর পর বাঘের ছবি উঠে এসেছে। এমন রিপোর্ট কী ভাবে তৈরি হল তা বুঝতে পারছি না।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বক্সা–নেওড়ার এমন অনেক এলাকা রয়েছে, যেখানে ট্র‌্যাপ ক্যামেরা বসানো কঠিন। সহজে মানুষ পৌঁছোতে পারে না। সম্ভবত সে কারণেই বাঘের অস্তিত্বের প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে ধারণা। বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের এক বনকর্তা বলেন, “জয়ন্তীর ভুটিয়াবস্তি, হাতিপোতা, ফাঁসখাওয়া, ভুটানঘাট এলাকায় ১৭–১৮ সেমি বাঘের পাগমার্ক বিভিন্ন সময়ে পাওয়া যায়। যে পাগমার্ক কখনোই চিতাবাঘের হওয়া সম্ভব নয়। চিতাবাঘের পাগমার্ক বড়জোর ১২–১৩ সেমি পর্যন্ত হতে পারে।”

বিশেষজ্ঞরা অনেকেই বলছেন, বক্সা-নেওড়ার মতো কঠিন জায়গায় একবার নয়, বছরে অন্তত তিন-চার বার শুমারি করা হোক। তা হলেই হয়তো বাঘের অস্তিত্ব টের পাওয়া যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here