rain in kolkata

কলকাতা: আশঙ্কা ছিল কালীপুজোর দিন হানা দিতে পারে ঘূর্ণিঝড়। সেই আশঙ্কা আপাতত সত্যি হল না ঠিকই, আবার পরে যে সত্যি যে হবে না সে রকম কোনো গারান্টিও নেই, কারণ আবহাওয়ার মতিগতি বলে কথা! তবে উৎসবের আগের দিন থেকেই শুরু হয়ে গেল বৃষ্টি। পূর্বাভাস যা তাতে কালীপুজো তো বটেই আগামী তিন চার দিন এই বৃষ্টির হাত থেকে রেহাই পাবে না দক্ষিণবঙ্গ।

কালীপুজোর সময়ে আবহাওয়া যে বেগোড়বাই করতে পারে, সে ব্যাপারে গত সপ্তাহ থেকে ইঙ্গিত দিচ্ছিল আবহাওয়া সংক্রান্ত বিভিন্ন বিদেশি মডেল এবং বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা। সেই পূর্বাভাস মেনে রবিবার থেকে বঙ্গোপসাগরে তৈরিও হয়ে গিয়েছিল একটি নিম্নচাপ। তবে পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি সুবিধাজনক না থাকায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপান্তরিত হওয়ার সম্ভাবনা আপাতত এই নিম্নচাপটির নেই।

এই নিম্নচাপটির মতিগতির ব্যাপারে বলতে গিয়ে বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা ওয়েদার আল্টিমার কর্ণধার রবীন্দ্র গোয়েঙ্কা বলেন, “বৃহস্পতিবার এই নিম্নচাপটি আরও বেশ কিছুটা শক্তি বাড়িয়ে উত্তর ওড়িশা উপকূল দিয়ে স্থলভাগে প্রবেশ করবে। তার পর খুব সম্ভবত এটি ক্রমশ উত্তরে অর্থাৎ রাজ্যের পশ্চিমাঞ্চলের জেলা এবং ঝাড়খণ্ড দিয়ে এগোবে। এর ফলে বৃহস্পতিবার সারা দিনই কলকাতায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি হলেও, শুক্রবার এবং শনিবার সেই বৃষ্টির দাপট আরও বাড়বে।”

নিম্নচাপটি পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলি দিয়ে অগ্রসর হলে সেখানে যে প্রবল বৃষ্টি হবে সে ব্যাপারে সতর্কতা জারি করতেও ভোলেননি রবীন্দ্রবাবু। তাঁর আশঙ্কা প্রবল বৃষ্টির ফলে ফের একদফা বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। এই নিম্নচাপের প্রভাবে বৃষ্টির পাশাপাশি যে প্রবল ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে সে কথাও বলেছেন তিনি।

তবে নিম্নচাপটি যতক্ষণ না সমুদ্র থেকে স্থলে ঢুকছে ততক্ষণ স্বস্তির নিশ্বাস ফেলা যাবে না বলে মনে করছেন অনেকে। বিদেশি কিছু মডেলের আশঙ্কা, স্থলে ঢোকার কিছু আগে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিয়ে নিতে পারে এই নিম্নচাপ। এর ফলে শুক্রবার নাগাদ তছনছ হতে পারে রাজ্যের উপকূলীয় অঞ্চল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here