কলকাতা : কলকাতাকে সাজিয়ে তোলার কাজ বেশ কিছু দিন আগে থেকেই শুরু করেছে কলকাতা পুরসভা। এবার সেই কাজের গতি আরও বাড়তে চলেছে। কলকাতা পুরসভা সূত্রের খবর, এবার থেকে সকালের পাশাপাশি রাতেও জঞ্জাল সাফাই-এর কাজ করা হবে। রাতে জঞ্জাল সাফাই -এর কাজ পরীক্ষামূলক ভাবে চালু করা হয়েছিল দক্ষিণ কলকাতার কালীঘাট, আলিপুর ও গড়িয়াহাটের বেশ কিছু এলাকায়। সেই কাজে সাফল্য আসার পরেই, গোটা কলকাতা জুড়ে তা চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সূত্রের খবর, কী ভাবে শহর জুড়ে সাফাই কাজ হবে, তা ঠিক করতে পুলিশ এবং পুরসভার বোরো চেয়ারম্যানরা-সহ অন্য অফিসারদের নিয়ে বৈঠক করেন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। ঠিক হয়, শহর পরিষ্কার রাখা নিয়ে শহরবাসীকে সচেতন করার কাজও শুরু হবে। তা ছাড়া, কলকাতা পুরসভার যে কোনো বাজার এলাকায় সাফাই-এর পরই দ্রুত ময়লা জমে যায়। সে বিষয়েও বেশ কিছু ব্যবস্থা নেবে পুরসভা।
এখন রাত ৮টার পরে কালীঘাট, আলিপুর চিড়িয়াখানা থেকে গড়িয়াহাট বাজার পর্যন্ত এলাকায় জমে থাকা জঞ্জাল সাফ করছেন সাফাই কর্মীরা। কোনো রকম অশান্তি এরাতে সঙ্গে থাকছেন স্থানীয় থানার পুলিশও।
এরপর থেকে  শহরের বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় স্থানীয়দের পছন্দমত স্থানে ২৪০ লিটারের ডাস্টবিন বসানো হবে। পুলিশের পক্ষ থেকে এলাকার হকার ও ব্যবসায়ীদের জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে, রাতে দোকানপাট বন্ধ করার সময়ে জঞ্জাল রাস্তায় না ফেলতে। পুরকর্তাদের ধারণা, এই অভ্যাস কিছু দিন চললে সকলেই কিছুটা সজাগ হবেন। পুরসভার এক আধিকারিক জানান, তাতেও কাজ না হলে ট্রেড লাইসেন্স আটকে দেওয়ার মতো কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে।
পুরসভার পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই বোরো চেয়ারম্যানদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, তাঁদের এলাকায় কোথায় কত ডাস্টবিন লাগবে তা ৩১ জানুয়ারির মধ্যে জঞ্জাল অপসারণ দফতরে জানাতে হবে। ১০ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সেগুলি গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় (যেখানে বাজার ও হকারের সংখ্যা বেশি) রাখা হবে। জানা গেছে, শ্যামবাজার, হাতিবাগান, নিউ মার্কেট, ধর্মতলা, বড়বাজার-সহ একাধিক স্থানে খুব শীঘ্রই এই নৈশ জঞ্জাল সাফাই অভিযান শুরু হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here