জল নিয়ে বিবাদের জেরে বউমার গায়ে আগুন দিলেন শাশুড়ি!

ভাগাভাগিতে তাঁর স্বামীর দিকে পড়ে একটি সেপটিক ট্যাঙ্ক, যেটিতে পরিবারের সবাই ব্যবহার করে। অন্য দিকে তাঁর স্বামীর ভাইয়ের দিকে পড়ে ওই হ্যান্ডপাম্প।

0
Handpump
একটা মাত্র হ্যান্ডপাম্প ছিল ওই পরিবারের। ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: শ্বশুরবাড়ির লোকের বিরুদ্ধে এক মহিলার গায়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠল মধ্যপ্রদেশের বেতুল জেলায়। অভিযোগ, কলের জল নিয়ে বিবাদের জেরে বছর চল্লিশের ওই মহিলার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা করেন শাশুড়ি-সহ পরিবারের অন্যান্যরা।

বেতুলবাজার থানার এসআই ভাইয়ালাল উইকি জানিয়েছেন, দ্বারকা সাহু নামে ওই মহিলা জবানবন্দিতে জানিয়েছেন, দু’টি পরিবারের ব্যবহারের জন্য একটি মাত্র হ্যান্ডপাম্পের জল নিয়ে বিবাদের জেরেই তাঁর গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়।

উইকি জানান, অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় দ্বারকাকে প্রথমে বেতুলের জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু পরিস্থিতির ক্রমাবনতি ঘটলে তাঁকে ভোপালের হাসপাতালে রেফার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, কয়েক দিন আগেও ওই পরিবারের সদস্যরা এক সঙ্গেই ছিলেন। কয়েক মাস আগেই তাঁরা সম্পত্তি নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে নেয়। নির্যাতিতার অভিযোগ, ওই ভাগাভাগিতে তাঁর স্বামীর দিকে পড়ে একটি সেপটিক ট্যাঙ্ক, যেটিতে পরিবারের সবাই ব্যবহার করে। অন্য দিকে তাঁর স্বামীর ভাইয়ের দিকে পড়ে ওই হ্যান্ডপাম্প। সেখান থেকেই জল নেওয়া নিয়ে গন্ডগোল চলছিল।

নির্যাতিতার মেয়ের অভিযোগ, “আমার ঠাকুমা এবং অন্যান্য মায়ের গায়ে কেরোসিন ঢেলে দেয়। তাঁর গায়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। ওই হ্যান্ডপাম্প আমরা আগে সবাই ব্যবহার করতাম। কিন্তু সম্পত্তি ভাগাভাগি হয়ে যাওয়ার পর কলের জল নিয়ে ঝগড়াঝাটি লেগেই রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার পরিস্থিতি এমন হয় যে, তারা আমার মাকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে”।

পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনায় অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরই শ্বশুর ভাদিয়া সাহু এবং তাঁর অন্য দুই ছেলে রাজেন্দ্র সাহু এবং ভোলা সাহুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে ওই মহিলার শাশুড়ি রামরতী বাই এবং জা ললিতা সাহুকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। ধৃতদের আদালতে তুললে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠানো হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.