কলকাতা: মঙ্গলবার থেকে প্রায় ১০০ ঘণ্টা রেল ও জাতীয় সড়ক অবরোধ। শনিবার বৈঠকের পর উঠে গেল কুড়মিদের অবরোধ-বিক্ষোভ।

জানা গিয়েছে, এ দিন প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকের পরই এই আন্দোলন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয় কুড়মিরা। কুড়মি নেতাদের নিয়ে এক ভার্চুয়াল বৈঠক ছিলেন নবান্নের কর্তারা। জানা গিয়েছে, আদিবাসী উন্নয়ন দফতরের সচিব সঞ্জয় বনসল-সহ অন্যান্য আধিকারিকরা ওই ভার্চুয়াল বৈঠকে অংশ নেন। সেখানে রাজ্যের তরফে কুড়মিদের জন্য এখনও পর্যন্ত কী কী করা হয়েছে বা আরও কী করা যেতে পারে তা নিয়ে নেতাদের বোঝানো হয়। যে জেলাগুলিতে কুড়মিদের আন্দোলন চলছে, সেই জেলাগুলির জেলা প্রশাসন ও পুলিশের আধিকারিকদের সঙ্গেও বৈঠক হয়।

কুস্তাউর স্টেশন থেকে অবরোধ প্রত্যাহার প্রসঙ্গে কুড়মি সমাজের নেতা অজিতপ্রসাদ মাহাতো সংবাদ মাধ্যমের কাছে বলেন, “আমরা জেলাশাসকের সঙ্গে বৈঠক করি। কিছু আশাজনক কথাবার্তা হয়েছে। তারপর এই সিদ্ধান্ত নিই।” তিনি আরও বলেন, “পুজোর সময় এটা খারাপ হচ্ছে। তবে দাবি একইরকম থাকবে। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে লড়াই আমাদের চলবে। আমাদের দম কত আছে সরকারকে দেখালাম। দাবি না মিটলে আবার লড়াই করব”।

শনিবার পাঁচ দিনে পড়েছিল এই অবরোধ। কুড়মি জাতিকে তফসিলি জনজাতি সম্প্রদায়ের অন্তর্ভুক্তি এবং কুড়মালি ভাষাকে সাংবিধানিক স্বীকৃতি-সহ বিভিন্ন দাবিতেই রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় চলছিল বিক্ষোভ। অবরোধের জেরে এ দিনও বাতিল করা হয়েছে আপ-ডাউন মিলিয়ে ৪৩টি ট্রেন। এ ছাড়া বেশ কিছু ট্রেনের রুট পরিবর্তন করা হয়েছে। আর কিছু ট্রেনের যাত্রাপথ কাটছাঁট করা হয়েছে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন