সাংবাদিক সম্মেলনে রাজ্য বিজেপির বর্তমান কমিটির বিরুদ্ধে চাঞ্চল্যকর অভিযোগ জয়প্রকাশ, রীতেশের

0

কলকাতা: রাজ্য বিজেপির নতুন কমিটি নিয়ে শুরু হওয়া বিদ্রোহের আগুন নেভা তো দূর, বরং তা আরও বেশি করে ছড়িয়ে পড়ছে। বেশি করে বিদ্রোহী হয়ে ওঠা দুই প্রাক্তন রাজ্য নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার ও রীতেশ তিওয়ারিকে কারণ দর্শানোর চিঠি দেন রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তাতেও আস্বস্ত না হয়ে দু’জনকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করেছে দল। কিন্তু তাতেও যে কাজ হচ্ছে না সেটা বুঝিয়ে মঙ্গলবার প্রকাশ্যে দলীয় নেতৃত্বকে চ্যালেঞ্জ ছুড়লেন রীতেশ, জয়প্রকাশরা।

এ দিক প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করে দু’জনেই দাবি করলেন যে, গোটা বাংলাতেই নেতা, কর্মীদের মধ্যে নতুন রাজ্য কমিটি নিয়ে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। এখন তাই বর্তমান রাজ্য নেতারা পারলে জেলা সফর করে দেখান। তাঁরা কোনও বিক্ষোভের মুখে পড়বেন কি না, সে উত্তর না দিয়ে রীতেশদের আরও দাবি, ক্ষমতা থাকলে বর্তমান নেতৃত্ব বিদ্রোহীদের রাজ্য জুড়ে যে কর্মসূচি রয়েছে, তা রুখে দেখান। জয়প্রকাশ বলেন, ‘‘রাজ্যে বিজেপিকে দুর্বল করার চেষ্টা দলেরই একাংশের, আগেই দিল্লিকে জানিয়েছি।’’

জয়প্রকাশ এ দিন বলেন, ‘‘বিজেপি একটা অংশ রাজ্যে দলকে দুর্বল করতে চায়। সেই উদ্যোগের পরিণতি ২০১৯ সালে লোকসভায় ১৮ আসনে জেতা বিজেপি খারাপ ফল করে ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে। অন্য দলের নেতাদের নিয়ে এসে বাজিমাৎ করার চেষ্টা শুরু হয়। ভিন রাজ্যের নেতাদের নিয়ে এসে বাংলা দখলের কথা বলা হয়। এটা ভুল হচ্ছে বলে আমি আগেই জানিয়েছি।”

জয়প্রকাশের থেকে এ দিন আরও বেশি আক্রমণাত্মক ছিলেন রীতেশ। তিনি বলেন, ‘‘ক’দিন আগেই রাজ্য সভাপতি সব কমিটি এবং সেল ঘোষিত ভাবে ভেঙে দিয়েছেন। তবে যে কমিটি আমাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে, তারই তো স্বস্তি নেই।”

একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘দলের তৎকাল নেতাদের অনেকে কোনো দিন রাজনৈতিক স্বার্থ ত্যাগ স্বীকার করেননি। তৃণমূলের সাহায্য নিয়ে ব্যক্তিগত উন্নতি ঘটিয়েছেন। পেশা থেকে অনেক রোজগার করেছেন। এঁরা গত বিধানসভা নির্বাচনের আগে থেকে দলের ক্ষতি করতে এসেছেন।’’

এর পাশাপাশি বিজেপির বর্তমান রাজ্য কমিটিতে কোনো মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ নেই কেন তা নিয়েও মঙ্গলবার সাংবাদিক বৈঠকে প্রশ্ন তুলেছেন জয়প্রকাশরা। তিনি বলেন, “সংখ্যালঘু মোর্চার প্রধান করা হয়েছে একজন খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিকে। কিন্তু বাংলায় ৩০ শতাংশ ভোট যাঁদের রয়েছে, সেই মুসলিমদের একজনও নেই কেন?”

দলের প্রবীণদের বাদ দেওয়া নিয়ে জয়প্রকাশের বক্তব্য, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য যাঁদের রাজ্য কমিটিতে রাখা হয়েছে, তাঁদের রাজনৈতির অভিজ্ঞতা একেবারেই কম।’’

সব মিলিয়ে রাজ্য বিজেপিতে বিদ্রোহের আগুন যেটা জ্বলতে শুরু করেছে, সেটা মঙ্গলবার দিন আরও তীব্র হল। এই আগুন সহজে নিভবে বলেও মনে হচ্ছে না।

আরও পড়তে পারেন:

দুর্ঘটনার কবলে কনভয়! অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচলেন জঙ্গিপুরের বিধায়ক জাকির হোসেন

শেয়ার বাজারে ম্যাজিক! হাজার পয়েন্ট পড়ে বেলা শেষে সাড়ে ৩০০-র উপরে থিতু হল সেনসেক্স

টোকিও অলিম্পিক ও প্যারালিম্পিকে পদকজয়ীরা একসঙ্গে গাইলেন জাতীয় সংগীত, দেখুন ভিডিও

রাজ্যপাল-স্পিকার জোর তরজা বিধানসভায়, জগদীপ ধনখরের বক্তব্যে সায় শুভেন্দু অধিকারীর

দেদার প্রতিশ্রুতিতে ‘গুরুতর সমস্যা’! কেন্দ্র, নির্বাচন কমিশনকে নোটিশ সুপ্রিম কোর্টের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন