ফের ব্যথিত রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়

0
jagdeep dhankar
ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: ফের ব্যথিত হলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়। শুক্রবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ সিদ্ধান্তগ্রহণকারী কমিটির সভায় যোগ দেওয়ার পর ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি। এ দিন রাজ্যপাল বলেন, রাজ্যের মন্ত্রীরা তাঁর উদ্দেশে যে ধরনের মন্তব্য করছেন, তা তাঁকে ব্যথিত করছে।

এ দিন রাজ্যপাল সরাসরি শাসক দলের নাম করেই বলেন, “না জেনে মন্তব্য করছেন তৃণমূলের নেতা-মন্ত্রীরা, যা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। আমি আমার লক্ষ্ণণরেখা অতিক্রম করিনি। রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান হিসাবে কী ভাবে কর্তব্য পালন করতে হয়, তা আমি জানি। তাই মানুষের সঙ্গে কথা বলা জরুরি”।

প্রসঙ্গত, রাজ্যপালের নিরাপত্তা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে গত বেশ কয়েক দিন ধরেই। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে রাজ্যপালের নিরাপত্তায় কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠানো নিয়ে তোপ দাগেন রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “রাজ্যকে ‘ওভারটেক’ করে রাজ্যপাল কেন্দ্রের দ্বারস্থ হয়েছেন”।

সে প্রসঙ্গেই রাজ্যপাল লক্ষ্ণণরেখা অতিক্রমের কথা তুলে ধরেন। অন্য দিকে সেপ্টেম্বর মাসের শেষ দিকে শিলিগুড়িতে রাজ্যপালের ডাকা প্রশাসনিক বৈঠক নিয়েও বিতর্ক বাঁধে। রাজ্যপাল এ দিন জানান, রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান হিসাবে তিনি মানুষের সঙ্গে কথা বলার বিষয়টিকে জরুরি বলে মনে করেন।

[ আরও পড়ুন: পুজো কার্নিভাল নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য রাজ্যপালের ]

এর আগেই ওই রাজ্য সরকারের দুর্গাপুজো কার্নিভালে তাঁকে আমন্ত্রণ জানিয়ে অপমান করার অভিযোগ তুলেছিলেন। এ দিন তিনি বলেন, “কেউ রাজ্যপালকে ট্যুরিস্ট বলছে, কেউ আবার শিলিগুড়ি যাত্রাকে গিমিক বলছে”।

[ আরও পড়ুন: রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়ের নিরাপত্তায় এ বার কেন্দ্রীয় বাহিনী ]

সব মিলিয়ে রাজ্যপাল-রাজ্য সরকার সংঘাতে আপাতত দাঁড়ি পড়ার সম্ভাবনা কম বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। তাদের মতে, দায়িত্বে আসার পরপরই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র হেনস্থাকাণ্ড নিয়ে রাজ্য প্রশাসনকে খোঁচা দিয়েছিলেন রাজ্যপাল। তার পর থেকেই এই দ্বৈরথ সমানে অব্যাহত। তাঁর পূর্বসূরি কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গেও রাজ্য সরকারের সম্পর্ক মোটের উপর ততটা ‘মিষ্ট’ ছিল না। দায়িত্ব হাতে নিয়েই সেই জায়গা থেকেই চলা শুরু করলেন ধানখড়!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here