নাটকীয় পটপরিবর্তন! মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করে বিস্ফোরক মন্তব্য মুকুলের

0
Mukul and Mamata
মুকুল সরাসরি তোপ দাগলেন মমতার বিরুদ্ধে। গ্রাফিক্স ছবি

ওয়েবডেস্ক: গত শনিবার নারদকাণ্ডে প্রথম গ্রেফতার এস এম এইচ মির্জার মুখোমুখি বসিয়ে বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করে সিবিআই। রবিবার ফের তাঁর এলগিন রোডের ফ্ল্যাটে সেই মির্জাকে নিয়েই হানা দেন তদন্তকারীরা। এর পরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করে সরাসরি আক্রমণ করেন মুকুল। তিনি বলেন, “এ সব কিছুর নেপথ্যে রয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী স্বয়ং”।

নারদকাণ্ডের কোনো ভিডিওয় তাঁকে টাকা নিতে দেখা যায়নি বলে বরাবর দাবি করে আসছিলেন মুকুল। কিন্তু তৎকালীন বর্ধমানের পুলিশ সুপার মির্জার গ্রেফতারির পর নাটকীয় মোড় নেয় নারদকাণ্ডের তদন্ত। সিবিআই সূত্রে খবর, শনিবার জিজ্ঞাসাবাদের সময় মুকুল একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর সুকৌশলে এড়িয়ে যান বলে জানা যায়।

কিন্তু মির্জা মুকুলকে টাকা দেওয়ার বক্তব্যে অনড় থাকেন। তিনি দাবি করেন, মুকুলের ফ্ল্যাটে বসেই তাঁকে বিপুল অঙ্কের টাকা দিয়েছিলেন। অসমর্থিত সূত্রের মতে, যে টাকার পরিমাণ প্রায় ১ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা। সেই টাকার লেনদেনই এখন সিবিআই তদন্তের অন্যতম বিষয় হয়ে উঠেছে। যে কারণে এ দিন মুকুলের ফ্ল্যাটে হাজির করানো হয় মির্জাকেও। তাঁর দাবি অনুযায়ী, যে ভাবে লিফট দিয়ে উঠে মুকুলের ফ্ল্যাটে প্রবেশ করে যেখানে বসে টাকার লেনদেন হয়েছিল, সেই ঘটনার পুনর্নির্মাণ হয়।

মুকুল অবশ্য সাফ জানিয়েছেন, তাঁর ফ্ল্যাটে কোনো টাকার লেনদেন হয়নি। একই সঙ্গে তিনি বলেন, এটা সিবিআইয়ের রুটিনমাফিক ঘটনার পুনর্নির্মাণ।

এ দিন তদন্তকারীরা তাঁর ফ্ল্যাট থেকে চলে যাওয়ার পর মুকুল বলেন, “তারা (সিবিআই) এখানে এসেছিল কারণ মির্জা তাদের বলেছেন যে, তিনি ম্যাথিউ স্যামুয়েলকে (নারদের স্টিং ভিডিওগুলি যিনি করেছিলেন) কয়েকবার আমার বাড়িতে নিয়ে এসেছিলেন। এটি মিথ্যা, এটি আমাকে এবং বিজেপির বদনাম করার ষড়যন্ত্র। এমন কোনো ভিডিও নেই, যেখানে আমাকে টাকা নিতে দেখা যাচ্ছে”।

এই প্রসঙ্গেই তাঁর অভিযোগ, “এর পিছনে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই রয়েছেন। তিনি নারদ মামলার সমস্ত অভিযুক্তকে আমার নাম নেওয়ার এবং আমাকে অপদস্থ করার নির্দেশ দিয়েছেন”। কতকটা একই অভিযোগ তিনি করেছিলেন গত শনিবার নিজাম প্যালেসে সিবিআই দফতর থেকে বেরিয়ে আসার পরেও।

ওই দিনই শোনা যায়, মির্জার মুখোমুখি বসিয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় একাধিক গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর এড়িয়েছেন মুকুল। সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে মুকুল বলেন, “এটা তাদের (সিবিআইয়ের) অভ্যন্তরীণ বিষয়। দয়া করে তাদেরই জিজ্ঞাসা করুন”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here