কলকাতা: পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীকে মোদী বাহিনীর সৈনিক বলে বর্ণনা করলেন বিজেপি নেতা রাহুল সিংহ। রাজ্যপালকে তাঁর এই নয়া আখ্যায় তৃণমূল-বিজেপি সংঘাত আরও চরমে উঠল। সেই সঙ্গে রাহুলের এই মন্তব্যে রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়ে গিয়েছে জোর জল্পনাও। অনেকেরই প্রশ্ন, রাজ্যপাল সম্পর্কে এই মন্তব্য করে তৃণমূল কংগ্রেসের হাতেই কেন অস্ত্র তুলে দিলেন রাহুল। রাজ্যপাল বিজেপির লোক বলে তৃণমূল যে অভিযোগ করছে, রাজ্যপালকে মোদী বাহিনীর সৈনিক বলে রাহুল তো সেই অভিযোগেই সিলমোহর দিলেন।

ইতিমধ্যে ‘ড্যামেজ কন্ট্রোল’-এ নেমেছেন পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়। তিনি বলেছেন, রাজ্যপাল সম্পর্কে রাহুল সিংহের মন্তব্য ব্যক্তিগত। এটা দলের কথা নয়।

বসিরহাট-বাদুড়িয়ায় গোষ্ঠী সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে তৃণমূল-বিজেপি চাপানউতোর শুরু হয়েছে মঙ্গলবার থেকে। সে দিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যপালের বিরুদ্ধে হুমকি দেওয়ার অভিযোগ করেন এবং বলেন, রাজ্যপালের কথায় তিনি অসম্মানিত হয়েছেন। রাজ্যপাল এই অভিযোগ অস্বীকার করে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে পালটা অভিযোগ করে বলেন, দু’ জনের মধ্যে ফোনে কী কথা হয়েছে, তা ফাঁস করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে হুমকি দেওয়ার মতো কিছু বলেননি।

বুধবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় আর এক দফা সুর চড়িয়ে বলেন, মুখ্যমন্ত্রীকে টার্গেট করে রাজ্যপাল তাঁর সাংবিধানিক সীমাবদ্ধতা ছাড়িয়ে গিয়েছেন। পালটা প্রতিক্রিয়ায় রাজ্যপাল বলেন, নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে রাজ্য সরকার নজর ঘোরানোর চেষ্টা করছেন।

বৃহস্পতিবার ময়দানে নেমে পড়লেন বিজেপি নেতা রাহুল সিংহ। রাজ্যপাল সম্পর্কে তিনি বলেন, “তৃণমূল ভাবছে গালাগাল দিয়ে চুপ করাবে। তৃণমূল ভুল ভাবছে, উনি মোদী বাহিনীর সৈনিক।” রাহুল সিংহের এই মন্তব্য সঙ্গে সঙ্গে লুফে নিয়েছে তৃণমূল। দলের মহাসচিব তথা শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছেন, “রাজ্যপাল যে বিজেপির লোক সেই স্বীকৃতি দিয়ে দিল দল।” পার্থবাবু সাফ বলেছেন, বসিরহাট-বাদুড়িয়ায় অশান্তিতে বিজেপির উসকানি রয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here