g d birla school

কলকাতা: সারা দিন টান টান উত্তেজনার পর অবশেষে স্বস্তির নি‌ঃশ্বাস ফেললেন জি ডি বিড়লা স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকরা। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কয়েক ঘণ্টার বৈঠকের পর অভিভাবক ফোরামের পক্ষ থেকে জানানো হয়, কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অধ্যক্ষাকে অপসারণ করা হবে। কর্তৃপক্ষের এই আশ্বাসের পর ফোরামও আগামী কাল স্কুল খোলার ব্যাপারে সহমত পোষণ করে।

আজ জিডি বিড়লা কাণ্ডে ক্লাস টিচার সহ আয়া সুইপার মিলিয়ে মোট চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ ৷ লালবাজারে ডেকে তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ৷ গতকাল জিডি বিড়লার অধ্যক্ষা তাঁর বয়ানে যা যা বলেছিলেন তার সঙ্গে ওই চারজনের বক্তব্য মিলিয়ে দেখেছেন তদন্তকারীরা ৷ স্কুলের আরো কয়েকজনকে ডাকা হতে পারে পুলিশ সুত্রের খবর ৷ আজ যাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে তাঁদের প্রত্যেকেরই বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে ৷ সেসব খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা ৷ স্কুলের অধ্যক্ষার পাশাপাশি তদন্তের প্রয়োজনে জিডি বিড়লা কর্পতৃক্ষকেও ডাকা হতে পারে বলে পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে ৷

আজ এসএসকেএম হাসপাতালে নির্যাতিতার মেডিক্যাল পরীক্ষা করা হয় ৷ পরীক্ষার রিপোর্ট এখনো পর্যন্ত পাওয়া যায়নি ৷ অন্যদিকে ধৄত দুই শিক্ষককে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ ৷ তাদের কাছ থেকে পাওয়া নানান তথ্য অন্যান্যদের সাথে মিলিয়ে দেখা হচ্ছে ৷ এই ঘটনায় নির্যাতিতার বাবা ও মা্য়ের ১৬৪ অর্থাৎ বিচারকের সামনে গোপন জবানবন্দির আবেদন জানায় পুলিশ ৷ আলিপুর স্পেশাল পকসো আদালতে এই আবেদন জানানো হয় ৷ বিচারক এই আবেদন মঞ্জুর করেছেন ৷ আগামীকাল আলিপুর আদালতে নির্যাতিতা শিশুর গোপন জবানবন্দি নেওয়া হবে ৷

লালবাজারে যখন দফায় দফায় জেরা চলছে তখন স্কুলের সামনে চলছে অভিভাবকদের জটলা। উদ্দেশ্য একটাই-সমাধান সূত্র খুঁজে বের করা। কারণ পরীক্ষা চলাকালীন স্কুল খোলা থাকবে, না কি আন্দোলনের জেরে বন্ধ থাকবে তা নিয়ে অভিভাবকরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যান। কিন্তু বেলা শেষে কর্তৃপক্ষ অভিভাবক ফোরামের সঙ্গে বৈঠকে বসতে সেই সমস্যার সমাধান সূত্র মিলে যায়। অভিভাবকদের দাবি, অভিযুক্ত অধ্যক্ষা স্বৈরতন্ত্র চালাতেন। তাঁকে সরিয়ে দেওয়ায় স্কুল খোলার ব্যাপারে আর কোনো আপত্তি রইল না।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here