ওয়েবডেস্ক: জয়নগর শুটআউট কাণ্ডে ধৃত মূল অভিযুক্ত আবদুল মোল্লা ওরফে বাবুয়া। তাঁকে দিল্লি থেকে গ্রেফতার করল সিআইডি। এ ছাড়াও এই শুটআউটে জড়িত সন্দেহে দিল্লি থেকে আবদুল মিস্ত্রি, মনিরুদ্দিন গাজি নামে আরও ২ জনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। সব মিলিয়ে এই শুটআউটে ধৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৯।

ধৃত বাবুয়াকে ট্রানজিট রিমান্ডে কলকাতায় নিয়ে আসার জন্য শুক্রবারই আবেদন জানাবে সিআইডি। শনিবারের মধ্যেই তাঁকে কলকাতায় নিয়ে আসা হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

উলেখ্য, ১২ ডিসেম্বর রাতে দক্ষিণ ২৪ পরগনার জয়নগরে ইন্ডিয়ান অয়েলের পেট্রোল পাম্পে সরফুদ্দিনের গাড়িতে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। ওই গাড়িতে ছিলেন বিধায়ক বিশ্বনাথ দাসও। প্রথমে মনে করা হয়েছিল দুষ্কৃতীদের টার্গেট ছিল বিধায়ক বিশ্বনাথ। কিন্তু পরে দেখা যায়, দুষ্কৃতীদের টার্গেট বিধায়ক ছিলেন না। গাড়ি লক্ষ্য করে মুহুর্মুহু গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। মৃত্যু নিশ্চিত করতে ছোঁড়া হয় বোমাও। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় সরফুদ্দিন সহ আরও ২ জনের।

তদন্তে নেমে পুলিস জানতে পারে, জয়নগর শুটআউটের পরিকল্পনা করা হয়েছিল মাসখানেক ধরে। ধৃতদের জেরা করে এমন তথ্যই উঠে আসে।

প্রসঙ্গত ধৃত বাবুয়ার বেড়ে ওঠা একদিনে নয়। তোলাবাজি, জমি বেদখল করার একাধিক অভিযোগ ছিল বাবুয়ার বিরুদ্ধে। একসময় এলাকার তৃণমূল বিধায়ক বিশ্বনাথ দাসের ঘনিষ্ঠ হিসাবেই পরিচিত ছিল বাবুয়া। কিন্তু সরফুদ্দিনের বাড়বাড়ন্ত, বিধায়কের আস্থাভাজন হয়ে ওঠায় বিশ্বনাথ দাসের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হয় বাবুয়ার।

তখন থেকেই বিশ্বনাথ ঘনিষ্ঠ সরফুদ্দিনের সঙ্গে বেশ কয়েকবার ঝামেলা হয় বাবুয়ার। পুলিস সূত্রে খবর, সেই থেকেই সরফুদ্দিনকে খুনের ছক কষে বাবুয়া। তবে শুটআউটের ঘটনার পর থেকে এতদিন পর্যন্ত পলাতক ছিল বাবুয়া।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here