চুরি করাই পেশা এবং নেশা! ধরা পড়ল ইংরেজিতে এমএ পাশ চোর

0
চুরির ঘটনায় গ্রেফতার তিন। ছবি: এবিপি আনন্দ-র সৌজন্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: চুরিকেই পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে সৌমাল্য চৌধুরী। আর তা করতে গিয়ে ফের পুলিশের জালে ধরা পড়েছে আসানসোলের বাসিন্দা, ইংরেজিতে এমএ সৌমাল্য।

হাওড়ায় গয়না চুরির ঘটনার সূত্র ধরে এই ‘উচ্চশিক্ষিত’ চোরকেই গ্রেফতার করেছে সাঁকরাইল থানার পুলিশ। জানা যায়, সৌমাল্যের এই স্বভাবের কারণে তাঁর মা আত্মহত্য়া করলেও চুরির নেশা ছাড়তে পারেনি সে।

Loading videos...

পুলিশ সূত্রের খবর, সৌমাল্য ছাড়াও তার দুই সহযোগীও এখন পুলিশের জালে। ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের সোনার গয়না।

জানা গিয়েছে, আসানসোল, হাওড়া, হুগলি জেলায় কম পক্ষে ২০টি চুরির ঘটনায় যুক্ত সৌমাল্য। তার বাবা ছিলেন সরকারি আধিকারিক। মা ছিলেন শিক্ষিকা। প্রথমে নেশা হলেও এখন চুরিকে রীতিমতো পেশায় পরিণত করে ফেলেছে শিক্ষিত পরিবারের এই যুবক। আর আগেও পুলিশের হাতে পাকড়াও হয়, কিন্তু ছাড়া পাওয়ার পর ফের পুরনো পেশাতেই।

ঘটনায় প্রকাশ, গত ৯ জুন হাওড়ার সাঁকরাইল থানার দুইলা এলাকায় একটি ফ্ল্যাট থেকে প্রায় ১০ ভরি সোনার গহনা চুরি করে চম্পট দেয় সে। পালানোর সময় ফ্ল্যাটের এক আবাসিক স্কুটির নম্বর লিখে নেয়। এই নম্বর এর সূত্র ধরেই পাঁশকুড়া থেকে গ্রেফতার করা হয় সৌমাল্য চৌধুরী ও তার এক সাগরেদ প্রকাশ শাসমলকে।

এর পর পশ্চিম মেদিনীপুরের দাসপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় মাধব সামন্ত নামে আরও এক জনকে। এদের রবিবার হাওড়া আদালতে পেশ করে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন করেছে পুলিশ।

আরও পড়তে পারেন: ২৭ দিন বাড়ল পেট্রোলের দাম, ১০০ টাকার আরও কাছে রবিবার

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.