Connect with us

হাওড়া

বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়াকে দল থেকে বহিষ্কার করল তৃণমূল

দলবিরোধী মন্তব্যের অভিযোগে বৈশালী ডালমিয়াকে দল থেকে বহিষ্কার করল তৃণমূল।

Published

on

বৈশালী ডালমিয়া। ফাইল ছবি

কলকাতা: তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বহিষ্কৃত হলেন বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া (Baishali Dalmiya)। শুক্রবার তৃণমূলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি এই সিদ্ধান্ত নেয়।

গত কয়েক দিন ধরেই দলের বিরুদ্ধে একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য করছিলেন বৈশালী। রাজ্যের ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্ল মন্ত্রীসভা থেকে পদত্যাগের পরই প্রকাশ্যে দলের একাংশকে নিশানা করে মন্তব্য করছিলেন বৈশালী। এ দিন বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ইস্তফা দিতেই ফের বিস্ফোরক মন্তব্য করেন তিনি।

Loading videos...

কী বলেছিলেন বৈশালী?

এ দিন রাজীবের ইস্তফা প্রসঙ্গে সংবাদ মাধ্যমের কাছে বৈশালী বলেন, “জেলায় অনেককেই অপমানিত হতে হচ্ছে। এ ভাবে অপমানিত হওয়ার পর নেতা-মন্ত্রীরা দল পর্যন্ত ছেড়ে দিচ্ছেন”।

তিনি আরও বলেছিলেন, “রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিত্ব ত্য়াগে আমাদের অনেকটাই ক্ষতি হয়ে গেল। সেটা শুধু দলের ক্ষতি নয়, সাধারণ মানুষের জন্যও ক্ষতি হল। এই রকম একজন দায়িত্ববান মন্ত্রী যে দল ছাড়লেন সেটা বিরাট চিন্তা ও দুঃখের বিষয়। সত্যি কাজ করা অসুবিধা হচ্ছে”।

কয়েক দিন মন্ত্রীসভা থেকে লক্ষ্মীরতন শুক্লর ইস্তফার পর বৈশালী বলেছিলেন, “দলের একটা অংশ শুধু লক্ষ্মীকে নয়, অনেক বিধায়ককেই কাজ করতে দিচ্ছে না। পুরনো কর্মীদের কাজ করতে দেয় না। দল ছাড়লেই বেইমান বলা হয়। কিন্তু যারা উইপোকার মতো দলকে কুরে কুরে খাচ্ছে, সেই বেইমানদের তাড়িয়ে দেওয়া উচিত”।

কী বললেন বৈশালী?

এ দিন নিজের বহিষ্কার প্রসঙ্গে বৈশালী বলেন, “গত পাঁচ বছরে হাওড়ায় বহু দুর্নীতি হয়েছে। রাস্তাঘাট হয়নি। উম্পুনের ত্রাণ নিয়েও দুর্নীতি হয়েছে। দল আমাকে বহিষ্কার করলেও আমি সাধারণ মানুষের পাশেই থাকব। মানুষের হয়েই কাজ করব না”।

তা হলে কি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন তিনি? এ প্রশ্নের উত্তরে বৈশালী বলেন, “এখনও কিছু ঠিক করিনি। পরে ঠিক করব। যারা চলে যাচ্ছে, তারা দোষী হয়ে যাচ্ছে। আর যারা দুর্নীতি করেও দলে থেকে যাচ্ছেন, তারা মাথার মুকুট হয়ে থাকছে। ভোটে মানুষ সব বুঝিয়ে দেবে”।

তিনি আরও বলেন, “আমাকে বিজেপি কোনো দিনই দলবদলের প্রস্তাব দেয়নি। আমিও কিছু বলিনি। যা শুনছি, সবই সংবাদ মাধ্যম থেকে। আমি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে পরিষেবা পৌঁছে দিয়ে চলেছি। শুধু দুয়ারে সরকার করলেই হবে না, আরও কিছু কাজ তো আছেই”।

কী বলছেন তৃণমূল নেতৃত্ব?

হাওড়ার তৃণমূল নেতা এবং রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায় বলেন, “যাঁরা দলে থেকে দলের দুর্নাম করেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া সঠিক সিদ্ধান্ত”। শোনা যায়, নাম না করে অরূপের সমালোচনাতেই সরব হচ্ছিলেন বালির তৃণমূল বিধায়ক।

তৃণমূল সূত্রের খবর, এ দিন দলের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির বৈঠকে স্থির হয়েছে, যে নেতানেত্রীরা দলে থেকেও বিরোধীদের মতো কথা বলছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রয়োজনে শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নেওয়া হবে। দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে, এমন কোনো ঘটনাকে বরদাস্ত করা হবে না।

আরও পড়তে পারেন: রাজভবন থেকে বেরিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

হাওড়া

কোভিডের আবহে দর্শকশূন্যই, ৭৫তম বর্ষে বেলুড় মঠের জগদ্ধাত্রী পুজো

Published

on

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দুর্গাপুজো, কালীপুজোর পর এ বার জগদ্ধাত্রী পুজোও দর্শকশূন্য ভাবেই পালিত হল বেলুড় মঠে। তাই ৭৫তম বর্ষের এই পুজোতে এ বার উপস্থিত থাকলেন শুধুমাত্র মঠের সন্ন্যাসী, ব্রহ্মচারী এবং মঠের কর্মীরা।

প্রথা মেনেই নবমীর ভোরে মঠের সারদাপীঠে জগদ্ধাত্রী পুজো শুরু হয়। সপ্তমী, অষ্টমী এবং নবমী, তিন দিনের পুজোই এই এক দিনে করার রীতি রয়েছে বেলুড়ে। এ বারও সেটাই হল।

Loading videos...

রবিবার সন্ধ্যায় দেবীর অধিবাস ও আমন্ত্রণ অনুষ্ঠান হয় । সোমবার ভোর সাড়ে পাঁচটায় দেবীর প্রাণপ্রতিষ্ঠার পর পুজো শুরু হয়। এর পর হয় পুর্বাহ্নের পুজো। ১১টায় মধ্যাহ্ন পুজোর পর দুপুর দুটোয় হয় অপরাহ্ন পূজা। বিকেল চারটেয় হয়েছে হোম।

সন্ধ্যা সাড়ে ছ’টার পর আরতি হবে। রীতি মেনে মঙ্গলবার দশমী তিথিতে প্রতিমার নিরঞ্জন হয়ে যাবে।

খবরঅনলাইনে আরও পড়তে পারেন

অতিমারীর শিকল ভেঙে ঘরেই দক্ষ মৃৎশিল্পীর মতো জগদ্ধাত্রী প্রতিমা বানিয়ে ফেলল নবম শ্রেণির প্রীতাংশু

Continue Reading

মেলাপার্বণ

ঐতিহ্যের হৈমন্তীপর্ব: শিবপুরে যে বারোয়ারি জগদ্ধাত্রীপুজোর সূচনা হয়েছিল রায় চৌধুরীদের উঠোনে

পুজো যখন তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ করে তখন সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নেন যে তাঁরা এই পুজোটি আর রায় চৌধুরীদের উঠোনে করবেন না, পুজোটি বাড়ির চার দেওয়ালের বাইরে নিয়ে আসবেন।

Published

on

বারোয়ারি পুজোর জগদ্ধাত্রী বিগ্রহ।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

জগতকে যিনি ধারণ করে রয়েছেন, ভক্তদের মনোবাঞ্ছা পূর্ণ করছেন তিনি জগদ্ধাত্রী অর্থাৎ তিনিই আদিশক্তি, ব্রহ্মস্বরূপিণী। হাওড়া অঞ্চলে বিভিন্ন বনেদিবাড়িতে তাঁর আরাধনা হলেও শিবপুরের এক বারোয়ারি পুজোতেও দেবীর আরাধনা হয় নিষ্ঠার সঙ্গে, যে পুজোর সূচনা হয়েছিল শিবপুরের রায় চৌধুরীদের উঠোনে। এ বছর সেই  পুজোর সুবর্ণজয়ন্তী বর্ষ পূর্ণ হচ্ছে। প্রচুর পরিকল্পনা ছিল এ বারের পুজো বিশেষ ভাবে উদযাপন করার, কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে সমস্ত পরিকল্পনাই পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন উদ্যোক্তারা। তা বলে নিষ্ঠার কোনো অভাব হবে না এ বারে শিবপুরের মা জগদ্ধাত্রীর পুজোয়।

Loading videos...

১৯৭০ সালে এই পুজোর সূচনা হয় শিবপুরের রায় চৌধুরীদের উঠোনে। সেই সময়ে রায় চৌধুরী পরিবারের ঠাকুরদালানে দুর্গাপুজো ও কালীপুজো ছাড়া সে অঞ্চলে আর কোনো পুজো হত না। সে কারণেই অঞ্চলের কিছু বাসিন্দা এবং রায় চৌধুরী পরিবারের সদস্যরা মিলে শুরু করলেন মা জগদ্ধাত্রীর আরাধনা।

শারদীয়া মহাপূজা যেমন চার দিনের হয়, সন্ধিপূজা, কুমারীপুজো যেমন মহাপূজার অঙ্গ হিসাবেই পরিচিত, তেমনই শিবপুরের বাসিন্দারাও ঠিক করলেন যে ঠিক দুর্গাপুজোর মতোই জগদ্ধাত্রীপুজোও করবেন চার দিন ধরে এবং সেখানে সন্ধিপূজা, কুমারীপুজো সমস্তই অনুষ্ঠিত হবে। সেইমতো প্রথম দু’ বছর রায় চৌধুরীদের উঠোনেই সম্পন্ন হয় দেবীপূজা।

পুজো যখন তৃতীয় বর্ষে পদার্পণ করে তখন সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নেন যে তাঁরা এই পুজোটি আর রায় চৌধুরীদের উঠোনে করবেন না, পুজোটি বাড়ির চার দেওয়ালের বাইরে নিয়ে আসবেন। সেইমতো ব্যবস্থা হয়। তবে সে বছর একটা বিপত্তি ঘটে। জগদ্ধাত্রীপুজোর নবমীর দিন রাত্রিবেলা কোনো এক অজ্ঞাত কারণে দেবীপ্রতিমাটি আগুনে পুড়ে যায়, তবে প্যান্ডেল অক্ষত অবস্থাতেই থাকে। পরের দিন পুজো কমিটির সদস্যরা আবার নতুন প্রতিমা এনে চার প্রহরে পুজো করে তার পর নিরঞ্জনের পথে রওনা হন। এই ঘটনার পরেও অবশ্য রায় চৌধুরী বাড়ির বাইরেই পুজো হতে থাকে।

১০৮টি প্রজ্জ্বলিত দীপশিখা।

চার দিনের পুজোয় ষষ্ঠীর দিন দেবীর অধিবাস হয়। দুর্গাপুজোয় সন্ধিপূজা থাকলেও জগদ্ধাত্রীপুজোয় এর কোনো বিধান নেই, তবুও শিবপুরের এই পুজোয় অষ্টমী এবং নবমীর সন্ধিক্ষণে একটি বিশেষ পুজোর আয়োজন করা হয়। এই সময়ে দেবীকে চামুণ্ডা রূপেই পুজো করা হয়। সেই সময় দেবীকে ১০৮টি পদ্ম, ১০৮টি প্রজ্জ্বলিত দীপশিখা নিবেদন করা হয়।

পুজোর তিন দিনই দেবীকে অন্নভোগ নিবেদন করা হয়। পুজোর সকালে চালের নৈবেদ্যভোগ, নানা রকমের ফল দেবীকে নিবেদন করা হয় এবং দুপুরে খিচুড়িভোগ দেওয়া হয়। সঙ্গে থাকে নানা রকমের ভাজা, তরকারি, চাটনি, পায়েস ইত্যাদি। সন্ধ্যায় দেবীকে লুচিভোগ দেওয়া হয়। তবে সন্ধিক্ষণের পুজোয় কোনো রকম অন্নভোগ হয় না। সেই সময় ঘি-মধু দিয়ে শুকনো চাল মেখে নিবেদন করা হয় দেবীকে, সেই সঙ্গে নানা ফল, মিষ্টিও।

দশমীর দিন কনকাঞ্জলিপ্রথাও রয়েছে এখানে। তবে এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে পুজোয় নানা রকমের বিধিনিষেধ রয়েছে, প্রতিমার উচ্চতাও কমানো হয়েছে। এ বছর চার দিনের বদলে শুধুমাত্র নবমীর দিন তিন প্রহরে পুজো পাবেন দেবী এবং প্রসাদ বিতরণও বন্ধ এ বছর।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

ঐতিহ্যের হৈমন্তীপর্ব: হাওড়ার ভট্টাচার্যবাড়ির জগদ্ধাত্রীর বাঁ হাতে শঙ্খের জায়গায় থাকে খড়্গ

Continue Reading

মেলাপার্বণ

ঐতিহ্যের হৈমন্তীপর্ব: হাওড়ার ভট্টাচার্যবাড়ির জগদ্ধাত্রীর বাঁ হাতে শঙ্খের জায়গায় থাকে খড়্গ

মহাস্নানে ডাবের জল আবশ্যিক কারণ সেটি দক্ষিণাচারী তান্ত্রিক আচার।

Published

on

ভট্টাচার্যবাড়িতে জগদ্ধাত্রীপুজোর আরতি।

শুভদীপ রায় চৌধুরী

দেখতে দেখতে জগদ্ধাত্রীপুজোও এসে গেল। সারা বছরের ক্লান্তি ভুলে উৎসবের দিনগুলিতে মানুষ সংসারের গণ্ডি থেকে বেরিয়ে আসে একটু আনন্দ উপভোগ করার জন্য। প্যান্ডেলে প্যান্ডেলে ঠাকুর দেখার ভিড় উপচে পড়ে পরে। একটি বার সবাই চায় মায়ের সেই জ্যোতির্ময়ী বিগ্রহকে সামনে থেকে দেখতে। হাওড়া শহরেও বেশ কিছু বনেদিবাড়ি রয়েছে যেখানে বহু কাল ধরে জগদ্ধাত্রীপুজো হয়ে আসছে।

Loading videos...

কথা হচ্ছিল হাওড়ার ভট্টাচার্যবাড়ির সদস্য স্বয়ম চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে। তিনি জানালেন, তাঁদের বাড়ির পুজো এ বার ২৫৫ বছরে পদার্পণ করল। এই পরিবারের ঐতিহ্য এবং বনেদিয়ানা যেন পলকে পলকে অনুভব করা যায় ঠাকুরদালানে দাঁড়ালেই।

কথিত আছে জগদ্ধাত্রী হলেন উমা হৈমবতী দুর্গা। তিনি আদি, তিনি অনন্ত, আর তিনি মহামায়ার সাত্ত্বিক রূপ। মহামায়ার রাজসিক গুণের প্রকাশ যদি হন দুর্গা, তা হলে সাত্ত্বিক রূপ এই জগদ্ধাত্রী। সাধকের মন যখন স্থির হয়, চঞ্চলতা কেটে গিয়ে মন আত্মভিমূখে গিয়ে দেবীর চরণে নিমগ্ন হয়, তখনই শ্রীশ্রীজগদ্ধাত্রী কৃপা করেন। তিনি ধারণী শক্তি। তিনি এ জগত ধরে আছেন, না ধরলে এ জগত পড়ে যাবে কালের অনন্ত কালে।

১৭৬৫ সালের কার্তিক মাসের শুক্লানবমীতে ত্রিপুরাসুন্দরী জগদ্ধাত্রী দেবীর আরাধনা শুরু হয় আন্দুলের বিখ্যাত ভট্টাচার্য বংশীয় গোপীমোহন ভট্টাচার্যের হাত ধরে বর্তমান হাওড়া শহরের মল্লিকফটকের বাড়িতে। গোপীমোহন সেই বছরেই তাঁর বংশের প্রাচীন কূলদেবী শ্রীশ্রীশঙ্করীদুর্গা (কালীযন্ত্রের আধারে) এবং পারিবারিক দুর্গাপূজা নিয়ে আসেন তাঁদের আন্দুলের বসতবাটী থেকে। গোপীমোহনের পিতা আন্দুলের বিখ্যাত তন্ত্রসাধক ভৈরবীচরণ বিদ্যাসাগর তাঁর বসতগৃহে দুর্গাপূজা করতেন এবং তাঁর ইষ্টদেবী শঙ্করীকালীর সেবার্চনা করতেন।

ভট্টাচার্যবাড়ির জগদ্ধাত্রী প্রতিমা।

তাঁর শেষ বয়সে তিনি তাঁর সম্পত্তি দুই পুত্রের মধ্যে ভাগ করে দেন। বড়ো পুত্র জগমোহন বাচস্পতিকে শঙ্করীকালীর সেবা আর ছোটো পুত্র গোপীমোহনকে শঙ্করীদুর্গার সেবার দায়িত্ব দেন। গোপীমোহন দুর্গাসেবার দায়িত্ব নিয়ে হাওড়ার মল্লিকফটকে তাঁদের দ্বিতীয় গৃহে আসেন এবং ঠাকুরদালান নির্মাণ করে পারিবারিক প্রাচীন দুর্গাপূজা চালিয়ে যান। কিন্তু শাস্ত্রমতে দুর্গাপূজার শেষে আরেক শক্তিপূজা করা আবশ্যক। কিন্তু কালীসাধক বংশীয় হয়েও গোপীমোহন কালীপূজা করলেন না কারণ তাঁদের বংশীয় প্রতিষ্ঠিত শঙ্করীকালী অবস্থান করছেন আন্দুলে তাঁর পিতার প্রতিষ্ঠিত কালীমন্দিরে (মন্দির স্থাপনকাল ১৭৭১ খ্রিস্টাব্দ), যা আজকের আন্দুলে দেবী সিদ্ধেশ্বরী শঙ্করীকালী মন্দির হিসাবে বিখ্যাত। কালীপূজার পরিবর্তে গোপীমোহন পিতৃ-আদেশ মেনে শ্রীশ্রীজগত্তারিণী জগদ্ধাত্রী দুর্গাপূজা শুরু করেন। সেই পূজাই তাঁর পুত্র রামনারায়ণ হতে সাত পুরুষ ধরে মল্লিকফটকের বাড়িতে হয়ে আসছে।

রামনারায়ণ পুত্র উমাচরণ তৎপুত্র বরদাচরণের এক মেয়ে অভয়াবালা দেবী। অভয়াবালা দেবী বৈবাহিক সূত্রে আবদ্ধ হন রমেশচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে। পিতার অকাল প্রয়াণের পর দুর্গা এবং জগদ্ধাত্রীপূজার গুরু দায়িত্ব পড়ে অভয়াবালার উপরে। ওঁর চার পুত্র এবং তাঁদের পরিবার সেই দায়িত্ব পালন করে আসছে। অভয়াবালা দেবীর সেজো পুত্র ভুপেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়ের পরিবার ১৯৮৪ সাল থেকে জগদ্ধাত্রীপূজার মূল দায়িত্ব পালন করছেন।

জগদ্ধাত্রীপূজার আচার শুদ্ধ তান্ত্রিক আচার। এই বাড়িতে শুক্লানবমীতেই সপ্তমী, অষ্টমী এবং নবমীর পূজা হয়। মহাস্নানে ডাবের জল আবশ্যিক কারণ সেটি দক্ষিণাচারী তান্ত্রিক আচার। দেবীর বাঁ হাতে শঙ্খের জায়গায় থাকে খড়্গ। আগে পাঁঠাবলি হলেও ১৯৮৪ থেকে প্রাচীন হাঁড়িকাঠে চালকুমড়ো, বাতাবিলেবু এবং আখবলি হয়। নবমীপূজায় বলিদান এবং অষ্টমীতে ২৮টি দীপ দান হয়। মাকে মাছভোগ দেওয়া হয়ে থাকে এবং ‘নবান্ন’ নৈবেদ্য নিবেদিত হয়। ‘নবান্ন’-য় জোড়া কড়াইশুঁটি, চাল আর নতুন নলেনগুড় হল আবশ্যিক।

সময় বদলেছে তার সঙ্গে বদলেছে আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি। খালি বদলায়নি মাতৃআবেগে ভরপুর হাওড়া তথা বাংলার এই প্রাচীন জগদ্ধাত্রীপুজো।

খবরঅনলাইনে আরও পড়ুন

ঐতিহ্যের হৈমন্তীপর্ব: সাবর্ণদের আটচালায় জগদ্ধাত্রী পুজো হচ্ছে ১৯৬৬ থেকে

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
election commission of india
দেশ41 mins ago

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গ-সহ ৫ রাজ্যের ভোটের দিনক্ষণ প্রকাশ করবে নির্বাচন কমিশন

প্রযুক্তি59 mins ago

আরবিআই-এর নতুন নির্দেশিকা, ঝক্কি বাড়বে ডেবিট, ক্রেডিট কার্ড লেনদেনে!

বিদেশ1 hour ago

ভ্যাকসিন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

দেশ3 hours ago

এক দিনে প্রায় ৫ হাজার সক্রিয় রোগী বাড়ল মহারাষ্ট্রে

দেশ3 hours ago

ভারত বন্‌ধে শামিল ব্যবসায়ী, কৃষক সংগঠন, প্রভাব কলকাতায়

দেশ4 hours ago

দৈনিক আক্রান্ত ফের ১৬ হাজারের বেশি, ১০টি রাজ্যে বাড়ল সক্রিয় রোগী

বাংলাদেশ12 hours ago

ঢাকার পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরে হত্যাকাণ্ডের ১২তম বার্ষিকী পালন

ফুটবল13 hours ago

প্রথমার্ধে বেঙ্গালুরুকে ৩ গোল দিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে ২ গোল হজম করল জামশেদপুর

LPG
প্রযুক্তি2 days ago

রান্নার গ্যাসের ভরতুকির টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে কি না, কী ভাবে দেখবেন

ক্রিকেট3 days ago

অমদাবাদ টেস্টের প্রথম একাদশে চমকপ্রদ পরিবর্তন করবে ভারত? জোর জল্পনা

ক্রিকেট3 days ago

কপিল দেবের পর প্রথম ভারতীয় পেসার হিসেবে শততম টেস্ট খেলতে চলেছেন ইশান্ত শর্মা

দেশ2 days ago

বঙ্গবন্ধুর ফাঁসি আটকাতে ৩০টি দেশে ছুটে গেছিলেন ইন্দিরা গান্ধী, ভারতের এই ঋণ মনে রেখেছে বাংলাদেশ: তথ্যমন্ত্রী

ক্রিকেট2 days ago

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ক্রিকেট স্টেডিয়াম নামাঙ্কিত নরেন্দ্র মোদীর নামে

প্রযুক্তি22 hours ago

সোশ্যাল, ডিজিটাল মিডিয়া নিয়ন্ত্রণে কড়া পদক্ষেপ কেন্দ্রের

দেশ2 days ago

১ মার্চ থেকে প্রবীণদের জন্য শুরু হচ্ছে বিনামূল্যে করোনা টিকাকরণ

ফুটবল2 days ago

গাড়ি দুর্ঘটনায় মারাত্মক জখম কিংবদন্তি টাইগার উডস, হয়েছে অস্ত্রোপচার

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 weeks ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 weeks ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা1 month ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা1 month ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা1 month ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা1 month ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা1 month ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা1 month ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

কেনাকাটা1 month ago

৯৯ টাকার মধ্যে ব্র্যান্ডেড মেকআপের সামগ্রী

খবর অনলাইন ডেস্ক : ব্র্যান্ডেড সামগ্রী যদি নাগালের মধ্যে এসে যায় তা হলে তো কোনো কথাই নেই। তেমনই বেশ কিছু...

নজরে