‘ভূতে ধরেছে’ সন্দেহে ঝাড়ফুঁক, রাজ্যে কুসংস্কারের বলি দুই শিশু

0

মালদা: স্রেফ কুসংস্কারের বসে প্রাণ গেল দুই শিশুর। ‘ভূতে ধরেছে,’ এই সন্দেহে করা হল ঝাড়ফুঁক। হাসপাতালে দেরিতে নিয়ে যাওয়ার পরিণাম, মর্মান্তিক মৃত্যু।

মালদার গাজোলের কদমতলা গ্রামের ঘটনায় গুরুতর অসুস্থ আরও দু’জন। মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে তাদের। ওই দু’জনের অবস্থা অত্যন্ত সংকটজনক।

শুক্রবার বিকালে কদমতলা গ্রামে একদল শিশু খেলা করছিল। বাড়ি ফিরে তারা অভিভাবকদের জানায়, শরীর খারাপ লাগছে। ওই শিশুদের ‘ভূতে ধরেছে’ বলেই সন্দেহ করতে থাকেন শিশুর পরিজনেরা। এক ওঝাকে খবর দেওয়া হয়। ওঝা অসুস্থ শিশুদের বাড়িতে আসেন।

বন্ধ ঘরে ঢুকিয়ে রেখে চারজন শিশুকে ঝাড়ফুঁক করা শুরু হয়। ঘণ্টাদুয়েক পর প্রায় অচৈতন্য হয়ে যায় খুদেরা। পরিজনেরা তাদের উদ্ধার করে মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার বন্দোবস্ত করে। তবে রাস্তাতেই এক শিশুর মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন পোলবায় পুলকার দুর্ঘটনায় দুই সংকটজনক পড়ুয়ার জ্ঞান ফিরল, কিছুটা স্বস্তিতে চিকিৎসকরা

এরপর একে একে তিনজন শিশুকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়। বেশ কিছুক্ষণ চিকিৎসার পর আরও এক শিশুর মৃত্যু হয়। বাকি দু’জন এখনও মালদা মেডিক্যালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভরতি। তাঁরা বিপন্মুক্ত কি না, সে বিষয়ে এখনও চিকিৎসকরা নিশ্চিতভাবে কিছু বলতে পারছেন না।

প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, খেলাধূলার সময় কোনো বিষাক্ত ফল খেয়ে নেয় শিশুরা। তার জেরে বিষক্রিয়া হয়। তাই অসুস্থ হয়ে পড়ে তারা। ঝাড়ফুঁক না করে আগেই হাসপাতালে শিশুদের নিয়ে আসা হলে, তাদের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব হত বলেই দাবি চিকিৎসকদের।

গাজোলের বিধায়কও ঝাড়ফুঁকের কথা স্বীকার করে নিয়েছেন। তাঁর দাবি, কদমতলা গ্রামে বেশিরভাগ মানুষই এখনও শিক্ষার আলো পাননি। তাই কুসংস্কার ক্রমশ ঘাঁটি গেড়ে বসেছে ওই এলাকায়। তাই এমন মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.