May day

কলকাতা: ১ মে , আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবসে ভোট না করানোর আবেদন নিয়ে হাইকোর্টে গিয়েছিল ন’টি বামপন্থী ট্রেড ইউনিয়ন। শুক্রবারই সেই আবেদনের রায় ঘোষণার কথা ছিল। কাকতালীয় ভাবে এই একই দিনে রায় ঘোষণা হল পঞ্চায়েত-মনোনয়ন নিয়ে বিরোধী বনাম রাজ্য সরকারের মামলার। নির্বাচনের মনোনয়ন পেশে আরও একটি দিন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই ভোটের নতুন দিন ঘোষণা করার নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। স্বাভাবিক ভাবেই ওই ট্রেড ইউনিয়নগুলির আবেদনেও স্বীকৃতি পড়ল বলেই ধরে নেওয়া হচ্ছে।

আদালত চত্বরে দাঁড়িয়ে এক সিপিএম নেতা বলেন, বিগত ৫০ বছরে এ দেশে কোনো রাজ্যে কোনো রকমের নির্বাচন হয়নি এই বিশেষ দিনটিতে। শ্রমিক-কর্মচারীর স্বতন্ত্র অধিকার রক্ষায় আলাদা মর্যাদা রয়েছে এই দিনটির। ফলে হাইকোর্টের রায়ে নির্বাচন পিছিয়ে যাওয়ায় সেই ট্রেড ইউনিয়নগুলির আবেদনও ন্যায্যতা আদায় করার দিকে এগোল।

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েত-মনোননয়ন মামলার মাঝেই হাইকোর্টে ফিকে হয়ে যাওয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ মামলা

হাইকোর্ট রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে নির্দেশ দিয়েছে নতুন করে মনোনয়নের দিন ঘোষণা করার। তার পরই শুরু হবে নির্বাচন প্রক্রিয়া। নতুন করে নির্বাচনের দিন ঘোষণা করা হলে সেই তালিকায় যে কোনো মতেই ১ মে পড়বে না, সে বিষয়ে নিশ্চিত। কারণ, অঙ্কের হিসাবে আগামী ১ মে ভোটগ্রহণের কোনো সম্ভাবনা নেই। নির্বাচনের দিন ঘোষণার ২১ থেকে ৩৫ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণ করতে হয়। সেই হিসাবেই ১ মে রক্ষা পেল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here