জলপাইগুড়ি: বছর শেষে একটু হইহুল্লোড়ের জন্য সবই তৈরি ছিল।খানা সেই সাথে পিনাও। কিন্তু বাধ সাধল বনদপ্তর। পিনা একেবারেই বন্ধ, খানাতেও শর্ত আরোপ।

পিকনিকের মরসুম শুরু হতেই সিদ্ধান্ত  নিয়েছিল জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসন। পিকনিক হবে,  তবে মদ নৈব নৈব চ। মদ বন্ধ হলে বন্ধ হবে পিকনিক পার্টিগুলির মধ্যে ঝামেলা। কমবে দুর্ঘটনা।

আর পরিবেশও রাখতে হবে দুষণ মুক্ত। তাই থার্মকল বা প্লাস্টিকের জিনিস ব্যাবহার করা যাবে না। এই কাজের জন্য সাহায্য চাওয়া হয়েছিল পুলিশ, বন দফতর এবং স্থানীয় গ্রাম-পঞ্চায়েতগুলির।

picnic-spot2

জলপাইগুড়ির অধিকাংশ পিকনিক স্পটগুলি অরণ্যাঞ্চলে। শনিবার সকালে বোদাগঞ্জ, গজলডোবার পিকনিক স্পটগুলিতে অভিযান চালায় বৈকুন্ঠপুর বনবিভাগের বেলাকোবা রেঞ্জ। উদ্ধার হয় প্রচুর বিদেশি মদ। পিকনিকে আসা দলগুলির কাছ থেকে বাজেয়াপ্ত করা হয় থার্মোকলের থালা বাটি। তবে পিকনিক পার্টিগুলিকে এজন্য সেভাবে অসুবিধেই পড়তে হয়নি। কারণ হাতের কাছি হাজির ছিল শালাপাতার তৈরি থালা,বাটি ইত্যাদি। স্থানীয় বনবস্তিবাসীরা তা খুব স্বল্পমূল্যে পিকনিকে আসা দলগুলির হাতে তুলে দেয়।শুধুমাত্র বোদাগঞ্জেই ৯০০০ শালাপাতার জিনিস বিক্রি হয়েছে।এতে খুশি হয়েছেন বনবস্তিবাসীরা।
তবে মদ না পেয়ে আড়ালে আবডালে অনেকে আক্ষেপ করলেও বেশিরভাগ মানুষই এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।বেলাকোবার রেঞ্জ অফিসার সঞ্জয় দত্ত জানিয়েছেন, পরিবেশ বাচানো এবং সাধারণ মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে আনন্দ উপভোগ করতে পারেন  তার জন্যই এই পদক্ষেপ।
picnic-spot3
পিকনিকের মরসুমে ডুয়ার্স তথা গোটা জলপাইগুড়ি জেলাতে এই ব্যাবস্থা চালু থাকবে বলে খবর প্রশাসন সুত্রে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here