G D Birla
বাবা-মায়ের সঙ্গে কৃত্তিকা

ওয়েবডেস্ক: দক্ষিণ কলকাতার রানিকুঠির জি ডি বিড়লা স্কুলের কৃতী ছাত্রী কৃত্তিকা পালের মৃত্যু মামলায় স্বতঃপ্রণোদিত পদক্ষেপ গ্রহণ করল কলকাতা হাইকোর্ট। বিচারপতি প্রতীকপ্রকাশ বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের উদ্দেশে বলেন, কৃত্তিকার মৃত্যুর পর তদন্ত কোন পর্যায়ে পৌঁছেছে তার রিপোর্ট আদালতকে মুখবন্ধ খামে জানাতে হবে। একই সঙ্গে ওই ছাত্রীর বাবা-মাকেও নোটিশ পাঠায় আদালত।

স্কুলে পড়ুয়াদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে একাধিক নির্দেশ দেয় আদালত। এ ব্যাপারে উঠে আসে ২০১৭ সালের একটি ঘটনাও। সে বারও ঘটনাস্থল ছিল একই। শিশু নিগ্রহের ঘটনায় উত্তাল হয়ে ওঠে কলকাতা। এ বিষয়ে বিচারপতি মন্তব্য করেন, “একই ঘটনা বারবার চলতে পারে না”। একই সঙ্গে শৌচালয়ের পর্যবেক্ষণ এবং নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার কথাও বলে আদালত।

একই সঙ্গে পড়ুয়ার অভিভাবকদের মধ্যেও গাফিলতি রয়ে যাওয়ার বিষয়টি তুলে ধরতে চায় আদালত। দিনের পর দিন যদি মেয়ে অবসাদে ভুগতে থাকে, তা হলে অভিভাবকরা কেন যত্নবান হলেন না? আগে থেকেই উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হলে এ ধরনের সাংঘাতিক ঘটনা ঘটত কি? এমন সমস্ত প্রশ্নেরই উত্তর পেতে চায় আদালত।

প্রসঙ্গত, স্কুলের শৌচাগার থেকে উদ্ধার হয়েছিল কৃত্তিকার রক্তাক্ত দেহ। উদ্ধারের পর আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর তাঁর মৃত্যু হয়। তাঁর মুখে প্লাস্টিকের প্যাকেট শক্ত করে জড়ানো ছিল। যে কারণে রহস্য ক্রমশ জমাট বাঁধে।

G D Birla

তবে ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট জানা যায়, শ্বাসরোধ হয়েই মৃত্যু হয় তাঁর।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন