কলকাতা: পারিবারিক সম্পত্তিবৃদ্ধি মামলার বিরোধিতায় নজিরবিহীন পদক্ষেপ নিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর পরিবারের সম্পত্তির পরিমাণ উত্তরোত্তর বেড়েছে। এই অভিযোগ তুলে জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে। এর জেরেই এ বার নজিরবিহীন পদক্ষেপ করলেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে তদন্ত করার জন্য ভূমি রাজস্ব সচিব, মুখ্যসচিবকে নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

বুধবার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “বলা হচ্ছে সরকারের জমি দখল করে বসে আছি। আমার বাসস্থান রানি রাসমণির সম্পত্তি। আমি সেখানেই ঠিকা প্রজা হিসাবে থাকি। নিজেদের জমি নেই। ভূমি রাজস্ব সচিব, মুখ্যসচিবকে বলেছি তদন্ত করতে। আমার পরিবারের সম্পত্তি নিয়ে তদন্ত করা হোক। জমি দখল হলে ভেঙে দিতে বলেছি। বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দিন। কারও অনুমতি নিতে হবে না”।

তিনি আরও বলেন, “সমাজসেবা করার জন্য রাজনীতিতে এসেছি। এ রকম নোংরা রাজনীতি দেখলে আগেই রাজনীতি ছেড়ে দিতাম। এ রকম নিকৃষ্ট জানলে রাজনীতিতে আসতাম না। ভাবেন স্বার্থের জন্য বসে থাকি? আগেও পদ ছেড়ে দিয়েছি। একদিনের মধ্যে মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিয়েছিলাম। আমি তো চিরকাল বাঁচব না। তবে জেনে শুনে কোনো অন্যায় করিনি”।

একই সঙ্গে আক্ষেপের সুরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এই ধরনের ব্ল্যাকমেলিংয়ের রাজনীতি পছন্দ করি না আমি। কুৎসা, অসত্য, অকথ্য ভাষায় কথা বলা, মানুষকে সম্মান না দেওয়া, ব্ল্যাকমেলিংয়ের রাজনীতি শুরু হয়েছে। বলছে টাকা না দিলে পোল খুলব! পোল কী! ভাষাটাই আমার জানা নেই”।

কয়লা, গোরু পাচার কাণ্ডের প্রেক্ষিতে বিরোধীদের অভিযোগ, দুর্নীতির টাকা ঘুরপথে কালীঘাটে পৌঁছেছে। এ দিন সেই অভিযোগের তীব্র প্রতিক্রিয়ায় মমতা বলেন, “কয়লা পাচার, গরুপাচারের সব টাকা নাকি কালীঘাটে যাচ্ছে! কার কাছে যাচ্ছে, মা কালীর কাছে? নামটা বলুন না একটু! কার কাছে যাচ্ছে? কয়লা কার অধীনে? গোরু কার অধীনে? কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের অধীনে। সাহায্য চাইলে আমরা সাহায্য করতে পারি। তার বাইরে দায়িত্ব নেই আমাদের”।

আরও পড়তে পারেন: 

এপ্রিল-জুলাই মাসে ভারতের রাজস্ব ঘাটতি ৩.৪১ লক্ষ কোটি

কনস্টেবল নিয়োগের বয়সসীমা বাড়ল, পুজোর আগে পুলিশ কর্মীদের জন্য একগুচ্ছ ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

বিমান ভাড়ায় বড়োসড়ো রদবদল, মূল্যসীমা প্রত্যাহার কেন্দ্রের

সরকারি ভাঁড়ার থেকে একটা টাকাও নয়, নিজের খাওয়ার খরচ নিজেই বহন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

কলকাতাতেও এ বার মিলবে হোম স্টে, পর্যটন দফতর-পুরসভা তৈরি করল গাইডলাইন

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন