alpana at fuliya 1
srila pramanik
শ্রীলা প্রামাণিক

কৃষ্ণনগর: মহানগরে বড়ো দুর্গার পর বড়ো দুর্গা দেখা গিয়েছিল জেলাতেও। এ বারের দুর্গাপূজার সময়ে কলকাতার রাস্তায় অঙ্কিত হয়েছিল এক দীর্ঘ আলপনা। তবে দৈর্ঘ্যের মাপকাঠিতে সেই আলপনাকে এ বার ছাড়িয়ে গেল ফুলিয়া। রাজপথেই আঁকা হল প্রায় ২ কিমি ৮০০ মিটার দৈর্ঘ্যের আলপনা। ফুলিয়ার জুনিয়র ওয়ান হান্ড্রেড ক্লাবের উদ্যোগে অঙ্কিত এই আলপনা পৃথিবীর দীর্ঘতম বলেই দাবি উদ্যোক্তাদের। এই রেকর্ড নথিভুক্ত করার জন্য গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে প্রাথমিক আবেদন জানিয়েছেন তাঁরা।

alpana at fuliya 2শনিবার রাত প্রায় ন’টা নাগাদ শুরু হয় আলপনা দেওয়ার কাজ। তা শেষ হয় রবিবার সকালে। নদিয়া জেলা ছাড়াও অন্যান্য জেলা থেকেও বহু শিল্পী যোগ দেন। আর্ট কলেজের পড়ুয়া থেকে পেশাদার চিত্রশিল্পী, অঙ্কন শিক্ষক থেকে সাধারণ কলেজ পড়ুয়া, পুরুষ মহিলা নির্বিশেষে অংশ নিয়েছেন।

প্রায় ৮০০ শিল্পী হাতের জাদুতে রাজ্যের বয়নশিল্পের প্রাণকেন্দ্রে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ফুলিয়া তাহেরপুর রোড রঞ্জিত হয়ে ওঠে। শিল্পীদের কুড়িটি দলে ভাগ করা হয়েছিল। এক একটি দলকে রাস্তার ১৫০ মিটারের মতো জায়গার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। ব্যবহৃত হয়েছে প্রায় আড়াই হাজার লিটারের মতো রং। অ্যাক্রিলিক ডিসটেম্পার কালার ব্যবহার করা হয়েছে।

এ দিন রাত ন’টা থেকেই সাধারণ মানুষের ভিড় উপচে পড়ে রাস্তায়। ফুলিয়া উপনগরী গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসস্ট্যান্ড থেকে শুরু হয়ে রঙ্গমঞ্চ, হাসপাতাল মোড়, সবুজপল্লি পার হয়ে দীর্ঘ পথে শিল্পীদের সঙ্গেই কার্যত রাতভর জেগে উৎসাহ জুগিয়ে গিয়েছেন তাঁরা।

alpana at fuliya 3আর্ট কলেজের পড়ুয়া মৌসুমী সরকার, পেশাদার চিত্রশিল্পী মনোজিৎ কবিরাজ, শংকর  বিশ্বাস, কলেজ পড়ুয়া মোহিনী বসাকদের কথায়, “আঁকতে ভালোবাসি, তাই চলে এসেছি। মানুষও যে ভাবে আমাদের সঙ্গে সহযোগিতা করেছেন তাতে রাত জেগে কাজ করার ক্লান্তিই দূর হয়ে গিয়েছে।”

উদ্যোক্তাদের পক্ষে অভিনব বসাক বলেন, “শিল্পীদের চিত্রাঙ্কনের উৎকর্ষকে সকলের সামনে তুলে ধরার পাশাপাশি জেলার তথা দেশের নাম উজ্জ্বল করার উদ্দেশ্যে এই উদ্যোগ। বাংলাদেশে এর আগে প্রায় দুই কিমি রাস্তায় আলপনা আঁকা হয়েছিল। তাকে ছাপিয়ে গিয়ে রেকর্ড তৈরি করে দেশকে গর্বিত করব আমরা।”

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here