ramananda's birthday observed
indrani sen
ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া: মঙ্গলবার পালিত হল সাংবাদিক দিবস। এ দিন বিশিষ্ট  সাংবাদিক রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়ের ১৫৪তম  জন্মদিন। এই উপলক্ষে বাঁকুড়ার প্রেস ক্লাব এবং বিভিন্ন সংগঠন মহা সমারহে পালন করে।

বাঁকুড়া ডিসট্রিক্ট প্রেস ক্লাব তথা বাঁকুড়া জেলার সাংবাদিকদের রাজ্য সরকারের কাছে  দীর্ঘ দিনের দাবি ছিল বাঁকুড়ার ভূমিপুত্র বিশিষ্ট সাংবাদিক রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়ের জন্মদিনটিকে যেন ‘সাংবাদিক দিবস’ হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। এ বছরই রাজ্য সরকার ও তথ্য সংস্কৃতি দফতর এই দাবি মেনে নেয় ও আজকের এই দিনটিকে ‘সাংবাদিক দিবস’ হিসাবে স্বীকৃতি দেন।

রামানন্দ চট্টোপাধ্যায় বাঁকুড়ার পাঠকপাড়ার এক সম্ভ্রান্ত ব্রাহ্মণ পরিবারে ১৮৬৫-এর ২৯ মে জন্মগ্রহণ করেন। ছোটো থেকেই অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন। তিনি  ‘প্রবাসী’ ও ‘মডার্ণ রিভিউ’ পত্রিকাদ্বয়ের প্রতিষ্ঠাতা-সম্পাদক। এলাহাবাদ থেকে ১৯০১ সালে ‘প্রবাসী’ এবং কলকাতা থেকে  ১৯০৭ সালে ‘মডার্ণ রিভিউ’ পত্রিকার সূচনা করেন রামানন্দ। পরাধীন ভারতে আধুনিক সাংবাদিকতার মৌলিক প্রসার ঘটান রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়। তিনি ‘ধর্মবন্ধু’, ‘দাসী’ , ‘প্রদীপ’ এবং ‘মুকুল’, এই চারটি পত্রিকার সম্পাদক হিসেবেও দীর্ঘকাল কাজ করেছেন। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে তাঁর বিশেষ ঘনিষ্ঠতা ছিল। রামানন্দ চট্টোপাধ্যায়ের বিশেষ উদ্যোগে রবীন্দ্রনাথ বাঁকুড়ায় আসেন। বিশিষ্ট ভাস্কর রামকিঙ্কর বেজের প্রতিভা স্বীকৃতি পায় রামানন্দের কাছে।

পত্রিকার সম্পাদনা ছাড়াও তিনি বেশ কিছু বাংলা ও ইংরেজি গ্রন্থ রচনা করেন । ১৯২৬ খ্রিস্টাব্দে জেনিভায় অনুষ্ঠিত লিগ অব নেশনস্-এর বিশেষ অধিবেশনে তিনি ভারতবর্ষের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। ১৯৪১-এ রবীন্দ্রনাথের মৃত্যুর পর তিনি বিশ্বভারতীর আশ্রমিক সংঘের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৪৩ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর এই সাংবাদিকের মৃত্যু হয়।

ramananda's birthdayমঙ্গলবার যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে বাঁকুড়ার সাংবাদিকরা এই দিনটি পালন করেন। বাঁকুড়া ডিসট্রিক্ট প্রেস ক্লাব ও বাঁকুড়া তথ্য সংস্কৃতি দফতরের উদ্যোগ এ দিন সকালে একটি প্রভাতফেরির আয়োজন করা হয়। বাঁকুড়ার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনও নানা অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে রামানন্দর জন্মদিন পালন করেন। বাঁকুড়া জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরের অধিকারিক রানা দেবদাশ বলেন, আজকের দিনটি বাঁকুড়ার সমস্ত সাংবাদিক ভাইবোনদের সঙ্গে পালন করতে পেরে ভালো লাগছে। নিদর্শন সাহিত্য পত্রিকার সম্পাদক বিপ্লব বরাট ভারত-গৌরবের অবহেলিত বাড়িটি  হেরিটেজ বিল্ডিং হিসেবে স্বীকৃতি ও সংস্কার করে একটি সংগ্রহশালা  করার আবেদন জানান। এ দিনের অনুষ্ঠানে আরও যাঁরা উপস্থিত ছিলেন তাঁরা হলেন বাঁকুড়ার পৌরপ্রধান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত,  প্রেস ক্লাবের সম্পাদক সন্তোষ ভট্টাচার্য, সভাপতি সুনীল দাস, উপ-পৌরপ্রধান দিলীপ আগরওয়াল, বিশিষ্ট সাংবাদিক-শিক্ষক সাধন মণ্ডল প্রমুখ ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here