‘বুলবুল’ নিয়ে ‘নোংরা’ রাজনীতি, তোপ মমতার

0

ওয়েবডেস্ক: গত শনিবার রাজ্যের তিন জেলায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এবং ত্রাণের তথ্য তুলে ধরলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একই সঙ্গে নাম না করে রাজ্যপালের সমালোচনাও ধরা পড়ে তাঁর কথায়।

বৃহস্পতিবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে সব থেকে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরের উপকূল এলাকা। তিন জেলায় ৯ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। এঁদের মধ্যে উত্তর ২৪ পরগনায় পাঁচ জন, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় তিন জন এবং মেদিনীপুরে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এঁদের পরিবারকে আর্থিক সাহায্য দিচ্ছে রাজ্য।

গাছ আর বাতিস্তম্ভ পড়ে, রাস্তা কার্যত বন্ধ।

মমতা এ দিন বলেন, আগাম ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল বলে একটা ব্যাপক অংশের ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো গিয়েছে। তবে মেদিনীপুরে সব থেকে বেশি পানের বরোজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ৫-৬টি ব্লকের বেশ কিছু এলাকা এখনও জলের তলায়। রাজ্য সরকার ত্রাণের জন্য কিটস বিতরণ করছে।

বিরোধী দলের সমালোচনার জবাবে মমতা বলেন, এখন রাজনীতি করার সময় নয়। দুর্গতদের পাশে দাঁড়াতে হবে। কেউ কেউ দু’চারজনকে জড়ো করে বিক্ষোভের নামে ভাঙচুর চালাচ্ছে। অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোই এখন মূল লক্ষ্য। এটা রাজনীতি করার সময় নয়।

এ দিন নাম না করে রাজ্যপালের সমালোচনা করতেও শোনা যায় মুখ্যমন্ত্রীর কথায়। তিনি মন্তব্য করেন, “মনোনীত কেউ কেউ নিজের সীমা পার হয়ে যাচ্ছেন। রাজ্যে সমান্তরাল সরকার চালাচ্ছেন। সংবিধান মেনেই কাজ করা উচিত। কেন্দ্রীয় সরকারও যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো মেনে কাজ করুকছ রাজনীতির নোংরা খেলা বন্ধ করুন”।

[ আরও পড়ুন: সিআইডির নজরে খড়গপুর সদরের বিজেপি প্রার্থী! ]

একই সঙ্গে মমতা বলেন, রাজ্য সরকারের রাজস্ব আদায় কমেনি। যে কারণে ত্রাণের খরচ সামলানো যাচ্ছে। তার উপর রয়েছে আগের সরকারের ৫০,০০০ কোটি টাকার দেনা। কিন্তু তা সত্ত্বেও রাজ্য সরকার দুর্গতদের পাশে দাঁড়িয়ে পর্যাপ্ত ত্রাণের ব্যবস্থা করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.