ঝাড়গ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ঝাড়গ্রাম: বুধবার ফের বিজেপির বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাকে ব্যবহারের অভিযোগ তুলে তোপ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। বুধবার ঝাড়গ্রামে এই নিয়ে মুখ খুলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নিয়োগ দুর্নীতি-কাণ্ডে ধৃত ‘মিডলম্যান’ প্রসন্ন রায়ের বাড়ি থেকে দিলীপের একটি বাড়ির দলিল উদ্ধার হয়। তারপরই বিজেপি সাংসদের গ্রেফতারির দাবি তুলেছিলেন তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ। তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে এর পরই তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপি নেতার গ্রেফতারির দাবি তুলেছেন। এ বার এই বিষয়ে স্বয়ং আসরে তৃণমূল নেত্রী।

ঝাড়গ্রামের হেলিপ্যাড থেকে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নিয়োগ দুর্নীতিকাণ্ডে বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষের দলিলের প্রসঙ্গ তুললেন মুখ্যমন্ত্রী। দিলীপের নাম না করে তাঁর প্রশ্ন, কেন এ ক্ষেত্রে বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত করা হবে না?

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, ‘‘অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের ঘর থেকে কারও দলিল পাওয়া গিয়েছিল। তখন তাঁকে গ্রেফতার করে নেওয়া হয়েছে। ঠিকই করেছে। কিন্তু এ বার বিজেপি নেতার দলিল কেন এমন একটা প্রতারকের ঘরে পাওয়া গেল? এ ক্ষেত্রে কেন ওই নেতাকে গ্রেফতার করা হবে না?’’

বিজেপি-কে নিশানায় রেখে মমতার অভিযোগ, “এঁরা শুধু নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত, উন্নয়নে নজর নেই। বিজেপির চোখ মাটিতে নেই, আকাশে রয়েছে। ছোট ছোট ভুল হলেও সিবিআই-ইডি দিয়ে তদন্ত করছে”।

দলিল প্রসঙ্গে এ দিনই দিলীপ বলেন, “কারও বাপের টাকায় ফ্ল্যাট কিনিনি, তদন্ত করুক সিআইডি। তদন্ত শেষ হোক। তারপর তো গ্রেফতারির প্রশ্ন। আমি তো প্রকাশ্যে বলছি, প্রসন্নর বাড়িতে আমি নিজে দলিলের কপি রেখেছি। কারও বাপের টাকায় ফ্ল্যাট কিনিনি। ব্যাঙ্ক লোন নিয়ে ফ্ল্যাট কিনেছি”।

দিলীপ-দলিল কাণ্ড

প্রসন্ন রায়ের মাধ্যমেই নিয়োগ দুর্নীতির টাকা তোলা হতো বলে অভিযোগ সিবিআই-এর। এই আবহে ধৃত প্রসন্ন রায়ের বাড়িতে দিলীপ ঘোষের দলিল মেলায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে। প্রসন্নর বাড়ি থেকে উদ্ধার হওয়া জিনিসের তালিকা বা সিজার লিস্টের আট নম্বর আইটেমটি হল এই দলিল। সৌভিক মজুমদার এবং দিলীপকুমার ঘোষের মধ্যে ২০২২ সালের ২২ এপ্রিল একটি ডিড হয়েছিল। দক্ষিণ ২৪ পরগনার একটি জমি কেনাবেচার ডিড সেটি। জমিটি সৌভিক মজুমদারের থেকে কিনেছেন দিলীপ।

আরও পড়ুন: শ্রদ্ধা হত্যাকাণ্ড প্রকাশ্যে আসার ক’দিন আগেই বাড়ি ছেড়েছিল আফতাবের পরিবার, হদিশ নেই এখনও

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন