ধুপগুড়ি: মঙ্গলবার ধুপগুড়ির কর্মীসভা থেকে কেন্দ্রের বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারকে এক হাত নেওয়ার পাশাপাশি তৃণমূল নেতা-কর্মীদেরও স্পষ্ট বার্তা দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। জানালেন, পঞ্চায়েত ভোটে প্রার্থী হতে দাদা-দিদি, লোকাল নেতৃত্বকে ধরে কোনো লাভ হবে না।

পঞ্চায়েত ভোটে টিকিট পাওয়ার জন্য একমাত্র যোগ্যতা

ধুপগুড়ির কর্মীসভা থেকে সে প্রসঙ্গে অভিষেক বলেন, “হয় ঠিকাদারি করুন, না হয় তৃণমূল করুন, দুটো এক সঙ্গে হবে না। সারা বাংলায় আমরা এটা বাস্তবায়িত করে দেখাব। আপনার ব্যাঙ্ক-ব্যালেন্সের উপর আপনি পঞ্চায়েত ভোটের টিকিট পাবেন না। মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতার নিরিখেই পাবেন। পঞ্চায়েত ভোট আপনি তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী তবেই হতে পারবেন, যদি মানুষের মধ্যে আপনার গ্রহণযোগ্যতা থাকে। কোনো দাদা-দিদি, লোকাল নেতৃত্বের পা ধরে লাভ নেই”।

তিনি আরও বলেন, “তৃণমূলে একটাই নেত্রী- মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর একটাই চিহ্ন জোড়া ফুল। তাঁর আদর্শে দল করতে হবে। না পারলে অন্য দল করুন, রাস্তা খোলা রয়েছে। আমরা মানুষের জন্য কাজ করতে বদ্ধপরিকর। এই জেলার মানুষ তৃণমূলকে ভোট দিয়েছেন। এই সরকার তাঁদের জন্যও কাজ করবে, যাঁরা বিজেপি, সিপিএম, কংগ্রেস-কে ভোট দিয়েছেন, তাঁদের জন্যও কাজ করবে। আমাদের কাজ, যে জায়গায় আমাদের ফল খারাপ হয়েছে, প্রত্যেকটা বুথে আমাদের সক্রিয় হতে হবে”।

মানুষ চাইছে তৃণমূলকে, তা হলে কীসের এত ভয় দলের কর্মীদের?

নিজের অভিজ্ঞতার কথা শুনিয়ে অভিষেক বলেন, “সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বললাম। ভাবলাম, তাঁরা ক্ষোভ উগরে দেবেন। কিন্তু দেখছি, তাঁরা তৃণমূলকে আপন করে নিচ্ছেন। তা হলে আমাদের কর্মীরা কেন তাঁদের কাছে যাবেন না। কীসের এত ভয়? শুধুমাত্র ঘরোয়া মিটিং, মিছিলের মতো দু-একটা কর্মসূচি করলেই হবে না। আমরা ভোটের জন্য রাজনীতি করি না। কানে শুনে নয়, চোখে দেখে ভোট দেবেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রকল্প নিয়ে অনেকেই হাসাহাসি করেছিল, কিন্তু সেই সব প্রকল্প বহাল তবিয়তে চলছে। অন্য দিকে দেখুন, বিজেপি পেট্রোল, ডিজেল, রান্নার গ্যাসের দাম, বেকারত্ব কমানোর কথা বলেছিল, তা কি করেছে? আচ্ছে দিন কি এসেছে”?

নাম বদলে কেন্দ্রীয় প্রকল্পে টাকা বন্ধ, স্বীকার করছেন বিজেপির নেতারা

প্রকল্পের নামবদল প্রসঙ্গে অভিষেক বলেন, “বিজেপির নেতারাই বলছেন, প্রধানমন্ত্রীকে তাঁরা বলেছেন প্রকল্পের নাম না পালটালে টাকা দিতে বারণ করবেন। তা হলে আপনারাই তো স্বীকার করে নিচ্ছেন, টাকা আটকে দেওয়া হচ্ছে। আমরা নই, বিজেপি নেতারাই এ কথা বলছেন। আমি বলতে চাই, বাংলার মানুষের জন্য প্রকল্প বাংলার নামে হওয়া উচিত না কি প্রধানমন্ত্রীর নামে হওয়া উচিত? পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য যদি রাস্তা করেন, তা হলে সেই রাস্তার নাম ওই সদস্যর নামে হবে না কি এলাকার নামে হবে? মুখ্যমন্ত্রী যদি নিজের প্রচার চাইতেন, তা হলে প্রধানমন্ত্রীর জায়গায় নিজের নামটা বসিয়ে দিতেন। তা কী করেছেন? তিনি বাংলার নামে করেছেন। আসলে প্রধানমন্ত্রী অহংকার, দম্ভ বাঁচাতেই বিজেপি নেতারা টাকা বন্ধ করে দিয়েছেন”!

বিজেপি ক্ষমতায় থাকলে শ্রীলঙ্কা-আফগানিস্তানের মতো অবস্থা হবে ভারতের?

মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে নিশানা করে অভিষেক বলেন, “আজ থেকে আট বছর আগেও পরিস্থিতি এরকম ছিল না। পেট্রল ১০৬ টাকা, কেরোসিন যা ১৬ টাকা প্রতি লিটার ছিল, তা বেড়ে হয়েছে ১০২ টাকা। মানুষ পেট্রল ভরতে পারছে না। গোটা ভারতবর্ষের মানুষ একই পরিস্থিতিতে। এ ভাবে চলতে থাকলে মানুষ খেতে পাবেন না। শ্রীলঙ্কা-আফগানিস্তানের মতো অবস্থা হবে। মানুষ বিজেপির বিরুদ্ধে শ্রীলঙ্কা-আফগানিস্তানের মতো পদক্ষেপ করবে”।

আরও পড়তে পারেন:

১৭ জুলাই সর্বদল বৈঠকের ডাক কেন্দ্রের, যে সব ইস্যুতে সরগরম হতে পারে সংসদের বাদল অধিবেশন

গোয়ায় আপাতত বাঁচল কংগ্রেস, তবে এখনও হাল ছাড়ছে না বিজেপি

ঘুরেফিরে সেই বিজেপি-কেই সমর্থন উদ্ধবেরও, এ বার সাংসদদের চাপ!

সকলের তথ্য দেখতে চায় সিবিআই, ৪৩ হাজার প্রাথমিক শিক্ষককে নথি জমা দেওয়ার নির্দেশ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের

শ্মশান দুর্নীতিতে গ্রেফতার কাঁথির প্রাক্তন পুরপ্রধান সৌমেন্দু অধিকারীর গাড়িচালক

সিংহের মুখের প্রকৃতি বদল! নতুন সংসদ ভবনে অশোক স্তম্ভের অবমাননা নিয়ে মোদী সরকারকে নিশানা তৃণমূলের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন