কলকাতা: শনিবার থেকেই পুণ্যার্থী সমাগম হতে শুরু করেছিল পানিহাটির দণ্ড মহোৎসব ঘাটে। রবিবার সকাল থেকে ভিড় আরও বাড়তে শুরু করে। এক দিকে প্রবল গরম আর অন্য দিকে অত্যধিক ভিড়ে ক্রমশ বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় পানিহাটির প্রসিদ্ধ দই-চিঁড়ের মেলায়। আর তারই মধ্যে ঘটে গেল মর্মান্তিক ঘটনা।

পানিহাটিতে দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসছে দণ্ড মহোৎসব। কথিত আছে আনুমানিক ৫০৬ বছর আগে, পানিহাটি মহোৎসব তলা ঘাটে চৈতন্য মহাপ্রভু শাস্তি দিয়েছিলেন রঘুনাথ দাস গোস্বামীকে। মহাপ্রভুর দর্শনের জন্য মিথ্যে বলার কারণে রঘুনাথ দাস গোস্বামীকে দণ্ড দেন তিনি। উপস্থিত ভক্তদের আহার হিসেবে দই-চিঁড়ে খাওয়ানোর দণ্ড দেন শ্রী চৈতন্য দেব। সেই থেকে জ্যৈষ্ঠ শুক্লা ত্রয়োদশীর তিথিটিকে স্মরণে রেখে পানিহাটি গঙ্গা তীরে চলছে দই-চিঁড়ে মহোৎসবের এবং এই উৎসবকে কেন্দ্র করে লক্ষ ভক্ত বৈষ্ণবের আগমনে ও তাদের আনন্দ কীর্তনে মুখরিত হয়ে ওঠে সমগ্র অঞ্চল।

করোনার জন্য দু’বছর ধরে বন্ধ ছিল এই উৎসব। স্বাভাবিক ভাবেই এ বার ভক্তসমাগম অন্য বারের চেয়েও অনেক বেশি। জানা যায়, ভিড় বেশি হওয়ায় বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছিল মেলায়। তার উপর বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছিল গরমের তীব্রতা। গরম ও ভিড়ের চাপে নাজেহাল অবস্থা হয়ে উঠেছিল পুণ্যার্থীদের। স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, পা ফেলার জায়গা ছিল না গোটা এলাকায়। যার জেরে ঘটে যায় ভয়াবহ ঘটনা।

মেলায় প্রবল ভিড়ের কারণেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছেন জেলার তৃণমূল নেতা এবং রাজ্যের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তিনি বলেছেন, “দু’লক্ষের জায়গায় ১০ লক্ষ জন সমাগম হয়েছিল। আমরা তো কাউকে বলতে পারি না যে এসো না। তার পর আজ প্রায় ৪৫ ডিগ্রি গরম। হিট স্ট্রোক হয়েই মৃত্যু হয়েছে। প্রশাসন যথাসম্ভব চেষ্টা করছে সুস্থ মতো সকলকে বের করে আনার। মুখ্যমন্ত্রী ঘণ্টায় ঘণ্টায় তদারকি করছেন”।

পানিহাটির তৃণমূল বিধায়ক নির্মল ঘোষ বলেছেন, “গত দু’বছর যেহেতু করোনা ছিল তাই ভক্তরা আসতে পারেননি। ৫০৬ বছর ধরে এই মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। আজ এতটা ভিড় ছিল আর তার সঙ্গে গরম ছিল যে মানুষ অজ্ঞান হয়ে যান। তার জেরে আমরা আর কাউকে মেলায় যেতে দিচ্ছি না”।

তবে এই ঘটনায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন পুণ্যার্থীরা। তাঁদের অভিযোগ, মেলা প্রাঙ্গণে পর্যাপ্ত পুলিশ ছিল না। এমনকী, এত বড়ো মেলা হওয়া সত্ত্বেও সেখানে অ্যাম্বুল্যান্স ছিল না। পাশাপাশি ভিড় সামলানোর জন্যও স্থানীয় প্রশাসনের তরফে কোনো পদক্ষেপ করা হয়নি বলে অভিযোগ।

যদিও এই তথ্য মানতে নারাজ পানিহাটি পুরসভা থেকে মেলা কর্তৃপক্ষ। অ্যাম্বুলেন্স ছিল। এ ছাড়াও স্যালাইন- ওআরএস দেওয়া হচ্ছিল ১২টি ক্যাম্পে। সকাল থেকেই পুণ্যার্থীদের উদ্দেশে সতর্কতা মূলক প্রচারও চলছিল। এই সব ব্যবস্থাই আগে করা হয়েছিল বলে দাবি পুরসভার তরফে।

আরও পড়তে পারেন:

পুকুরে স্নান করতে গিয়ে হাতের মুঠোয় লাখ টাকা, থানায় ফিরিয়ে সততার দৃষ্টান্ত তুলে ধরলেন জয়নগরের গৃহবধূ

পিছু ছাড়ছে না কোভিড সংক্রান্ত জটিলতা, হাসপাতালে ভরতি সনিয়া গান্ধী

পানিহাটিতে দই-চিঁড়ের মেলায় মর্মান্তিক ঘটনা, মৃত ৩

রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে কিছুটা এগিয়ে এনডিএ, ভিন্ন কৌশল বিরোধীদের, জানুন ভোটের সম্ভাব্য সমীকরণ

‘স্থায়ী’ মুখোমুখি যোগাযোগে বাতাসের মাধ্যমে ছড়াতে পারে মাঙ্কিপক্স, বলছে শীর্ষ স্বাস্থ্য সংস্থা

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন