biman bose

বরানগর: সম্মেলন মঞ্চে দাঁড়িয়ে দলীয় সদস্যদের সামনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বাস্তব পরিস্থিতিকে অস্বীকার করলেন না দলের পলিট বুরো সদস্য বিমান বসু। উত্তর ২৪ পরগনা জেলার সিপিএমের ২৪তম সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছিলেন প্রাক্তন রাজ্য সম্পাদক। সম্মেলনে উপস্থাপিত খসড়া রিপোর্টের উপর একশোর বেশি প্রতিনিধি আলোচনা করেন। সেখানেই কারও কারও বক্তব্যে উঠে আসে কী ভাবে বিভিন্ন প্রকল্পকে সঙ্গে নিয়ে প্রান্তিক মানুষকে আকৃষ্ট করতে সমর্থ হচ্ছে বর্তমান সরকার। হয়তো তাঁদের উদ্দেশে জবাব দিতেই বিমানবাবু বলেন, রাজ্য সরকার কিছু কাজ করছে ঠিকই, কিন্তু তা নেহাতই চটকদারি।

তবে বিমানবাবু তাঁর নিজস্ব ঢঙেই বলেন, তৃণমূল আর বিজেপি-আরএসএসের সঙ্গে কোনো ফারাক নেই। এরা প্রত্যেকেই দক্ষিণপন্থাকে নিয়েই চলছে। হিটলার-মুসোলিনিকে নিজেদের আদর্শ মনে করা তৃণমূল সরকারের প্রতি তাই এত আকৃষ্ট আমেরিকা। নিজের বক্তব্যের স্বপক্ষে তিনি বলেন, দক্ষিণপন্থা অবলম্বন করে সরকার চলছে বলেই আমেরিকার বিদেশসচিব হিলারি ক্লিন্টন ভারতে এসেই মহাকরণে গিয়ে মমতার সঙ্গে দেখা করতে ছুটে আসেন। এ প্রসঙ্গে তিনি নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি পূরণে মমতাকে ঘিরে থাকা শিল্পপতিদেরও এক হাত নেন। সব মিলিয়ে সাম্রাজ্যবাদ আর ধান্ধাবাজরাই দেশটাকে চালাচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

বিমানবাবুর এ হেন মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে এক তৃণমূল নেতা বলেন, ‘সাম্রাজ্যবাদ, আমেরিকা নিয়ে উনি যে কথা বলবেন তা আর নতুন কী। তবে চটকদারি হোক আর যাই হোক, তৃণমূল সরকারের কাজ করার বিষয়টা কেন মেনে নিলেন, তা ঠিক বোঝা গেল না। আবার শিল্পপতিরাও যে মুখ্যমন্ত্রীকে ঘিরে রেখেছেন, এই কথার মাধ্যমে তো উনি স্বীকার করেই নিলেন যে রাজ্যে শিল্পের আবহ তৈরি হয়েছে।’

উল্লেখ্য, পার্টি সদস্যদের নিয়ে রুদ্ধদ্বার সম্মেলনে বিমানবাবু দলের সাম্প্রতিক অতীতের ভুলত্রুটিগুলি শুধরে নেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন