দফতরে আলোচনায় সিবিআই-কর্তারা, সম্ভবত শনিবারই জেরা রাজীব কুমারকে

ওয়েবডেস্ক: কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমারের আইনি ‘রক্ষাকবচ’ প্রত্যাহার করেছে কলকাতা হাইকোর্ট। এ দিন আদালতের রায় রাজীবের বিপক্ষে য়ায়। এর মধ্যেই জল্পনা ছড়িয়েছে, যে কোনো মুহূর্ত রাজীবকে গ্রেফতার করতে পারে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। তবে সিবিআই সূত্রে খবর, হাইকোর্টের রায় ঘোষণার পরই নিজেদের দফতরে আলোচনায় বসেছেন সিবিআই-কর্তারা। সম্ভবত আগামী শনিবার রাজীবকে হাজিরার জন্য তলব করবে তদন্তকারী সংস্থা।

সারদা আর্থিক কেলেঙ্কারি মামলায় সিবিআইয়ের গ্রেফতারি এড়াতে হাইকোর্টে মামলা করেছিলেন রাজীব। গত ৩০ মে উচ্চ আদালত তাঁকে আইনি রক্ষাকবচ দেয়। তাঁর গ্রেফতারির উপর অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ জারি করা হয়। একাধিক বার সেই রক্ষাকবচের মেয়াদ বাড়ায় হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আদালতের নির্দেশ মেনে সিবিআই দফতরে হাজিরা দেন রাজীব। তার পরেও সিবিআইয়ের তরফে তদন্তে অসহযোগিতার অভিযোগ ওঠে রাজীবের বিরুদ্ধে।

তবে শুক্রবার তার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর এই মামলায় রায়দানে আর বিলম্ব করেননি বিচারপতি। আগামী সপ্তাহে এই মামলার রায় ঘোষণার কথা থাকলেও এ দিনই রাজীবের গ্রেফতারির উপর স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করে নেয় বিচারপতি মধুমতী মিত্রের এজলাস। তিনি বলেন, রক্ষাকবচের মেয়াদ বাড়ানো হলে তদন্তে হস্তক্ষেপ করা হয়। যা আদালতের এক্তিয়ারের বাইরে।

স্বাভাবিক ভাবে এর পরই জল্পনা ছড়ায়, যে কোনো মুহূর্তে রাজীবকে গ্রেফতার করতে পারে সিবিআই। তবে আদালত স্পষ্ট করেই জানিয়ে দিয়েছে, ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪১এ ধারায় নোটিশ পাঠানো মানেই গ্রেফতারি নয়। কিন্তু হাজিরা না দিলে তা গ্রেফতারির পর্যায়ে পড়তে পারে। অন্য দিকে সিবিআই-কেও আইনি প্রক্রিয়া মেনে তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা স্মরণ করায় আদালত।

সিবিআই সূত্রে খবর, হাইকোর্টের রায় ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই তড়িঘড়ি সারদা মামলা নিয়ে আলোচনায় বসেছেন সিবিআই আধিকারিকরা। এ দিনই রাজীবকে নোটিশ পাঠানো হতে পারে। আগামী শনিবার সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দফতরে তাঁকে জেরার জন্য ডাকা হতে পারে। এমনকী, তদন্তের স্বার্থে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা রাজীবকে গ্রেফতার করার পথেই যেতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.