মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গরহাজির, প্রধানমন্ত্রীর কোভিড-বৈঠকে ভ্যাকসিন প্রসঙ্গ তুলল রাজ্য

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: কোভিড-১৯ (Covid-19) পরিস্থিতি নিয়ে বুধবার প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে অংশ নিলেন না পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে রাজ্যের তরফে ওই বৈঠকে অংশ নিয়ে প্রয়োজনীয় ভ্যাকসিনের প্রসঙ্গটি উত্থাপন করলেন মুখ্যসচিব।

বাংলায় না হলেও দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে, বিশেষ করে মহারাষ্ট্রে নতুন করে কোভিড-গ্রাফ ফের ঊর্ধ্বমুখী। কোথাও কোথাও জারি হয়েছে লকডাউন। এমন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মুখ্যমন্ত্রীদের নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। এই বৈঠকে ছিলেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তাঁর পরিবর্তে অংশ নেন রাজ্যের মুখ্যসচিব।

Loading videos...

কেন গরহাজির মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়?

তৃণমূল সূত্রে খবর, বুধবার পূর্ব নির্ধারিত নির্বাচনী সভা থাকায় বৈঠকে অংশ নিতে পারেননি মুখ্যমন্ত্রী। এ দিন প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক চলাকালীন তিনি গোপীবল্লভপুরে নির্ধারিত সভায় অংশ নেন।

রাজ্যের এক উচ্চপদস্থ সরকারি আধিকারিক জানান, এ দিন প্রধানমন্ত্রীর ভার্চুয়াল বৈঠকে অংশ নেন রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক দিকের প্রয়োজনীয়তা, অন্যদিকে অপচয়

জানা যায়, পশ্চিমবঙ্গে আরও কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন ডোজের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি উত্থাপন করেছিলেন আলাপন।

ভ্যাকসিন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “তেলঙ্গানা ও অন্ধ্রপ্রদেশে ১০ শতাংশেরও বেশি ভ্যাকসিনের অপচয় হয়েছে। উত্তরপ্রদেশেও ভ্যাকসিনের অপচয় প্রায় একই রকম। কেন ভ্যাকসিনের অপচয় হচ্ছে, তা এই রাজ্যগুলির পর্যালোচনা করা উচিত। প্রতিদিনের পরিসংখ্যান রাখতে হবে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে যোগাযোগ করা উচিত, যাতে এ ভাবে অপচয় না হয়”।

এ দিনের বৈঠকে যেখানেই প্রয়োজন হবে, সেখানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য সংশ্লিষ্ট রাজ্যগুলিকে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে কেন্দ্র।

টিকা কিনতে চেয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ সরকার

প্রসঙ্গত, প্রত্যেকের জন্য বিনামূল্যে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি টাকা দিয়ে টিকা কেনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন কেন্দ্রকে। কিন্তু কেন্দ্র কোনো হেলদোল দেখায়নি।

মঙ্গলবার মমতা অভিযোগ করেন, “আমাদের এখানে নেই, কিন্তু এখন আবার মহারাষ্ট্রে কোভিড বাড়ছে। মহারাষ্ট্রের নতুন করে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে। আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখেছিলাম। অনুরোধ করেছিলাম, সবাইকে ইঞ্জেকশনটা (ভ্যাকসিন) দেওয়া হোক। ইঞ্জেকশনের যা দাম লাগবে, আমি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে সেই দাম দিয়ে দেব। ভোটের আগেই আমি মোদীকে চিঠি লিখেছিলাম। এখনও অনুমোদন দেয়নি”।

আরও পড়তে পারেন: কোভিডের দ্বিতীয় চূড়া রুখতেই হবে, মুখ্যমন্ত্রীদের বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.