উদ্ধার ১৮ যুবক, গ্রেফতার তিন। ছবি: হিন্দুস্তান টাইমস-এর সৌজন্যে

কলকাতা: আন্তঃদেশীয় কিডন্যাপিং চক্রের পর্দাফাঁস করল বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেট। আমেরিকায় মোটা টাকার চাকরির লোভ দেখিয়ে ভিনরাজ্যের যুবকদের অপহরণ। তার পর তাঁদের পরিবারের থেকে লক্ষ লক্ষ মুক্তিপণ আদায়। কলকাতা বিমানবন্দর লাগোয়া এলাকা থেকে ১৮ জন যুবককে উদ্ধার করল বিধাননগর কমিশনারেটের এনএসসিবিআই থানার পুলিশ।

গ্রেফতার মূল তিন পান্ডাকে

বিভিন্ন রাজ্যের ১৮ জন যুবকের নিখোঁজের ঘটনায় শেষ কয়েক দিন ধরে তদন্ত চালাচ্ছিল পুলিশ। রবিবার ভোর রাতে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে তাঁদের উদ্ধার করা হয়। অভিযোগ পেয়ে ইতিমধ্যেই চক্রের তিন পাণ্ডাকে গ্রেফতার করেছে বিধাননগর কমিশনারেটের পুলিশ। অভিযোগ, কলকাতা বিমানবন্দর লাগোয়া এলাকায় রমরমিয়ে চলছিল এমনই আন্তর্জাতিক স্তরের একটি অপরাধ চক্র চালাচ্ছিল ধৃতরা।

কী ভাবে চক্রের পর্দাফাঁস

ঘটনায় প্রকাশ, গত ১৬ সেপ্টেম্বর হরিয়ানার বাসিন্দা নরেশ কুমার এনএসসিবিআই থানায় এসে তাঁর ছেলে রাহুল কুমার নিঁখোজ হয়ে গিয়েছেন বলে জানান। কিন্তু তিনি জানতে পেরেছেন তাঁর ছেলে কলকাতায় রয়েছে। গত ২৮ আগস্ট থেকে তাঁর ছেলে নিখোঁজ বলে পুলিশের কাছে জানান তিনি। সেই সূত্র ধরেই শুরু হয় তদন্ত। অভিযোগ পেয়ে হরিয়ানার ওই যুবকের মোবাইলের টাওয়ার লোকেশন ধরে তদন্তে নামে বিধাননগর কমিশনারেট। ফাঁস হয়ে যায় আন্তর্জাতিক ওই অপরাধ চক্রের। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমে পুলিশ দমদম ও এয়ারপোর্ট সংলগ্ন এলাকা থেকে সুরেশ সিনহা, রাকেশ প্রসাদ সিনহা, ধীরাজ দাস নামে তিন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। এর পরেই উদ্ধার করা হয় ওই ১৮ জন যুবককে।

কী ভাবে অপহরণ

আমেরিকায় চাকরি করে দেওয়ার নাম করে পঞ্জাব এবং হরিয়ানার বিভিন্ন জায়গা থেকে ওই যুবকদের নিয়ে আসা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন বিধাননগর কমিশনারেটের গোয়েন্দা প্রধান বিশ্বজিৎ ঘোষ। এ জন্য ওই যুবকদের পরিবারের থেকে মোটা টাকা নিয়েছিল ধৃতরা। এমন ১৮ জন চাকরিপ্রার্থীকে নিয়ে আসা হয় কলকাতা বিমানবন্দর এলাকায়। সেখানে তাঁদের দু’টি হোটেলে দুই থেকে তিন দিন রাখা হয়েছিল। তদন্তের স্বার্থে সেই দু’টি হোটেলের নাম জানায়নি পুলিশ। এর পর ওই ১৮ জনকে নিয়ে যাওয়া হয় ইকো আর্বান ভিলেজ এলাকার একটি বাড়িতে। সেখানে তাঁদের ১০ দিন রাখা হয়েছিল। ওই বাড়ি থেকে অপহৃত যুবকদের উদ্ধার করা হয়েছে।

জিজ্ঞাসাবাদ চলছে

ধৃত তিনজন ছাড়াও প্রতারকদের এই ব়্যাকেটে আরও অনেকেই রয়েছেন বলে পুলিশের অনুমান। ধৃতদের ফ্ল্যাট ভাড়া দেওয়ার অভিযোগে আটক করা হয়েছে এক চিকিৎসককে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে তাঁকেও। ধৃতদের জেরা করেই বাকিদের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ। অন্য দিকে, উদ্ধার হওয়া ১৮ জনের মধ্যে আট জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দাপ্রধান। তাঁরা বিমান ধরে রওনা দিয়েছেন বাড়ির উদ্দেশে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বাকি ১০ যুবককে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন