mukul and anubrata

ওয়েবডেস্ক: বীরভূমের তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের হুঁশিয়ারির কথা মাথায় রেখেই কি পিছিয়ে গেল বাংলায় বিজেপির রথযাত্রার নির্ধারিত স্থান-সময়? জানা গিয়েছে, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ দুই রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারের কাজে ব্যস্ত থাকায় আগামী ৫ ডিসেম্বরের নির্ধারিত দিনের পরিবর্তে আগামী ১৪ ডিসেম্বর রথযাত্রা হবে তারাপীঠ থেকে। তার আগে অবশ্য, অন্য দু’টি রথযাত্রার সময়সূচি অপরিবর্তিত থাকবে। এ ভাবেই কর্মসূচি রদবদলের কারণ দলের তরফে ব্যাখ্যা করা হলেও “কেষ্ট”-কারণকে একেবারেই উড়িয়ে দিতে পারছে না ওয়াকিবহাল মহল। তারই সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের বক্তব্য।

সূত্রের খবর, শনিবার বিজেপির কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন অমিত শাহের অনুপস্থিতির বিষয় নিয়ে আলোচনায় বসেন রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে। সেখানে না কি মুকুলবাবু বলেন, “বীরভূমে তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল গন্ডগোল পাকাতে পারেন৷ যাত্রার শুরুতে তা হলে, প্রভাব পড়বে বাকি দু’টি যাত্রায়৷ তাই তারাপীঠের বদলে উত্তরবঙ্গের কোচবিহার থেকে যাত্রা শুরু করাই ভালো”৷

এমনটাও জানা গিয়েছে, মুকুলবাবুর এই প্রস্তাবকে সমর্থন করেন উপস্থিত অন্যান্য নেতৃত্বও। এ ব্যাপারে উত্তরবঙ্গে দলের শক্তভিতের কথাও উঠে আসে। গত পঞ্চায়েত নির্বাচন থেকে উত্তরবঙ্গে কয়েকটি জেলায় বিজেপির সংগঠন দ্রুত গতিতে বিস্তার লাভ করছে। ফলে সেখান থেকেই রথযাত্রার সূচনায় সায় দেন অনেকেই।

রাজনীতির কারবারিদের যুক্তি, কয়েক দিন আগেই তৃণমূল নেতা অনুব্রত বলেছিলেন, “বিজেপির রথযাত্রার আগে তৃণমূলের খোল-করতাল থাকবে। শেষকৃত্যের জন্য শ্মশানে যাওয়ার সময় ঠিক যে ভাবে যাওয়া হয়”।

এমন মন্তব্য থেকে যদি বিজেপির অন্দরে ভীতির সঞ্চার হয়, তা হলে অবাক হওয়ার কিছু নেই বলেই রাজনৈতিক মহলের একাংশের ধারণা। তবে অমিতের ব্যস্ততার বিষয়টিও অস্বীকার করার নয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here