প্রতি ১০ জনে চার জন কোভিড পজিটিভ কলকাতায়, এটা ভালো কিছুরও ইঙ্গিতবাহী

0

কলকাতা: গত জানুয়ারিতে তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার সময় এবং বর্তমান পরিস্থিতি অনেকটাই মিলে যাচ্ছে কলকাতার ক্ষেত্রে। দেশের বড়ো শহরগুলির মধ্যে সব থেকে বেশি সংক্রমণের হার রেকর্ড করছে কলকাতা। বর্তমানে কলকাতায় প্রতি ১০ জনের মধ্যে চার জনই কোভিড পজিটিভ হচ্ছেন। এটা কিছুটা উদ্বেগজনক পরিস্থিতি হলেও একটা ভালো ব্যাপারেরও ইঙ্গিতবাহী।

গত জানুয়ারিতে দেশে যখন তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ে, তখন সংক্রমণের নিরিখে কলকাতার হাল ছিল ভয়াবহ। সাপ্তাহিক সংক্রমণের হার বাড়তে বাড়তে ৬০ শতাংশে চলে গিয়েছিল। অর্থাৎ করোনাভাইরাস কার্যত কলকাতার গোটা জনসংখ্যাকে কাবু করেছিল। ঠিক সেই কারণেই সেই করোনাস্ফীতির হাত থেকে দ্রুত মুক্তিও মিলেছিল। ওমিক্রনের সেই স্ফীতি মাত্র সপ্তাহ দুয়েক স্থায়ী ছিল শহরে।

এ বারও পরিস্থিতি কতকটা একই রকম, কিন্তু আরেকটু ভালো। এমনই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। কলকাতায় বর্তমানে সংক্রমণের হার চল্লিশ শতাংশ চলছে। এর মানে হল এ বারও করোনা কলকাতার জনসংখ্যার একটা বড়ো অংশকেই নিজের কব্জায় নিয়ে চলে এসেছে। তবে এ বার হয়তো সংক্রমণের হার ৬০ শতাংশে যাবে না যে হেতু প্রচুর মানুষ সদ্য তাঁদের বুস্টার ডোজের কোটা শেষ করেছেন।

amazon

করোনা দাপট দেখালেও স্বাস্থ্যব্যবস্থায় কোনো টান পড়েনি এ বারও। অ্যাম্বুলেন্সের আওয়াজ নগণ্য, হাসপাতালগুলির শয্যা প্রায় সবই খালি, মৃত্যুর সংখ্যা তো তৃতীয় ঢেউয়ের তুলনাতেও অনেক কম। সব মিলিয়ে জ্বরজ্বালা ছড়ালেও পরিস্থিতি বেশি খারাপ নয় কলকাতায়।

তবে যে হেতু কলকাতার বড়ো অংশেই করোনা ছড়িয়ে পড়েছে, তাই এ বারও এই স্ফীতির হাত থেকে দ্রুত মুক্ত পাওয়া যাবে বলে আশা করা যায়। ইতিমধ্যে দিল্লি এবং মুম্বইয়ে সংক্রমণ চূড়া অতিক্রম করে ফের কমতে শুরু করে দিয়েছে ব্যাপক ভাবে। কলকাতায় পরের সপ্তাহে সেই ধারা প্রতিফলিত হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

আরও পড়তে পারেন

দশ দিন আগেই ছিল দু’হাজারে, সেই দিল্লি এবং মুম্বইয়ে সংক্রমণ নামল চারশোর ঘরে

‘হিম্মত থাকলে বিধানসভা ভেঙে ভোটে লড়ুন’, বিজেপি-শিন্ডেসেনাকে চ্যালেঞ্জ উদ্ধবের

শিকাগো শহরতলিতে স্বাধীনতা দিবসের প্যারেডে বন্দুকবাজের গুলি, হত অন্তত ৬, জখম ৩০ জনেরও বেশি   

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন