সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: “এ বার লালগড়ের মৃত লোধা-শবরদের নিয়ে রাজনীতি শুরু হয়েছে”, শুক্রবার বিজেপির প্রতিনিধি দলের মুখের উপর এমনই সটান জবাব দিলেন মৃতের আত্মীয়রা।

রমেশ শবর নামে এক আত্মীয় বলেন, “একের পর এক লোক জন আসছে, আজকে কাজের দিন, আজকেও শান্তিতে কেউ থাকতে দিবেন না, এত দিন কিছু হয়নি, এ রাজনীতি ছাড়া আর কী হচ্ছে”। বিজেপি প্রতিনিধিদের দাবি, “মৃতদের পরিবারের লোকজনদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে, যাতে আমরা কথা বলতে না পারি”। নেতৃত্বের দাবি মুখ্যমন্ত্রী যাই বলুন না কেন, অপুষ্টি – অনাহারেই এঁদের মৃত্যু হয়েছে।

লালগড়ের শবর অধ্যুষিত গ্রামে এসে এ দিন একপ্রকার বিক্ষোভের মুখেই পড়ে বিজেপির প্রতিনিধি দল। “শবর সম্প্রদায়ের মানুষের মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করছে দলগুলি” বলে মৃতের পরিজনেরা বিজেপির প্রতিনিধি দলের সামনে ক্ষোভ উগরে দেয়। তাঁদের ক্ষোভের সামনে এক প্রকার না জবাবি হয় দলটি।এ দিন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, কেন্দ্রের যুব মোর্চার প্রাক্তন সভাপতি অমিত ঠাক্কর-সহ জেলা নেতৃত্ব লালগড়ের পূর্নাপানি গ্রামে মৃত শবর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে যান।

সেখানে গ্রামের একটি মাত্র মৃতের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা হয়। কিন্তু তারা কোনো কথা বলতেই চাননি। পরে সাংবাদিকদের সামনে সায়ন্তন বসু বলেন, “অনাহারে শবরদের মৃত্যু হয়েছে। অভাব আছে, তাই তাঁরা নিজেদের ক্ষোভের কথা জানিয়েছেন, আমাদেরকে ক্ষোভ দেখাননি।এত দিন তাঁরা ভয়ে মুখ বন্ধ করে ছিলেন”।

একাংশের মতে, সামনে লোকসভা নির্বাচন রয়েছে, জঙ্গল মহলে অনেক কিছুই হবে। সব রাজনৈতিক দলের স্থানীয় নেতৃত্বরা লোধা-শবরদের দৈনন্দিন জীবনযাপন সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। সহানুভূতিশীল ভাবে তাঁদের সমস্যা নিয়ে কোনো দলই ইস্যু তোলে না, কিছু একটা ঘটে গেলে, তা নিয়ে হইচই শুরু হয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here