সংগৃহীত প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

কলকাতা: গত বিধানসভা ভোটে ‘শূন্য হাতে’ ফিরতে হয়েছিল বামফ্রন্টকে। একটি আসনেও জয় মেলেনি সে বার। প্রায় ৬ মাসের ব্যবধানে চার কেন্দ্রের উপনির্বাচনে পরিস্থিতির তেমন কোনো বদল না হলেও কয়েকটিতে ভোট বেড়েছে বাম প্রার্থীদের। উল্লেখযোগ্য ভাবে বিধানসভা ভোটের মতো কংগ্রেসের সঙ্গে জোট হয়নি বামফ্রন্টের। চারটি কেন্দ্রের মধ্যে এ বার শান্তিপুরে প্রার্থী দিয়েছিল কংগ্রেস। তা সত্ত্বেও সেখানে সিপিএম প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট চোখে পড়ার মতোই।

চারটি আসনের সার্বিক ফলাফলের নিরিখে তৃণমূল, বিজেপি এবং বামফ্রন্টের প্রাপ্ত ভোটের হার যথাক্রমে ৭৪.৯৯, ১৪.৫০ এবং ৮.৪৯ শতাংশ। যা গত বিধানসভা নির্বাচনে ছিল ৪৭.৯৪, ৩৮.১০ এবং ৪.৭০ শতাংশ।

দিনহাটা

উদয়ন গুহ (তৃণমূল)- ১৮৯৫৭৫ (৮৪.১৫ শতাংশ)

অশোক মণ্ডল (বিজেপি)- ২৫৩৮৭ (১১.৩১ শতাংশ)

আবদুর রউফ (ফব)- ৬২৯০ (২.৭৯ শতাংশ)

খড়দহ

শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় (তৃণমূল)- ১১৪০৮৬ (৭৩.৫৯ শতাংশ)

জয় সাহা (বিজেপি)- ২০২৫৪ (১৩.০৭ শতাংশ)

দেবজ্যোতি দাস (সিপিএম)- ১৬১১০ (১০.৩৯ শতাংশ)

গোসাবা

সুব্রত মণ্ডল (তৃণমূল)- ১৬১৪৭৪ (৮৭.১৯ শতাংশ)

পলাশ রানা (বিজেপি)- ১৮৪২৩ (৯.৯৫ শতাংশ)

অনিলচন্দ্র মণ্ডল (আরএসপি)- ৩০৭৮ (১.৬৬ শতাংশ)

শান্তিপুর

ব্রজকিশোর গোস্বামী (তৃণমূল)- ১১১১৮৯ (৫৪.৮২ শতাংশ)

নিরঞ্জন বিশ্বাস (বিজেপি)- ৪৭১৬৭ (২৩.২৫ শতাংশ)

রাজু পাল (কংগ্রেস)- ২৮৭৭ (১.৪১ শতাংশ)

সৌমেন মাহাতো (সিপিএম)- ৩৯৭৭০ (১৯.৬১ শতাংশ)*

প্রসঙ্গত, গত বিধানসভায় কংগ্রেস এবং আইএসএফ-কে সঙ্গে নিয়ে সংযুক্ত মোর্চা গড়েছিল বামফ্রন্ট। সে বার দিনহাটার ফরোয়ার্ড ব্লক প্রার্থী, খড়দহের সিপিএম প্রার্থী এবং গোসাবার আরএসপি প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোটের হার ছিল যথাক্রমে ২.৪৯, ১৪.৭০ এবং ২.৪৯ শতাংশ। অন্য দিকে, শান্তিপুরে জোটের কংগ্রেস প্রার্থী ভোট পেয়েছিলেন ৪.৪৮ শতাংশ। এ বার জোট না থাকলেও প্রায় প্রত্যেকটি কেন্দ্রেই ভোট বেড়েছে বামেদের।

*নির্বাচন কমিশন থেকে প্রাপ্ত সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী

আজকের আরও কিছু উল্লেখযোগ্য খবর পড়ুন এখানে:

‘বাজিবিহীন দীপাবলি’তে বিজেপি-কে শুভেচ্ছা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের

বিরোধী শিবিরকে ছত্রখান করে উপনির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে জয়ী তৃণমূল, ফলাফল ৪-০

মিথ্যা প্রচার ও ঘৃণার রাজনীতির বিরুদ্ধে উন্নয়ন ও ঐক্যের জয়: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

 বিজেপিকে ধুলিস্যাত করে চার কেন্দ্রেই রেকর্ড জয়ের পথে এগিয়ে যাচ্ছে তৃণমূল

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন