ওয়েবডেস্ক: প্রথমে ছিল ‘বিফ।’ সেখান থেকে হল ‘বিপ।’ কিন্তু তাতেও কাজ হল না। হুমকির মুখে বাতিল হয়ে গেল কলকাতার একটি বিশেষ খাদ্য উৎসব ‘বিফ ফেস্টিভাল’। ২৩ জুন মধ্য কলকাতার সদর স্ট্রিটের একটি হোটেলে ‘কলকাতা বিফ ফেস্টিভ্যালে’র আয়োজন করেছিল দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল নোট নামে একটি সংস্থা।

কয়েক হাজার মানুষ গোমাংসের বিবিধ পদ আস্বাদন করতে চেয়ে যোগাযোগ করেন উদ্যোক্তাদের সঙ্গে। কিন্তু এর পরেই আসরে নামেন ‘হিন্দুত্ববাদীদের’ একাংশ, এমনটাই অভিযোগ দ্য অ্যাক্সিডেন্টাল নোটের। এই ধরনের উৎসবের মধ্যে দিয়ে হিন্দুদের ভাবাবেগে আঘাত লাগছে বলে দাবি করা হয়। হুমকি এবং চাপের মুখে পড়ে একটি সমঝোতায় আসে দু’পক্ষ। ‘বিফ ফেস্টিভ্যাল; পরিবর্তিত হয় ‘বিপ ফেস্টিভ্যাল’-এ।

আরও পড়ুন নীতি আয়োগে যাবেন কি? সিদ্ধান্ত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রাথমিক ভাবে তাতে কাজ হয়। কারণ শুধু গোমাংসই নয়, উদ্যোক্তারা জানান এই উৎসবে পর্কেরও নানাবিধ আয়োজন থাকবে। কিন্তু তাতেও শেষরক্ষা হয়নি। বৃহস্পতিবার থেকে ফের নতুন করে হুমকি ফোন আসতে শুরু করে। অ্যাক্সিডেন্টাল নোটের অন্যতম কর্তা অর্জুন করের অভিযোগ, বিফ ফেস্টিভ্যাল বাতিল করা না হলে তাঁদের সপরিবার খুন করা হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়। এর পর শুক্রবার তাঁরা উৎসবটি বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেন।

যদিও অর্জুনের মতে, তাদের মনে হয়েছে বেশির ভাগ হুমকি ফোন শুধুমাত্র ভয় দেখানোর জন্য ইচ্ছাকৃত ভাবে করা হয়েছে। তবুও উৎসবে অংশগ্রহণকারী মানুষদের নিরাপত্তার কথা ভেবে আপাতত এই উৎসব বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা। তবে ভবিষ্যতে কলকাতায় এই খাদ্য উৎসব হবেই বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

গোমাংস নিয়ে এই ধরনের হুমকির সঙ্গে কলকাতার কোনো সম্পর্কই এত দিন ছিল না। সাধারণত উত্তর ভারতের শহরগুলিতেই এই ধরনের অভিযোগ উঠত। এ বার তাতে নাম লেখাল কলকাতাও। নিঃসন্দেহে শহরের ইতিহাসে অন্যতম অন্ধকার অধ্যায়।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here