TMC-21-July

সমীর মাহাত (ঝাড়গ্রাম) ও শুভদীপ চৌধুরী (পুরুলিয়া): রাজ্যের শেষ পঞ্চায়েত নির্বাচনে জঙ্গলমহলের তিন জেলায় আশাতীত ফল করেছে বিজেপি। স্বাভাবিক ভাবেই শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস জেলা পরিষদ দখলে রাখতে পারলেও নীচুস্তরের বিস্তীর্ণ এলাকায় পরাজিত হয়েছে। এ ক্ষেত্রে তৃণমূলের সাংগঠনিক ক্ষমতা হ্রাসকে বড়ো করে দেখানোর প্রক্রিয়া জারি থাকলেও ২১ জুলাই কলকাতার ধর্মতলার সমাবেশকে কেন্দ্র করে প্রস্তুতিসভায় তা প্রকট ভাবে নজরে পড়ল না।

মেদিনীপুরে নরেন্দ্র মোদীর সভার থেকে তৃণমূলের ২১ জুলাইয়ের সভায় ঝাড়গ্রাম থেকে অনেক বেশি মানুষ যোগদান করবে, দাবি ঝাড়গ্রামের যুব তৃণমূল সভাপতি দেবনাথ হাঁসদার। সভা উপলক্ষে ১৮ জুলাই ঝাড়গ্রামে দলের শেষতম পদযাত্রার আয়োজন করা হয়। পদযাত্রা শুরুর আগে সংবাদ মাধ্যমকে এই কথা তিনি জানান। প্রসঙ্গত, যুব তৃণমূল কংগ্রেসের ডাকে ২১ জুলাই ধর্মতলার সভা নিয়ে জেলার ব্লক-অঞ্চলওয়াড়ি দফায় দফায় পথসভা করে দল।

tmc
ঝাড়গ্রামের যুব তৃণমূল সভাপতি দেবনাথ হাঁসদা

কয়েক দিন আগেই মেদিনীপুরে মোদীর সভার নজর কাড়া ভিড় অনেকেরই চক্ষু চড়ক গাছ হয়। তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বে দাবি করেন, বাইরে থেকে লোক এনে মাঠ ভরিয়েছে বিজেপি। জেলা সভাপতি এ দিন বলেন, “আমাদের কাছে খবর, ঝাড়গ্রাম থে‌কে ওদের সভায় ১শতাংশ লোক গিয়েছিল, ২১ জুলাই ২০ হাজার মানুষ ঝাড়গ্রাম থেকেই যাবে। প্রতি রেল স্টেশনে আমাদের বুথ থাকবে, যাতে কেউ অসুবিধায় না পড়েন”। প্রচারের শেষ পথসভায় ঝাড়গ্রামের বিধায়ক সুকুমার হাঁসদা, চূড়ামণি মাহাত, জেলা ও ব্লকের সমস্ত নেতৃত্বই উপস্থিত ছিলেন।

শনিবারের ওই সমাবেশের উদ্দেশে পুরুলিয়া তৃণমূলের প্রস্তুতি ছিল তুঙ্গে। বৃহস্পতিবার জেলার তৃণমূল সমর্থকরা এ দিন কলকাতার উদ্দেশে রওনা দেন । জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে কর্মী-সমর্থকদের ট্রেনে করে হাওড়া নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করে পুরুলিয়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেস। এ দিন সকালে পুরুলিয়া এক্সপ্রেসে প্রায় হাজার পাঁচেক তৃণমূল সমর্থকদের নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করে জেলা তৃণমূল কংগ্রেস ।

Tmc-purulia
পুরুলিয়ায় দলীয় কর্মীদের কলকাতা যাত্রা

এর আগে এক প্রস্তুতিসভায় জানানো হয়, বাসে নিয়ে যাওয়াটা আর্থিক ব্যয়বহুল, তাই ট্রেনের ব্যবস্থা ও কর্মীদের যাতে কোনো রকম অসুবিধে সম্মুখীন না হতে হয় তা নজরে রাখবেন তৃণমূল নেতৃত্ব । এ দিন জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের দাবি, নেত্রীর বক্তৃতা শুনতে অনেক মানুষ জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যাবেন। তাই কর্মীদের যাতে কোনোরকম অসুবিধে না হয় সে দিকে থাকবে কড়া নজরদারি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here