এনআরসি বিরোধী যাত্রার সূচনায় কানহাইয়া কুমার

0
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: বেশ কয়েকটি গণসংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত নাগরিক পঞ্জি বিরোধী মুক্ত মঞ্চের ডাকে এনআরসি বিরোধী যাত্রার সূচনা করবেন কানহাইয়া কুমার। মঞ্চ সূত্রে জানা গিয়েছে, আগামী ১৫ নভেম্বর জেএনইউর প্রাক্তন ছাত্রনেতা কানহাইয়ার উপস্থিতিতেই এই যাত্রার সূচনা হবে।

সোমবার মঞ্চ জানায়,আগামী ১৫ নভেম্বর দার্জিলিং থেকে শুরু হবে এনআরসি বিরোধী যাত্রা। পাহাড় থেকে শুরু হওয়া ওই কর্মসূচি ধীরে ধীরে এগোবে সাগরের দিকে। দুই দিনাজপুর, মালদহ, মুর্শিদাবাদ, বীরভূম, বর্ধমান, নদিয়া, হাওড়া, হুগলি, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণার কাকদ্বীপ হয়ে আগামী ৮ ডিসেম্বর কলকাতায় পৌঁছাবে যাত্রা। পর দিন ধর্মতলায় হবে এনআরসি বিরোধী সমাবেশ।

গত আগস্টে প্রকাশিত হয়েছে অসমের এনআরসি তালিকা। অভিযোগ, চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ পড়েছে ১৯ লক্ষের বেশি মানুষের নাম। বেশ কয়েক মাস ধরে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব বারবার বলে আসছেন, বাংলায় এনআরসি চালু করা হবে। এর পর থেকেই বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী জেলাগুলিতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে, কিছু মানুষের আত্মহত্যা এবং বেশ কয়েকজেনর আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে মারা যাওয়ার কথা শোনা যায়।

মঞ্চের আহ্বায়ক প্রসেনজিত বসু বলেন,”আমরা ১৫ নভেম্বর দার্জিলিং থেকে যাত্রা শুরু করব এবং ৮ ডিসেম্বর এটি কাকদ্বীপে শেষ হবে। ৯ ডিসেম্বর আমাদের কলকাতায় এনআরসি-র বিরুদ্ধে একটি বিশাল জনসভা করারও পরিকল্পনা রয়েছে”।

Kanhaiya Kumar
কানহাইয়া কুমার। ফাইল ছবি

জানা গিয়েছে, মঞ্চের অন্তর্গত প্রায় ৫০টি সদস্য সংগঠন উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর, মালদহ, মুর্শিদাবাদ, পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনার মধ্য দিয়ে যাত্রায় শামিল হবে।

ফোরামের আহ্বায়ক বলেন, “আমাদের দাবিগুলির মধ্যে রয়েছে অসমের এনআরসি থেকে বাদ পড়া ১৯ লক্ষ মানুষের নাগরিকত্ব, সেই রাজ্যের সমস্ত আটক শিবির বন্ধ করা, জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধন (এনপিআর), এনআরসি এবং অ্যান্টি-রিফিউজি সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডমেন্ট অ্য়াক্ট, ২০০৩ বাতিল করা,পাশাপাশি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ২০১৬ প্রত্যাহার করা”।

[আরও পড়ুন: এনআরসি নিয়ে চাঞ্চল্যকর মন্তব্য প্রধান বিচারপতির]

প্রসেনজিতের অভিয়োগ, “রাজনীতিবিদরা এনপিআর নিয়ে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন। তাঁরা বলছেন, এনপিআর হল আদমসুমারির মতোই। আসলে এই এনপিআর হল ন্যাশনাল রেজিস্টার অব ইন্ডিয়ান সিটিজেনের (এনআরআইসি) দিকে প্রথম পদক্ষেপ”।

------------------------------------------------
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.