নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: জাতীয় সড়কে নজরদারি বাড়াতে জলপাইগুড়ি জেলা পুলিশের কাছে এল মোবাইল ওয়াচটাওয়ার ভ্যান। আপাতত দু’টি অত্যাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন মোবাইল ওয়াচটাওয়ার ভ্যান এসেছে। এর মধ্যে একটি থাকবে জলপাইগুড়ি সদর মহকুমা পুলিশের হাতে অন্যটি থাকবে মাল মহকুমা পুলিশের হাতে।

৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক মালবাজার থেকে লাটাগুড়ি, ময়নাগুড়ি, ফালাকাটা হয়ে কোচবিহারের বক্সিরহাট সীমান্ত দিয়ে অসমের দিকে গিয়েছে। অন্য দিকে শিলিগুড়ির ফুলবাড়ি থেকে ময়নাগুড়ি পর্যন্তও জাতীয় সড়ক আছে। এই রাস্তাগুলি দিয়ে অসমের সমস্ত পণ্যবাহী ট্রাক যাতায়াত করে। এই এলাকার জাতীয় সড়কে নজরদারির বিশেষ প্রয়োজন ছিল। সে কথা মাথায় রেখেই জাতীয় সড়কে মোবাইল ওয়াচ টাওয়ার ভ্যান জরুরি হয়ে পড়েছিল।

এই গাড়িটির বিশেষত্ব হচ্ছে গাড়ির ওপরে একটি আত্যাধুনিক ক্যামেরা রয়েছে। গাড়িতে আছে একটি বড়ো এলসিডি স্কিন। ক্যামেরার কাজ হচ্ছে দ্রুতগতিতে আসা গাড়ির নম্বর প্লেটের ছবি তুলে তা স্বয়ংক্রিয় ভাবে নিজের মেমোরিতে ভরে রাখা। রাতের আন্ধকারেও এই ক্যামেরার মাধ্যমে পরিষ্কার ছবি তোলা সম্ভব। জাতীয় সড়কের কোনো জায়গায় গাড়িটি দাঁড় করিয়ে ক্যামেরা চালু রাখলে ওই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী সমস্ত গাড়ি এবং তার নম্বর প্লেটের ছবি তুলবে এই ক্যামেরা। দুস্কৃতীরা কোনো অপরাধ করে পালিয়ে যাওয়ার সময় গাড়ি এবং তার নম্বর প্লেটের ছবি তুলতে পারবে এই ক্যামেরা।

আবার কোনো সময় জাতীয় সড়কে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে, পথ অবরোধ বা কোনো গণ্ডগোল হলে এই গাড়ি পুরো ঘটনা ক্যামেরাবন্দি করে রাখবে। গাড়ির মধ্যে রয়েছে একটি কম্পিউটার। ক্যামেরায় তোলা ছবি কম্পিউটারের সাহায্যে সেখান থেকে মহকুমা এবং রাজ্য সদর ট্র্যাফিকের দফতরে সরাসরি চলে যাবে। একই ভাবে গাড়িগুলি কোথায় আছে তা জানার জন্য বসানো হয়েছে জিপিএস।

এই বিশেষ গাড়ি এবং তার মধ্যে থাকা কম্পিউটার এবং যন্ত্রপাতি চালানোর প্রশিক্ষণের জন্য জেলা থেকে একজন এএসআই এবং একজন গাড়িচালককে কলকাতায় ট্রেনিংএর জন্য পাঠানো হয়েছিল। জলপাইগুড়ি জেলা পুলিশের ট্র্যাফিকের ডিএসপি দিবাকর দাস বলেন, “গাড়ি দু’টি কিছু দিনের মধ্যে কাজ শুরু করবে।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here