মইদুল ইসলাম মিদ্যা মৃত্যু: রাজ্য জুড়ে থানা ঘেরাও বামেদের

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: বাম ছাত্র-যুব’র নবান্ন অভিযানে অংশ নিয়ে গুরুতর আহত বাঁকুড়ার কোতুলপুরের ডিওয়াইএফআই কর্মী মইদুল ইসলাম মিদ্যার মৃত্যু ঘিরে উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি। মঙ্গলবার পুলিশি অত্যাচারের প্রতিবাদে জেলায় জেলায় থানা ঘেরাও কর্মসূচি পালন করছে বামফ্রন্ট।

ডিওয়াইএফআই নেতৃত্বের দাবি, গোপীনাথপুরে তাঁদের সংগঠনের ইউনিট সম্পাদক ছিলেন মইদুল। পেশায় ছিলেন অটোচালক। বাড়িতে রয়েছেন তাঁর মা তাহমিনা বিবি, স্ত্রী আলেয়া বিবি এবং তিন কন্যাসন্তান।

Loading videos...

সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, মইদুলের দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গে আঘাতের চিহ্ন মেলেনি। হাঁটুতে চোট ছিল। এমনটাই বলছে ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট। ভিসেরা রিপোর্ট আসলে বিষয়টি আরও স্পষ্ট হবে।

যদিও ১১ ফেব্রুয়ারি নবান্নে অভিযানে নৃশংস ভাবে পুলিশের লাঠির আঘাতেই মইদুলের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি বাম নেতৃত্বের।

এ দিকে মৃত মইদুলের পরিবারের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি সোমবার নবান্নের সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, “যে কোনো মৃত্যুই দুঃখজনক। আমারও দুঃখ হয়েছে। চাইলে সরকারি চাকরি, আর্থিক সাহায্য দেওয়া হবে গরিব ছেলেটির পরিবারকে। ময়না তদন্তেরর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে”।

এবিপি আনন্দ-এর কাছে আলেয়া জানান, “যে যাওয়ার সে চলেই গেছে। আমার তিনটে মেয়ে আর বিধবা শাশুড়ি রয়েছেন। আমি চাকরি নেব। সংসারটা যাতে চালাতে পারি, সে জন্যই আমার চাকরির দরকার”।

আরও পড়তে পারেন: নবান্ন অভিযানে যোগদানকারী যুবকের মৃত্যু, পুলিশি অত্যাচারে মৃত্যুর অভিযোগ বামেদের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন