mallikarjun kharge

কলকাতা: তৃণমূল কংগ্রেসের ডাকে ব্রিগেড সমাবেশে অংশ নেওয়া নিয়ে এমনিতেই হাইকম্যান্ড-প্রদেশ দ্বন্দ্ব চলছিল জাতীয় কংগ্রেসে। এ দিন সমাবেশ শেষে প্রদেশ কার্যালয়ে বসে সাংবাদিক সম্মেলন করেন লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে। আগামী লোকসভা নির্বাচনে জোট-চিত্র ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি তুলে ধরেন কর্নাটকের বর্তমান জোট সরকারের কথা। যা শুনে এ রাজ্যের কংগ্রেস নেতৃত্বের আশঙ্কা ক্রমশ প্রকট হচ্ছে।

প্রদেশ কংগ্রেস তৃণমূলের সঙ্গে জোটে যেতে কোনো মতেই আগ্রহী নয়। কিন্তু দলের হাইকম্যান্ডের সিদ্ধান্তই যেখানে শেষ কথা, সেখান থেকেই এ ধরনের আশঙ্কার সৃষ্টি হচ্ছে বলে মনে করে ওই অংশটি। খাড়গে বলেন, ভারতের প্রাচীন রাজনৈতিক দল জাতীয় কংগ্রেসের নির্দিষ্ট নীতি রয়েছে। গণতন্ত্র এবং ধর্মনিরপেক্ষতা বজায় রাখার জন্য কংগ্রেস একাধিক বাবে স্বার্থত্যাগ করেছে। সম্প্রতি কর্নাটকের বিধানসভা নির্বাচনে জেডিএস মাত্র ৩৭টি আসন পাওয়ার পরও জোট-ধর্ম রক্ষার স্বার্থে সোনিয়া গান্ধীর নির্দেশে মুখ্যমন্ত্রীপদ ছেড়ে দিয়েছে কংগ্রেস। স্বাভাবিক ভাবেই আগামী লোকসভা নির্বাচনে পরিস্থিতি অনুযায়ী কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব সাধারণ মানুষের চাহিদা মেনেই সিদ্ধান্ত নেবেন বলে তিনি স্পষ্টভাষায় জানিয়ে দেন।

খাগড়ে বলেন, সারা দেশের বিরোধী রাজনৈতিক শক্তি যে ভাবে সঙ্ঘবদ্ধ হয়ে গিয়েছে, তাতে বিজেপি ভয় পেয়েছে। ফলে মনের মিল না হোক, লক্ষ্যে পৌঁছাতে হাত ধরতেই হবে।

[ আরও পড়ুন: বামেরা না থাকলেও তৃণমূলের ব্রিগেড মঞ্চে ‘ইনকিলাব জিন্দাবাদ’!]

খাড়গে অবশ্য নির্দিষ্ট করে তৃণমূলের সঙ্গে জোটে যাওয়ার প্রসঙ্গটিকে এড়িয়ে যান। তিনি বলেন, মোদী সরকারে উৎখাত করতেই হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here