‘মোদীর চেয়ে বেশি জনপ্রিয় মমতা’, ভবানীপুরের সভায় বললেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়

0

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না থাকলে বাংলায় তালিবানি শাসন কায়েম করত বিজেপি, বললেন অভিষেক!

কলকাতা: ভবানীপুরের তৃণমূল প্রার্থী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে প্রচারে সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবার পদ্মপুকুরের নির্বাচনী সভা থেকে একাধিক ইস্যুতে বিজেপিকে তুলোধোনা করলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক।

এ দিনের সভা থেকে অভিষেকের হুঙ্কার, “একমাত্র নরেন্দ্র মোদীকে হারাতে পারেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই। বহিরাগতদের দিয়ে বাংলা দখল করতে না পেরে এখন বহিরাগত এজেন্সি পাঠাচ্ছে। ইডি পাঁচটা চিঠি পাঠাচ্ছে। কত পাঠাবে পাঠাক না। যত গায়ের জোর প্রয়োগ করো, কোনো লাভ নেই। ৫০০ এজেন্সি পাঠালেও মেরুদণ্ড বিক্রি করব না”।

আগাগোড়া বিজেপিকে হুঁশিয়ারি দিয়ে অভিষেক বলেন, “তৃণমূল একমাত্র দল, যারা বহিরাগতদের কাছে মাথা নত না করে অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে লড়াই করছে। আমরা এ বার ত্রিপুরা এবং অসমে পৌঁছেছি। আমরা আগামী দিনে গোয়াও যাব, তাই নিজেকে প্রস্তুত করুন। আমরা রাজনৈতিক ভাবে লড়াই করতে প্রস্তুত”।

Shyamsundar

ভবানীপুরে মমতার জয় নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে অভিষেক বলেন, “ভবানীপুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না জিতলে গোটা ভারত বিপদের মুখে পড়বে। সঠিক সময়ে ভোট দিন। এক লক্ষ ভোটে জেতাতে হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। মাথা উঁচু করে বুথে যাবেন। আপনি ভোট দেবেন, মমতা পাঁচ বছর মাথা নিচু করে কাজ করে যাবেন”।

সম্প্রতি রোমের একটি শান্তি সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে। তবে বিদেশমন্ত্রকের তরফে মমতার রোম সফরে অনুমতি মেলেনি। এ প্রসঙ্গে অভিষেকের কটাক্ষ, “তাঁকে (মমতা) যেতে দেওয়া হয়নি, কারণ তিনি মোদীর চেয়ে বেশি জনপ্রিয়। …উত্তরপ্রদেশের পরিস্থিতি দেখুন। তারা তালিবানের মতো শাসন করছে। মানুষের কোনো স্বাধীনতা নেই। যোগী আদিত্যনাথই সব কিছু”।

বাংলার সংস্কৃতি, ঐতিহ্য সম্পর্কে বিজেপি নেতৃত্বের ধারণা নিয়ে প্রশ্ন তুলে অভিষেক বলেন, “স্বামী বিবেকানন্দ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে যারা অপমান করে, বাংলার কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ওরা জানে না। গতকাল সম্বিৎ পাত্র এসে বীরেন্দ্রকিশোর ভদ্রকে বলছে বীরকিশোর ভদ্র। আপনি এদেরকে ভোট দেবেন? ওরা মাতঙ্গিনী হাজরাকে বলছে অসমের। মাতঙ্গিনী হাজরার জন্মস্থান, আন্দোলন জানে না…আজ যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না থাকতেন, তা হলে উত্তর ভারতের কালচার আপনাদের উপর জোর-জবরদস্তি চাপিয়ে দিয়ে বাংলাতেও তালিবানি শাসন কায়েম করত”।

একই সঙ্গে বিজেপির সদ্য প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে খোঁচা দিয়ে ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ বলেন, “এক বিজেপি নেতা যে গোরুর দুধে সোনা পেতেন, তাঁর দিন শেষ। নতুন যিনি এসেছেন, তিনি নাটক করছেন। ওরা ভারতীয় জনতা পার্টি নয়, যাত্রা পার্টি। আমাদের কাটছাঁটগুলো নিয়ে ওরা ভালো থাকুন”।

আজকের আরও কিছু কিছু উল্লেখযোগ্য খবর পড়তে পারেন:

ভাঙন রোধে ব্যর্থ বিজেপি! প্রায় ৮০০ কর্মী-সহ তৃণমূলে যোগ রাজ্য কমিটির সদস্যের

চাহিদা মেটাতে কমপক্ষে ৪টি এসবিআই দরকার, বললেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন

দিল্লি যাচ্ছেন সুকান্ত মজুমদার, রাজ্য বিজেপিতে রদবদল নিয়ে আলোচনার সম্ভাবনা

মুখ্যমন্ত্রীর পাড়ায় প্রচারে গিয়ে পুলিশি বাধার মুখে সিপিএম, ধাক্কা বাম প্রার্থীকে

হালকা-মাঝারি বৃষ্টি শুরু কলকাতায়

প্রচারের শেষ ধাপে ভবানীপুরের মানুষের কাছে বিশেষ আবেদন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন