press conference of atul roy
অয়ুল রায়ের সাংবাদিক সম্মেলন। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: কামতাপুর ভাষা অ্যাকাডেমির ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দিলেন কামতাপুর প্রগ্রেসিভ পার্টির সভাপতি অতুল রায়। বুধবার তিনি তার পদত্যাগপত্রটি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে পাঠিয়ে দেন। এ দিনই জলপাইগুড়ি প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক বৈঠক ডেকে তিনি তাঁর সিদ্ধান্তের কথা জানান। আভাস দিলেন আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে সমর্থন করতে পারেন। তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে অতুল রায় তাদের সমর্থন করলেন কি করলেন না তাতে তাদের কিছু যায় আসে না।

মুখ্যমন্ত্রীকে লেখা পদত্যাগপত্রে অতুল রায় তার পদত্যাগের কারণ হিসেবে দুটি বিষয় উল্লেখ করেছেন। ১)কামতাপুরী ভাষাকে অষ্টম তফশিলে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য বিজেপির সভাপতি অমিত শাহর প্রতিশ্রুতি। ২) কামতাপুরী ভাষা নিয়ে প্রস্তাব রাজ্য বিধানসভায় পাশ হওয়ার পর রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রাথমিক স্তরে পঠনপাঠনের উদ্যোগ না নেওয়ায় তার পার্টির নিচু তলার কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ।

২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে অতুল রায়ের কামতাপুর প্রগ্রেসিভ পার্টি বিজেপিকে সমর্থন করেছিল। কারণ তখন বিজেপির পক্ষ থেকে তাদের প্রতিশ্রূতি দেওয়া হয়েছিল যে তাঁরা ক্ষমতায় আসলে কামতাপুরী ভাষাকে অষ্টম তফশিলে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। ক্ষমতায় আসার পর বিজেপি সেই প্রতিশ্রুতি পালন করেনি।

রাজ্য সরকারে কাছ থেকে স্বীকৃতি আদায়ের লক্ষ্যে কামতাপুর প্রগ্রেসিভ পার্টি ২০১৬ সালে বিধানসভার নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসকে সমর্থন করে। রাজ্য সরকার তাদের কথা রাখে এবং রাজ্যের বিধানসভায় কামতাপুরী ভাষা সংক্রান্ত প্রস্তাব পাশ হয়। মুখ্যমন্ত্রী কামতাপুরী ভাষা অ্যাকাডেমি গঠন করে দেন। কিন্তু প্রাথমিক স্তরে পঠনপাঠন চালু করা হয়নি। সেটা অবশ্য সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।

আরও পড়ুন বীরভূমে অনেক শ্মশান আছে: অনুব্রত

ইতিমধ্যে এ মাসের ১ ও ২ তারিখে কামতাপুর প্রগ্রেসিভ পার্টির এক প্রতিনিধিদল দিল্লিতে গিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক করেন। অতুল রায় জানান, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ প্রতিশ্রুতি দেন যে এ মাসের ৭ তারিখে কোচবিহারে বিজেপির রথযাত্রার সূচনায় আয়োজিত জনসভায় কামতাপুরী ভাষাকে অষ্টম তফশিলে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি ঘোষণা করবেন।

অতুল রায় বলেন, “রাজ্য সরকার স্বীকৃতি দিলেও জাতীয় স্তরে স্বীকৃতির বিষয়টি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। দেশের ২২টা ভাষার সঙ্গে কামতাপুরী ভাষাও অষ্টম তফশিলে অন্তর্ভুক্ত হবে। এই সিলমোহর পাওয়া আমাদের কাছে অনেক বড়ো বিষয়।” তিনি রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করে আরও বলেন, “২০১৯ সালে কামতাপুরী ভাষায় যাতে প্রাথমিক স্তরে পঠনপাঠন চালু করা হয় তা আমাদের অন্যতম দাবি ছিল। কিন্তু বাস্তবে বিষয়টি কাগজেকলমে সীমাবদ্ধ রয়ে গিয়েছে।”

তা হলে কি তাঁরা আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপিকে সমর্থন করবেন? অতুল রায় বলেন, “অমিত শাহর ঘোষণার পর আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।”

তৃণমূল কংগ্রেসের জলপাইগুড়ির জেলা সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তী অতুল রায়ের বক্তব্য প্রসঙ্গে বলেন, “অতুল রায়কে মুখ্যমন্ত্রী সন্মান জানিয়েছিলেন। ওঁকে কামতাপুরী ভাষা এবং বাসিন্দাদের স্বার্থে কাজ করার সুযোগ দিয়েছিলেন। তিনি কিছুই করেননি। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে আমাদের দলের বিরুদ্ধে বহু প্রার্থী দাঁড় করিয়েছিলেন। একজনও জিততে পারেনি। এখন উনি বিজেপিকে সমর্থনের পরিকল্পনা করছেন। ওঁর সমর্থন না পেলে আমাদের কিচ্ছু যাবে আসবে না।”

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here