Mamata Banerjee
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: টুইটার থেকে

কলকাতা: ১৯৫৯ সালে রাজ্যের ঐতিহাসিক ‘খাদ্য আন্দোলন’-এর শহিদদের স্মরণে করে বর্তমান সরকারের খাদ্যসাথী প্রকল্পের গুরুত্বের কথা তুলে ধরলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

১৯৫৮ সালের শেষ দিকে অবিভক্ত সিপিআই এবং অন্যান্য বামপন্থী দলগুলির নেতৃত্বে গড়ে উঠেছিল খাদ্য আন্দোলন। যা পরের বছরের আজকের দিনে পৌঁছায় চূড়ান্ত পর্যায়ে। নারী-কৃষক-সহ অজস্র প্রতিবাদী মানুষের উপর গুলি চালানোর ঘটনা বাংলার ইতিহাসে কালো দিন হিসাবেই চিহ্নিত কর এই বিশেষ দিনটিকে। তার পর কেটে গিয়েছে বেশ কয়েক দশক। রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রত্যেক নাগরিকের কাছে সুলভে চাল-গম পৌঁছে দেওয়ার জন্য চালু করেছেন খাদ্যসাথী প্রকল্প। এই বিশেষ দিনটিতে সেই আন্দোলনের শহিদদের স্মরণ করার পাশাপাশি মমতা টুইটে উল্লেখ করেছেন এই প্রকল্পের গুরুত্বের কথা।

তিনি লিখেছেন ,“১৯৫৯ সালের ঐতিহাসিক ‘খাদ্য আন্দোলন’-এর শহিদদের আজ স্মরণ করছি। বাংলার মোট জনসংখ্যার নব্বই শতাংশকে (৮.৫৯ কোটি) খাদ্যসাথী প্রকল্পের মাধ্যমে খাদ্য সুরক্ষা দিতে পেরেছি আমরা। যার ফলে দু’টাকা কিলো দরে খাদ্য শস্য বাজারের অর্ধেক মূল্যে মানুষকে সুবিধা দেওয়ার কাজ সবই সম্পন্ন করেছি সুষ্ঠুভাবে”।

তিনি লিখেছেন, আমরা এক সময়ের মাওবাদী-অধ্যুষিত জঙ্গলমহল, পাহাড়, আয়লা বিধ্বস্ত সুন্দরবন, সিঙ্গুরের মতো জায়গাতে বিশেষ পরিষেবা দিতে সফল হয়েছি। একই ভাবে উত্তরবঙ্গের চা বাগান এবং টোটো সম্প্রদায়ের মানুষের কাছেও আমরা পিডিএসের মাধ্যমে চাল-গম পৌঁছে দিতে পেরেছি।


পড়তে পারেন: ধনকুবেররা ছড়াচ্ছেন, মোদী ফের তখ্‌তে ফিরবেন, সুফল মিলছে সূচকে

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন