Connect with us

ঝাড়গ্রাম

স্বনির্ভরতার লক্ষে সরকারি ছাগল বিতরণেও কারচুপির অভিযোগ

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: লোধা-শবর মহিলাদের স্বনির্ভরতার লক্ষে সরকারি ভাবে ছাগল প্রদানেও কারচুপির অভিযোগ। অ্যাকাউন্টে টাকা দেওয়ার বদলে জোর করে মৃতপ্রায়, রুগ্‌ণ ছাগল দেওয়ার প্রতিবাদে আন্দোলনে নামতে চলে‌ছে জামবনির স্ব-সহায়ক দলের শবর মহিলারা।

এলাকার বিভিন্ন সহায়ক দলের পক্ষ থেকে জেলা শাসককে লিখিত অভিযোগে প্রশাসনিক তদন্তের দাবি জানানো হয়েছে। পুরো ঘটনায় তারা কাঠগড়ায় তুলেছে স্থানীয় ব্লক প্রশাসন কে। জানা গিয়েছে, স্বনির্ভর করার লক্ষে, গত ৭ও ৮ ডিসেম্বর ঝাড়গ্রামের জামবনি ব্লকের লালবাঁধ ও দুবড়া অঞ্চল এলাকার লোধা শবরদের ছাগল প্রদান কর্মসূচি নেওয়া হয়। মহুয়া সংঘ সমিতি সমবায় লিমিটেড এই ছাগল প্রদানের বরাত পায়। দুবড়া এলাকায় ১৪টি স্ব-সহায়ক দলকে ছাগল প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়।

অভিযোগ, বাড়ি পৌঁছানোর আগেই মৃতপ্রায় ও রুগ্‌ণ অনেক ছাগল মারা যায়। এই ঘটনা ঘটতে থাকায় ৯টি দল ছাগল না নিয়েই চলে যায়। ‘সাথীহারা’ স্ব-সহায়ক দলের শবর মহিলাদের অভিযোগ, “শনিবার সকালে আমাদের দলকে ৩৫টি ছাগল দেওয়া হয়। তার মধ্যে ৫টি ছাগল রাস্তাতেই মারা যায়। আমাদের তার বাবদ ১৭ হাজার টাকার বিলে সই করিয়ে নেওয়া হয়েছে। আমরা ছাগল নিতে অস্বীকার করি। জোর করে দিয়ে দেওয়া হয়েছে”।

মা বসুন্ধরা দলের মালারানী শবর বলেন, “আমাদের মরা ছাগল দেওয়া হয়েছে, যেগুলি আছে সেগুলিরও যা অবস্থা তাতে মনে হয় মারা যাবে। এই ভাবে আমরা কী করব! নেওয়ার হয় নাও, না হয় বাড়ি চলে যাও, এই ভাবে জোর করে ছাগল দেওয়া হয়েছে। এর জন্য আমাদের দলের অ্যাকাউন্টে ১ লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা ছিল। প্রতি দলেই ৪ – ৫টি করে ছাগল মারা গেছে। বাচ্চা ও রুগ্‌ণ ছাগল। যে মূল্যের ছাগল তা দেওয়া হয়নি। এই কারচুপির বিচার আমরা চাই”।

“ব্লকে যে সমস্ত দল ছাগল নিয়ে গেছে তাদের প্রতিদিন ৪ – ৫টি করে মরছে। ছাগল উন্নত মানের কিংবা ছাগলে টাকা না দিলে আমরা লোধা শবর সমাজ দীর্ঘ আন্দোলন করব”, বলে জানান পশ্চিমবঙ্গ লোধা শবর সমাজের জামবনি ব্লক সভাপতি প্রেমচাঁদ শবর।

[ আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রী কিষান তহবিলে সরকারি অনুদান পেতে আধার বাধ্যতামূলক করল কেন্দ্র ]

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে বলে সূত্র মতে জানা গিয়েছে।

ঝাড়গ্রাম

টানাপোড়েনের অবসান ঘটিয়ে, সক্রিয় রাজনীতিতে লালগড় আন্দোলনের মুখ ছত্রধর মাহাত

বুধবার গোপীবল্লভপুরের একটি অতিথিশালায় তৃণমূলের পক্ষে সভায় তাঁকে বক্তব্য রাখতে দেখা গেল।

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: রাজনৈতিক মহলে একটা কানাঘুষো চলছিল-ই! ছত্রধর মাহাত কি শাসক তৃণমূলের হয়েই ময়দানে নামবেন? জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বুধবার গোপীবল্লভপুরের একটি অতিথিশালায় তৃণমূলের পক্ষে সভায় তাঁকে বক্তব্য রাখতে দেখা গেল।

তিনি বলেন, “২০১১ সালে বামফ্রন্টকে সরিয়ে তৃণমূল ক্ষমতায় এসেছে। তার আগের এখানকার ইতিহাস সবারই জানা। দীর্ঘদিন বাম জামানার অপশাসনের ফলে তা হয়েছিল। গোপীবল্লভপুর প্রতিবাদের মাটি। অনেক বিপ্লবী এখানে জন্মেছেন। নকশাল আন্দোলন এখানে সংগঠিত হয়েছিল।”

পরক্ষণেই তিনি বলেন, “তৃণমূল অনেকটা পিছিয়ে পড়েছে। মানুষই সব কিছুর পরিবর্তন ঘটাতে পারে। সেই মানুষের উপর ভরসা আছে। এখানে একটি সাম্প্রদায়িক দল জায়গা করছে। আমার কোনো দিন আশা করিনি এ রাজ্যে তারা ঘাঁটি গাড়বে। এ রাজ্যে কংগ্রেস, সিপিএ রাজত্ব করেছে, তৃণমূল সে ক্ষেত্রে প্রগতিশীল। এটা সবারই ভাবার দরকার যে, এমন একটা সাম্প্রদায়িক দল সামনে লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে।”

তিনি আরও বলেন,” নব্য তৃণমূল এবং বিধায়ক চূড়ামণিবাবুর মধ্য একটা সংঘাত চলছে বলে শুনেছি, আমি মনে করি তা কিছু নয়। পুরনো মানুষেরা কষ্ট করে পার্টিটাকে ধরে রেখেছে। নতুনেরা তাকে সমৃদ্ধশালী করছে। এলাকায় এর আগে ঝাড়খন্ডি দলগুলি বামেদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছে। নয়ের দশকের দিকে তারা ভালমতো প্রভাব বিস্তার করে। তাদের সম্মান দিতে হবে। কংগ্রেস, ঝাড়খণ্ডি সবাই মিলেই আন্দোলন করেছিল। তাই সবার সঙ্গে সমন্বয় করেই হাঁটতে হবে, তবেই ২০১১ সালের গৌরভ ফিরে পাব।”

এই সভা থেকে এলাকার সাতমা অঞ্চলের ৩০টি পরিবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেছেন বলে দাবি তৃণমূলের।

বিজেপির প্রতিক্রিয়া

এ ব্যাপারে বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলা সাধারণ সম্পাদক সঞ্জিত মাহাত বলেন,” ছত্রধর মাহাতকে দিয়ে সুবিধা করতে পারবে না তৃণমূল। আর উনি যেটা বলেছেন, বিজেপি মোটেই সাম্প্রদায়িক দল নয়, কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতৃত্বে অনেকই মুসলিম রয়েছেন। বরং সাম্প্রদায়িকতা করছে তৃণমূল, ইমাম ভাতা, ৩০ শতাংশ সংরক্ষণ, শুধু ভোট ব্যাঙ্কের জন্য বেশি তোল্লা দেওয়া হচ্ছে:।

লালগড় আন্দোলনের মুখ ছত্রধরকে নিশানা করে বিজেপি নেতা বলেন, “ছত্রধরবাবু তো নিজে একজন মাহাত – কুড়মি সম্প্রদায়ের মানুষ, নিজেদের জাতি-সমাজের জন্য কিছু বলছেন না কেন? ছত্রধরের আন্দোলনের সময় সবচেয়ে বিপর্যস্ত হয়েছেন এই এলাকার মাহাত আদিবাসীরা। যাঁরা মাওবাদীদের হাতে খুন হল, তাদের পরিবার কিছুই পেল না, অভিযুক্ত তারাকে সরকার চাকরি দিল। ছত্রধরের ছেলেকেও চাকরি দেওয়া হয়েছে। মানুষ সবই মনে রেখেছে।”

ছত্রধরে আগ্রহ দেখিয়েছিলেন মুকুল!

বছর দুয়েক আগে লালগড়ে একটি সভা শেষ করেই ছত্রধর মাহাতর স্ত্রী মিনতিদেবীর সঙ্গে দেখা করতে যান বর্তমানে বিজেপি নেতা মুকুল রায়। এমন সংবাদে গোটা জঙ্গলমহলের রাজনীতিতে তোলপাড় শুরু হয়ে যায়।

শোনা গিয়েছিল, ইউএপিএ আইনে গ্রেফতার হওয়া এবং যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ পাওয়ার পর বেশ কয়েক জন স্থানীয় তৃণমূল নেতা সহযোগিতার আশ্বাস দিলেও তা জঙ্গল মহলের বাতাসে মিলিয়ে যায়। এমন পরিস্থিতিতে ছত্রধরকে নিয়ে মুকুলবাবুর সক্রিয়তা নতুন করে ভাবাতে শুরু করে রাজ্য রাজনীতিকে।

Continue Reading

ঝাড়গ্রাম

হুল দিবস পালন ঘিরে বিক্ষোভের মুখে ঝাড়গ্রাম জেলা প্রশাসন, সরল অনুষ্ঠান স্থল

এর ফলে অনুষ্ঠানের স্থান পরিবর্তন হতে পারে।

সমীর মাহাত

অবশেষে এলাকাবাসীর বিক্ষোভের জেরে মাঠের বদলে হলের ভিতরেই হুল দিবসের অনুষ্ঠান করল জেলা প্রশাসন।

ঠিক ছিল, রাজ্য সরকারের আদিবাসী উন্নয়ন বিভাগ ৩০ জুন ও ১ জুলাই বিভিন্ন জেলায় হুল দিবসকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠান করবে। সেই মতো ঝাড়গ্রামের কেচন্দা প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে মঙ্গলবার ৩০ জুন বেলা ২টোর সময় এই অনুষ্ঠান আয়োজন করা হবে বলে ঘোষণা করেছিল জেলা প্রশাসন।

অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য মাঠে মঞ্চ তৈরি করা শুরু হলে, এলাকার বাসিন্দারা বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। তাঁদের দাবি, সিধু-কানুর পাশে যে ভাবে পুজো হয় পুজো হোক। বড়ো মঞ্চ করে মেলা আকারে জমায়েত হতে দেওয়া যাবে না। এই মর্মে রবিবার ও সোমবার পর্যন্ত দফায় দফায় পুলিশ-প্রশাসনের কাছে বিক্ষোভ দেখান এলাকাবাসী।

বিক্ষোভকারীরা বলেন, “এখানে হুলের স্ট্যাচু করে সিধু, কানুর পুজো হয়, সেই টাকাটা তুলতে দেওয়া হল না। সামাজিক পুজো হচ্ছে হোক, লকডাউনে বাইরের লোক ঢুকতে দেব না।” এ রকম পরিস্থিতিতে অনুষ্ঠানের স্থান বদল করে ঝাড়গ্রামের সিধু-কানু হলে নিয়ে যাওয়া হতে পারে বলে প্রশাসন সুত্রে জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, আদিবাসীদের কাছে সিধু – কানু ‘ভগবান’ তুল্য। তাই এ দিন তাঁদের মূর্তির পাদদেশে নিজস্ব আচারে পুজো করেন আদিবাসীরা। অবশেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানকে মাঠের বদলে ঝাড়গ্রামের সিধু – কানু হলে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ব্যাপারে ঝাড়গ্রাম ব্লক সভাপতি রেখা সরেন বলেন, “এটি জেলা প্রশাসনের প্রোগ্রাম। যদি পাবলিকের দ্বিমত থাকে তা হলে সেখানে অনুষ্ঠান না করাই ভালো। আমি এ কথা প্রশাসনের কর্তাদের বলেছি। এক পক্ষ বলছে তারা রথ, বাসন্তীপুজো করতে পারেনি। এখন যদি হুল দিবসের বড়ো অনুষ্ঠান হয়, সে ক্ষেত্রে হিন্দু আর ট্রাইবদের সম্পর্ক সাম্প্রদায়িক মনোমালিন্যের দিকে যেতে পারে। সবাইকেই তা মাথায় রাখতে হবে। একটি মিটিং ডেকেছিল, আমি ছিলাম। কোথায় অনুষ্ঠান হবে, তা নিয়ে যে যাঁর মত দেন। কেউ বলেন সাপধরা, সাঁওতালডিহা, মানিকপাড়া ইত্যাদি। আমি বললাম এই মুহূর্তে বাইরে অনুষ্ঠান করলে সমস্যা হতে পারে। কেচন্দার ওখানে কোড়া সম্প্রদায়ের ১০-১২ মিলে হুল দিবসে পুজো করে। তারা পুজো করতে চাইছে, তা হলে সেখানেই পুজো হোক। এ পর্যন্তই। পাশের পশ্চিম মেদিনীপুরেও প্রদ্যোত স্মৃতি ভবনে এই অনুষ্ঠান হচ্ছে।”

শেষমেশ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই মাঠের মূর্তিতে মাল্যদান ও সবুজ পতাকা উত্তোলন করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি হয় ঝাড়গ্রামের সিধু কানু হলে। এই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

অবশ্য সরকারের অনুষ্ঠান সূচিপত্রে বলা হয়েছে, “করোনা সংক্রান্ত সমস্ত নির্দেশিকা মেনে হুল দিবস ২০২০ পালন করা হবে।”

Continue Reading

ঝাড়গ্রাম

সেতু মেলেনি, ২০০ ফুট লম্বা সাঁকো তৈরি করে ফেললেন জামবনির আদিবাসীরাই

হাড়ভাঙা পরিশ্রমে একপ্রকার ‘বিপ্লব’-এর আদলেই আদিবাসীরা গড়েছেন বলেই, সাঁকোর নাম তাঁরা দিয়েছেন ‘হুল’

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: ঐতিহাসিক ‘হুল দিবস’ উদযাপনের আগেই ঝাড়গ্রামের (Jhargram) জামবনিতে উদ্বোধন হয়ে গেল ‘হুল সাঁকো’র। ডুলুং নদীর উপর চিল্কীগড় ও উত্তরাশোল এলাকার মাঝে কারোর সাহায্য না নিয়েই স্থানীয় আদিবাসীরাই এই সাঁকো বানিয়েছেন। ২০০ ফুট লম্বা এই সাঁকো হাড়ভাঙা পরিশ্রমে একপ্রকার ‘বিপ্লব’-এর আদলেই আদিবাসীরা গড়েছেন বলে, সাঁকোর নাম তাঁরা দিয়েছেন ‘হুল’। সাঁওতালি ভাষায় এর অর্থ বিপ্লবের সমান।

রবিবার আদিবাসীদের পুজো রীতি মেনেই সাঁকোর উদ্বোধন হল। একেবারে উৎসবের মেজাজে, প্রায় ৫০০ জনের খিচুড়ি আয়োজনের মাধ্যমে। উল্লেখ্য ,প্রতিবছরই বর্ষাকালে ডুলুং নদীতে জল বাড়লে জামবনি ব্লকের উত্তরাশোল, জরকাশোল, বদাকাটা, হড়কি, পালবাঁশি-সহ ২৫-৩০টি গ্রামের সঙ্গে জামবনি ব্লক, চিল্কীগড় স্বাস্থ্যকেন্দ্র এমনকী জেলার সঙ্গে সব রকমের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এই এলাকাবাসীদের দুবড়া জামবনি ঘুরপথ ধরতে হয়।

অভিযোগ, সেতু নির্মাণ-সহ একাধিক সমস্যা নিয়ে তাঁরা বহুবার প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের কাছে দরবার করেছিলেন। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। তাই কারো উপর ভরসা না করেই এ বারে বর্ষা নামার আগেই তিন মাস খেটে, বাঁশ সংগ্রহ করে সেতু বানিয়েছেন তাঁরা।

ওয়াকিবহাল মহলের একাংশের মতে, এই ঘটনা আসলে এলাকার উন্নয়ন ও সমস্যা নিয়ে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের যে বিন্দুমাত্র হেলদোল নেই, তাই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন এলাকার আদিবাসীরা। অবশ্য, এ ব্যাপারে জামবনি বিডিও সৈকত দে সংবাদ মাধ্যমকে জানান, “আমরা ওখানে সেতু নির্মাণের জন্য দু’বার ইঞ্জিনিয়ার দিয়ে পর্যবেক্ষণ করিয়েছি। সেই রিপোর্ট উল্লেখ-সহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে যাবতীয় তথ্য পাঠিয়েছি।”

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
দেশ4 mins ago

সাড়ে আট কোটি কৃষকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৭,১০০ কোটি টাকা পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

দেশ3 hours ago

করোনাভাইরাস: ২১ লক্ষ ছাড়াল আক্রান্তের সংখ্যা, বাড়ল সুস্থতার হার

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৬৪৩৯৯, সুস্থ ৫৩৮৭৯

দেশ4 hours ago

অন্ধ্রপ্রদেশের কোভিড কেয়ার সেন্টারে আগুন, মৃত কমপক্ষে ৭ রোগী

বিনোদন5 hours ago

মহামারির আবহে নতুন রূপে এল ‘একলা চলো রে’

বিনোদন5 hours ago

হাসপাতালে ভরতি সঞ্জয় দত্ত, তবে করোনা নেগেটিভ

রাজ্য6 hours ago

বেসরকারি হাসপাতালে ভরতির সময় অগ্রিমের পরিমাণ বেঁধে দিল রাজ্য স্বাস্থ্য কমিশন

দেশ13 hours ago

বাংলাদেশের উন্নয়ন মানেই ভারতের উন্নয়ন, বললেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ৬৪৩৯৯, সুস্থ ৫৩৮৭৯

দেশ1 day ago

বিমান দুর্ঘটনা লাইভ: উদ্ধার ব্ল্যাক বক্স, উদ্ধারকারীদের কোয়ারান্টাইনে যাওয়ার নির্দেশ শৈলজার

দেশ2 days ago

১ সেপ্টেম্বর থেকেই স্কুলের ঘণ্টা বাজানোর কেন্দ্রীয় প্রস্তুতি

গাড়ি ও বাইক3 days ago

চলতি মাসে যে ৫টি নতুন মোটর বাইক বাজারে আসছে

কলকাতা1 day ago

ঢাকায় পথদুর্ঘটনায় নিহত পর্বতারোহী, শোকস্তব্ধ কলকাতার পাহাড়প্রেমীরা

রাজ্য3 days ago

রাজ্যে প্রথম বার এক দিনে ২৫ হাজার টেস্ট, আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড হলেও সুস্থতার হারে স্বস্তি

প্রযুক্তি3 days ago

হ্যাকার এবং সাইবার অপরাধীরা করোনার সুযোগ নিচ্ছে : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

বিজ্ঞান3 days ago

করোনা রোগীর মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে প্লাজমা থেরাপির কোনো ভূমিকা নেই, বলেছে এইমসের অন্তর্বর্তী বিশ্লেষণ

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

কেনাকাটা3 days ago

ঘর ও রান্নাঘরের সরঞ্জাম কিনতে চান? অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ৫০% পর্যন্ত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অ্যামাজন প্রাইম ডিলে রয়েছে ঘর আর রান্না ঘরের একাধিক সামগ্রিতে প্রচুর ছাড়। এই সেলে পাওয়া যাচ্ছে ওয়াটার...

কেনাকাটা3 days ago

এই ১০টির মধ্যে আপনার প্রয়োজনীয় প্রোডাক্টটি প্রাইম ডে সেলে কিনতে পারেন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : চলছে অ্যামাজনের প্রাইমডে সেল। প্রচুর সামগ্রীর ওপর রয়েছে অনেক ছাড়। ৬ ও ৭  তারিখ চলবে এই সেল।...

কেনাকাটা4 days ago

শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল, জেনে নিন কোন জিনিসে কত ছাড়

খবরঅনলাইন ডেস্: শুরু হল অ্যামাজন প্রাইম ডে সেল। চলবে ২ দিন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ তারিখ থাকছে এই অফার।...

things things
কেনাকাটা1 week ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা2 weeks ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা3 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা3 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা4 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

নজরে

Click To Expand