ওয়েবডেস্ক: প্রবল গরমের সম্ভাবনা আপাতত এখন আর নেই। বরং রোজই হতে পারে ঝড়বৃষ্টি। সপ্তাহান্তে সেই ঝড়বৃষ্টির দাপট আবার বাড়তে পারে। এমনই পূর্বাভাস দেওয়া হল।

গত কয়েক দিন ধরেই দক্ষিণবঙ্গে ঝড়বৃষ্টির পরিস্থিতি অনুকূল হয়ে উঠেছিল। ঘূর্ণাবর্ত এবং অক্ষরেখার যুগলবন্দিতে গোটা রাজ্যই ভালো বৃষ্টি পেয়েছে। গত বৃহস্পতি এবং শুক্রবার প্রচুর পরিমাণে শিলাবৃষ্টি পেয়েছে উত্তরবঙ্গ। তার পরের দিন থেকেই প্রবল ঝড় বয়ে গিয়েছে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায়। তবে কলকাতার ভাগ্য কিছুতেই খুলছিল না। রবিবার সন্ধ্যাতে সেই ভাগ্যও খুলে যায়। প্রবল ঝড়বৃষ্টিকে সঙ্গী করে এক ধাক্কায় অনেকটাই নেমে যায় পারদ।

রবিবার রাতের প্রভাব এখনও রয়েছে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায়। সোমবার দিনটা বেশ মনোরম গিয়েছে। এখন স্বাভাবিক ভাবেই মানুষের মধ্যে যে প্রশ্নটা এসেছে সেটা হল এই মনোরম আবহাওয়া কত দিন থাকবে? এখনই প্রবল গরম পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে?

এখানেই একটি সুখবর দিচ্ছেন বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা। প্রবল গরম পড়ার এখনই কোনো সম্ভাবনা নেই। ভাগ্য ভালো থাকলে রোজই ঝড়বৃষ্টির ছোঁয়া পেতে পারে গোটা রাজ্য।

রবীন্দ্রবাবুর মতে, “এই মুহূর্তে বাংলাদেশ এবং সন্নিহিত পূর্ব ভারতের ওপরে একটি অক্ষরেখা রয়েছে যার ফলে বঙ্গোপসাগর থেকে জলীয় বাষ্প ঢুকছে। সেই সঙ্গে সাগরের ওপরে যে বিপরীত ঘূর্ণাবর্তটি রয়েছে সেও জলীয় বাষ্প ঢোকাচ্ছে।” এই দুইয়ের প্রভাবে আপাতত ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা জারিই থাকবে দক্ষিণবঙ্গে। তবে গত কয়েক দিনের তুলনায় তার দাপট থাকবে কম। শুক্রবার থেকে আবার একটি ঘূর্ণাবর্ত এবং অক্ষরেখা ঝাড়খণ্ড এবং সন্নিহিত দক্ষিণবঙ্গের ওপরে তৈরি হতে পারে। এর ফলে সামনের সপ্তাহান্তেও প্রবল ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে।

উত্তরবঙ্গে আপাতত আবহাওয়া মনোরম থাকবে বলে জানিয়েছেন রবীন্দ্রবাবু। তবে বুধবার থেকে সেখানে আবার ঝড়বৃষ্টির অনুকূল পরিস্থিতি তৈরি হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। এর কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন নেপাল এবং সন্নিহিত অঞ্চলে হিমালয়ের পাদদেশ ক্রমশ গরম হয়ে যাওয়া। এর ফলে স্থানীয় ভাবে বজ্রগর্ভ মেঘের সৃষ্টি হয়ে উত্তরবঙ্গে বৃষ্টি নামতে পারে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here